kalerkantho

শুক্রবার । ১৪ মাঘ ১৪২৮। ২৮ জানুয়ারি ২০২২। ২৪ জমাদিউস সানি ১৪৪৩

পরীক্ষামূলক ভাবে জাজিরা-শিমুলিয়া ঘাটে চলছে ফেরি, চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত কাল

জাজিরা (শরীয়তপুর) প্রতিনিধি   

৭ ডিসেম্বর, ২০২১ ২০:৫৩ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



পরীক্ষামূলক ভাবে জাজিরা-শিমুলিয়া ঘাটে চলছে ফেরি, চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত কাল

শরীয়তপুরের সাত্তার মাতবর মঙ্গল মাঝির ঘাট ও মুন্সিগঞ্জের শিমুলিয়ায় ফেরিঘাটে ফেরি চলাচল শুরু হয়েছে। আজ মঙ্গলবার সকাল ৭ টায় শিমুলিয়া থেকে ফেরি কুঞ্জলতা ৩৩ টি ছোট ছোট যানবাহন নিয়ে ছেড়ে আসে। আবার সারে ৮ টায় সেই ফেরিটি সাত্তার মাতবর মঙ্গল মাঝির ঘাট থেকে শিমুলিয়া ঘাটে ফিরে যায়। এ সময় নিবিগ্ন ভাবে ফেরি চলে।

বিজ্ঞাপন

 

ফেরীটি চলাচলে কোথাও কোনো সমস্যা হয় নি। এতে সফল হওয়ায় নিয়মিত ফেরি চলাচল শুরু হতে পারে বলে জানান বিআইডব্লিউটিসি বানিজ্য পরিচালক মো আশিকুজ্জামান। তিনি বলেন, সকালে ফেরিটি আসার পর কোথাও কোনো নাব্যতা সংকট বা কোনো বাধা পড়েন নি। তাই কুঞ্জলতা ফেরীটি আসার পর আবার তা ফিরে যায়। বিকেল আবার একটি ফেরি সাত্তার মাতবর মঙ্গল মাঝির ঘাটে ছেড়ে যাবে। হয়তো এভাবে করেই নিয়মিত শুরু হয়ে যাবে ফেরি চলাচল। এছাড়া আমাদের টেকনিক্যাল বিভেগ কাজ করছে ফেরি চলাচলের ব্যপারে। শুধু নদীতেই নয় রাস্তার দিকে লক্ষ রাখতে হবে। গাড়ি চলবে বা গাড়ি রাখা হবে সেই দিকেও লক্ষ রাখতে হবে।

বিআইডব্লিউটিএ ও বিআইডব্লিউটিসি সূত্রে জানা যায়, নদীতে তীব্র স্রোত থাকায় পদ্মা সেতুর সঙ্গে কয়েকবার ফেরির ধাক্কা লাগে। তাই ওই রুটে ফেরি চলাচল বন্ধ করে দেওয়া হয়। এতে করে ভোগান্তীতে পড়তে হয় দক্ষিনাঞ্চলের কয়েক জেলার মানুষের।

গত ২৫ আগস্ট জরুরি সেবা নিশ্চিত করতে শরীয়তপুরের জাজিরা উপজেলার মঙ্গল মাঝিরঘাট এলাকায় নতুন করে ফেরিঘাট নির্মাণ করা হয়। কিন্তু নাব্যতা সংকট ও রাস্তার কারণে ফেরি চলাচল শুরু করতে পারে নি। এর আগে শনিবার দুপুরে পরীক্ষামূলক ফেরি চালানো হয়েছিল। তখন নৌপথের চারটি স্থানে নাব্যতা–সংকট থাকায় ফেরি আটকে যায়।

সাত্তার মাতবর মঙ্গল মাঝির ঘাটের পল্টন সারেং মোঃ জহিরুল ইসলাম  জুয়েল কালের কণ্ঠকে বলেন, সকাল ৮ টায় ফেরি কুঞ্জলতা এই ঘাটে আসে। আবার কিছুক্ষণ পরে ছেড়ে চলে যায়। আস যাওয়া কোথাও আটকায় নি ফেরিটি। এখন রাতে পরিক্ষার জন্য ফেরী কুঞ্জলতা ৭টায় ছাড়ার কথা যদি রাতে চলতে কোনো সমস্যা না হয় তাহলে আগামী কাল থেকে নিয়মিতভাবে চলার সম্ভাবনা রয়েছে।



সাতদিনের সেরা