kalerkantho

রবিবার । ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৮। ৫ ডিসেম্বর ২০২১। ২৯ রবিউস সানি ১৪৪৩

দীঘিনালায় ৮টি কেন্দ্র দখলের ঝুঁকিতে, ১২টি অধিক ঝুঁকিপূর্ণ

দীঘিনালা (খাগড়াছড়ি) প্রতিনিধি   

২৫ নভেম্বর, ২০২১ ১৪:৩২ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



দীঘিনালায় ৮টি কেন্দ্র দখলের ঝুঁকিতে, ১২টি অধিক ঝুঁকিপূর্ণ

জেলার দীঘিনালা উপজেলায় তিন ইউনিয়নে নির্বাচন হচ্ছে আগামী রবিবার। ইউনিয়ন তিনটির ৩৩টি কেন্দ্রে ভোট অনুষ্ঠিত হবে। উপজেলা নির্বাচন কার্যালয়ের তালিকা অনুযায়ী জানা গেছে, ৮টি কেন্দ্র দখলের ঝুঁকিতে রয়েছে। এছাড়া আরো ১২টি কেন্দ্র অধিক ঝুঁকিপূর্ণ হিসেবে চি‎‎হ্নিত করা হয়েছে। তবে সুষ্ঠু নির্বাচনের স্বার্থে এসকল কেন্দ্রে পর্যাপ্ত নিরাপত্তার ব্যবস্থা করা হয়েছে প্রশাসনের পক্ষ থেকে।

উপজেলা নির্বাচন অফিস সূত্রে জানা যায়, নির্বাচন হচ্ছে উপজেলার মেরুং, বোয়ালখালি এবং কবাখালি ইউনিয়নে। মেরুং ইউনিয়নে মোট ১৫টি ভোটকেন্দ্র রয়েছে। এর মধ্যে ৪টি কেন্দ্র দখলের ঝুঁকিতে রয়েছে। সেগুলো হলো- ফুলচান কার্বারী পাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, জয়ন্ত মোহন কার্বারী পাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, উত্তর রেংকার্য্যা উচ্চ বিদ্যালয় এবং রেংকার্য্যা উচ্চ বিদ্যালয়। 

এছাড়া আরো ৬টি কেন্দ্রকে অধিক ঝুঁকিপূর্ণ হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে। সেগুলো জামতলি আনসার ভিডিপি ক্লাব, মধ্য বোয়ালখালি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, বেতছড়ি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, আর এ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, ভূইয়াছড়ি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় এবং হাজাধন মনি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়।

বোয়ালখালি ইউনিয়নে ভোটকেন্দ্র রয়েছে ৯টি। এর মধ্যে ৪টিকে অধিক ঝুঁকিপূর্ণ হিসেবে চিহিত করা হয়েছে। সেগুলো কাটারুংছড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, তেভাংছড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, পোমাং পাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় এবং কাঠালতলী সুধীর মেম্বার পাড়া উপ-অনুঃ প্রাথমিক বিদ্যালয়।

কবাখালি ইউনিয়নেও ভোটকেন্দ্র ৯টি। এর মধ্যে ৪টি কেন্দ্র দখলের ঝুঁকি রয়েছে। সেগুলো হাচিনসনপুর উচ্চ বিদ্যালয়, হাচিনসনপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, তারাবুনিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় এবং কবাখালি শান্তিপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়। এছাড়া কবাখালি ইউনিয়ন পরিষদ কেন্দ্রকে অধিক ঝুঁকিপূর্ণ হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে।

উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মোহাম্মদ শাহেনসা লতিফুল খায়ের কালের কণ্ঠকে জানান, আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির সার্বিক বিবেচনায় সরকারি বিভিন্ন সংস্থার প্রতিবেদনের ভিত্তিতে ঝুঁকিপূর্ণ কেন্দ্রের তালিকা করা হয়েছে। তিনি আরো জানান, ভোটাররা নির্বিঘ্নে ভোট প্রয়োগ করতে পারবেন। সে কারণে পর্যাপ্ত পরিমাণে  আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী মোতায়েনের ব্যবস্থা করা হয়েছে। অধিক ঝুঁকিপূর্ণ কেন্দ্রগুলোতে বাড়তি নিরাপত্তাব্যবস্থা থাকবে। সর্বোপরি শান্তিপূর্ণ নির্বাচন অনুষ্ঠানের জন্য সার্বিক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে প্রশাসনের পক্ষ থেকে।



সাতদিনের সেরা