kalerkantho

শনিবার । ১৫ মাঘ ১৪২৮। ২৯ জানুয়ারি ২০২২। ২৫ জমাদিউস সানি ১৪৪৩

সোনারগাঁয়ে নির্বাচনোত্তর সহিংসতা, আহত-২০

সোনারগাঁ (নারায়ণগঞ্জ) প্রতিনিধি   

২৯ নভেম্বর, ২০২১ ১৯:১৯ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



সোনারগাঁয়ে নির্বাচনোত্তর সহিংসতা, আহত-২০

নির্বাচনে পূর্বে গত ২২ নভেম্বর প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী ও সমর্থকদের পিঠের চামড়া তুলে নেওয়ার হুমকিদাতা মেম্বারপ্রাথী নির্বাচনে জয়ী হয়েছেন। নির্বাচনে জিতেই রাতে বোম, ককটেল ও দেশিয় অস্ত্র নিয়ে হামলা চালিয়েছেন প্রতিদ্বন্দ্বী পরাজিত প্রার্থী এমএ হালিমের বাড়িতে। নারায়াণগঞ্জের সোনারগাঁয়ে নির্বাচন পরবর্তী সহিংসতায় বিভিন্ন ইউনিয়নে পর্যন্ত ২০ জন আহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে।

সরেজমিন ঘটনাস্থলে গিয়ে জানা যায়, উপজেলার পিরোজপুর ইউনিয়নে ৬ নং ওয়াডের্র মেম্বার প্রার্থী এম এ হালিম ও তার সমর্থকদের বাড়িতে হামলা চালিয়ে ভাংচুর ও ককটেল বিস্ফোরণের অভিযোগ উঠেছে বিজয়ী মেম্বার প্রার্থী রফিকুল ইসলাম সরকারের সমর্থকদের বিরুদ্ধে।

বিজ্ঞাপন

গতকাল ২৮ নভেম্বর রবিবার ১০ টায় আকস্মিকভাবে রফিকুল ইসলাম সরকারের আষাড়িয়ারচর গ্রামের সমর্থকরা এম এ হালিম ও তার সমর্থকদের বাড়িতে হামলা চালিয়ে ককটেল বিস্ফোরণসহ পুরো এলাকা আতংক ছড়ায়। হামলায় এম এ হালিমের কলেজ পড়ুয়া ছেলে সিরাজি, তার দুই, ভাতিজা ও নারীসহ কমপক্ষে ৫ জন আহত হয়েছেন।  
হামলার ঘটনার পর রাতেই ওই এলাকায় সোনারগাঁ থানা পুলিশের একটি টিম ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। ঘটনাস্থলে দুইটি ককটেল অক্ষত অবস্থায় পাওয়া যায়। পরে ডিবি পুলিশের বোম ডিস্পোজাল টিম এসে তা উদ্ধার করে অকার্যকর করে দেয়।

অন্যদিকে উপজেলার বারদী ইউনিয়নের ৯ নং ওয়ার্ডের পরাজিত দুইজন মেম্বার প্রার্থী ইব্রাহিম ইবু ও জাকির সরকারের নেতৃত্বে হয়ে বারদী ইউনিয়নের বর্তমান চেয়ারম্যান জহিরুল হকের বাড়িতে হামলা চালিয়ে বাড়িঘর ভাংচুর করে লুটপাট চালিয়ে ঘরে থাকা নগদ টাকা ও স্বর্ণালংকার লুট করে নিয়ে যায়। এসময় হামলাকারীরা বাড়িতে থাকা চেয়ারম্যানে ভাই তাইজুল, তানজিল, শাকিল, আমেনা, রাবেয়া, বিলকিছসহ ১০জনকে কুপিয়ে ও পিটিয়ে মারাক্তক জখম করে। আহতদের উদ্ধার করে স্থানীয় কয়েকটি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। রবিবার রাত ১০ টার দিকে এ ঘটনা ঘটে।

উপজেলার সনমান্দী ইউনিয়নের ৫নং ওয়ার্ডের ফলাফল ঘোষণার পর পরই পরাজিত প্রার্থী মোমেন সরকার তার প্রতিদ্বন্দ্বী আরেক পরাজিত প্রার্থী মাহজারুল ইসলামের বাড়িতে হামলা চালিয়ে তার বাড়িঘর ভাংচুর করে। হামলায় মাজহারুল ইসলামের বৃদ্ধ মা, চাচা, চাচী, ভাই সহ ৮ জন আহত হয়। এ সময় মাজহারুলের ভাইয়ের ঘরে আগুন ধরিয়ে দেওয়া হয়।

বারদী ইউনিয়নের নদীবেষ্টিত চরাঞ্চল নুনের টেকের ৬নং ওয়ার্ডের বিজয়ী প্রার্থী ওসমান মেম্বারের সমর্থক জাকারিয়া ও আবুল হাশেমের নেতৃত্বে আজ সকালে পরাজিত প্রার্থী শুক্কুর আল মাহমুদের বাড়িতে হামলা চালিয়ে বাড়িঘর ভাংচুর করে। হামলায় ৯ জন আহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে।

সোনারগাঁ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ হাফিজুর রহমান জানান, হামলার ঘটনায় অভিযোগ নেওয়া হয়েছে। তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।



সাতদিনের সেরা