kalerkantho

মঙ্গলবার । ১৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৮। ৩০ নভেম্বর ২০২১। ২৪ রবিউস সানি ১৪৪৩

চাঁদা না পেয়ে লঞ্চ ভাঙচুর, বিচারের দাবিতে সংবাদ সম্মেলন

কেরানীগঞ্জ (ঢাকা) প্রতিনিধি   

২১ নভেম্বর, ২০২১ ০১:২১ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



চাঁদা না পেয়ে লঞ্চ ভাঙচুর, বিচারের দাবিতে সংবাদ সম্মেলন

চাঁদা না পেয়ে মারধর ও লঞ্চ ভাঙচুরের অভিযোগে দশমিনা সদর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ইকবাল মাহমুদ লিটনের বিরুদ্ধে সাংবাদিক সম্মেলন করেছে এমভি জাহিদ-৩ লঞ্চ কর্তৃপক্ষ।

শনিবার (২০ নভেম্বর) সকাল ১১টায় সদরঘাট লঞ্চ টার্মিনালের ১৩ নম্বর পল্টুনে নোঙর করা জাহিদ ৮ লঞ্চের দ্বিতীয় তলায় এ সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়। এতে মেসার্স ওহাব নেভিগেশনের মালিক আশরাফুল আলম সাংবাদিকদের উদ্দেশ্যে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন। লিখিত বক্তব্যে তিনি বলেন, আমাকে পটুয়াখালীর দশমিনা সদর ইউনিয় চেয়ারম্যান ইকবাল মাহমুদ লিটন আপ্যায়নের কথা বলে ডেকে নিয়ে যায় তার ইউনিয়ন পরিষদে। সেখানে চারটি ঘাটে আমার লঞ্চ ভেড়াতে ৬ লাখ টাকা চাঁদা দাবি ও তার নিয়োজিত লোকদের দ্বারা টিকেট কাটার প্রস্তাব দেন। এতে আমি রাজি না হলে ওই চারটি ঘাটে আমার লঞ্চ ভেড়ানো বন্ধ করে দেন চেয়ারম্যান।

শুক্রবার (১৯ নভেম্বর) স্থানীয় সন্ত্রাসী বাহিনী দিয়ে দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র সহকারে আমার মালিকানাধীন জাহিদ-৩ লঞ্চ এ হামলা চালায়। এতে লঞ্চের মাস্টার আব্দুস সাত্তারকে (৭০) মারধর করলে তার পায়ের রগ ছিড়ে যায়। গুরুতর আহত অবস্থায় তাকে পটুয়াখালী সদর হাসপাতালে নিয়ে গেলে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়।

এছাড়াও লঞ্চের সুপারভাইজার কামরুল ইসলাম এবং টিকেট কেরানি জামিলকে বেধড়ক মারধর ও ব্যাপক পরিমাণ ভাঙচুর চালানো হয়। এ সময় লঞ্চে রক্ষিত ৩ লক্ষ ৬৫ হাজার টাকা ছিনিয়ে নেয়। 
এ ঘটনায় দশমিনা সদর ইউনিয়ন চেয়ারম্যানকে প্রধান করে ও অজ্ঞাতপরিচয় বেশ কয়েকজনকে আসামি করে দশমিনা থানার মামলা দায়ের করেছে লঞ্চ কর্তৃপক্ষ।

এ সংবাদ সম্মেলনে বাংলাদেশ নৌযান শ্রমিক কল্যাণ সমিতির সভাপতি শাহ আলম মিয়া এ ঘটনার তীব্র নিন্দা জানিয়ে শ্রমিকদের মারধর করার সুষ্ঠু বিচার দাবি করে এবং আসামিদের দ্রুত গ্রেপ্তারে ২৪ ঘণ্টার আলটিমেটাম দেন। অন্যথায় এই রুটে চলাচলকারী সমস্ত নৌযান বন্ধ করে দেওয়ার ঘোষণা দেন তিনি।

এ সময় সংবাদ সম্মেলনে নৌযান শ্রমিক অ্যাসোসিয়েশনের সহ সভাপতি আবদুল মালেক মাস্টার, লঞ্চ শ্রমিক অ্যাসোসিয়েশনের (ঢাকা) সাধানণ সম্পাদক মো. আবু সাঈদ, শিপিং লঞ্চ গ্রুপের সাংগঠনিক সম্পাদক আবদুস সোবাহানসহ অন্যান্য লঞ্চের মালিক ও শ্রমিক প্রতিনিধিগণ উপস্থিত ছিলেন।



সাতদিনের সেরা