kalerkantho

শনিবার । ১৫ মাঘ ১৪২৮। ২৯ জানুয়ারি ২০২২। ২৫ জমাদিউস সানি ১৪৪৩

মনোনয়ন ফরম পূরণ করে প্রার্থী জানলেন, তিনি পাশের উপজেলার ভোটার!

আঞ্চলিক প্রতিনিধি, ময়মনসিংহ   

৩ ডিসেম্বর, ২০২১ ১৫:১০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



মনোনয়ন ফরম পূরণ করে প্রার্থী জানলেন, তিনি পাশের উপজেলার ভোটার!

নির্বাচন করার প্রস্তুতি নিয়ে তিনি এগোচ্ছেন অনেক আগ থেকেই। ভোটারদের সাথে মতবিনিময় করার পাশপাশি নানা উপায়ে তাদের কাছে নিজের গ্রহণযোগ্যতা প্রমাণের চেষ্টা করেছেন। এই অবস্থায় তফসিল ঘোষণার পর মনোনয়ন ফরম পূরণ করে জানতে পারলেন, তিনি সম্প্রতি পাশের উপজেলার ভোটার হিসেবে স্থানান্তর হয়েছেন। অথচ জাতীয় ও স্থানীয় সকল নির্বাচনেই তিনি নিজ এলাকা থেকে ভোট দিয়ে আসছেন।

বিজ্ঞাপন

এ খবরে আকাশ ভেঙে পড়েছে সম্ভাব্য মেম্বার প্রার্থীর মাথায়। কীভাবে তিনি অন্য উপজেলার ভোটার হলেন তা বলতে পারছেন না। এমন ঘটনা ঘটেছে ময়মনসিংহের নান্দাইল উপজেলার জাহাঙ্গীরপুর ইউনিয়নের দশধার গ্রামের আব্বাছ আলীর পুত্র বাদল মিয়ার।  

আজ শুক্রবার নান্দাইল উপজেলা নির্বাচন অফিসের সামনে দেখা হয় বাদল মিয়ার সাথে। সাংবাদিক জানতে পেরে তিনি তার কাছে থাকা কাগজপত্র দেখিয়ে বলেন, নান্দাইল উপজেলার ১২ নম্বর জাহাঙ্গীরপুর ইউনিয়নের দশধার এলাকার ৯ নম্বর ওয়ার্ডে তার বাড়ি। সেই ওয়ার্ড থেকে নির্বাচন করার জন্য মনস্থির করেছেন গত প্রায় তিন বছর ধরে। সেই হিসেবে জনগণের সাথে মতবিনিময় ছাড়াও গণসংযোগ করে যাচ্ছেন নিয়মিত। তফসিল ঘোষণার পর আগামী ৫ জানুয়ারি নির্বাচন। আসছে ৯ ডিসেম্বর মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার জন্য স্থানীয় নির্বাচন কার্যালয় থেকে আগেই মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করেছেন। ফরম পূরণ করতে গিয়ে জানতে পারেন তিনি কিশোরগঞ্জের হোসেনপুর উপজেলার জিনারী ইউনিয়নের জিনারী গ্রামের বাসিন্দা ও সেখানকার ভোটার। এ অবস্থায় মানসিকভাবে ভেঙে পড়েছেন তিনি। ওই উপজেলার জিনারী ইউনিয়নের কোথাও তাঁর আত্মীয়-স্বজন নেই।  

এ ঘটনার পর তার সন্দেহ, কোনো প্রতিদ্বন্দ্বী তার অজান্তে এ কাজ করতে পারেন। বাদল মিয়া আরও জানান, জিনারী গ্রামে তার কোনো বাড়িঘর না থাকলেও তার নামে জিনারী ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) থেকে ২০২০/২০২১ বছরের বসতবাড়ির ট্যাক্স আদায় করা হয়েছে। ভোটার এলাকা পরিবর্তনের জন্য ইউপিতে আবেদন পর্যন্ত করা হয়েছে। এসবের কিছুই তিনি জানেন না, বলেন বাদল মিয়া।

বাদল মিয়া বলেন, ভোটার হওয়ার পর তিনি প্রতিটি নির্বাচনে নান্দাইলে কিসমত বনগ্রাম সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ভোটকেন্দ্রে ভোট দিয়ে আসছেন। কিন্তু ইউপি নির্বাচনের আগমুহূর্তে তিনি কীভাবে হোসেনপুর উপজেলার ভোট হলেন তা বুঝতে পারছেন না।

এ বিষয়ে হোসেনপুর উপজেলা জিনারী ইউপি চেয়ারম্যান মো. আবদুস সালাম বলেন, নান্দাইলের দশধার গ্রামের বাদল মিয়া আমার ইউনিয়নের বাসিন্দা নন। ভোটারের এলাকা পরিবর্তনের কাগজপত্রে থাকা স্বাক্ষরের সাথে আমার স্বাক্ষরের মিল নেই। জাল কাগজপত্র নিয়ে নির্বাচন কার্যালয়ের সহায়তায় এ ধরনের কাজ করা সম্ভব বলে মনে করেন ইউপি চেয়ারম্যান।  



সাতদিনের সেরা