kalerkantho

শুক্রবার । ১৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৮। ৩ ডিসেম্বর ২০২১। ২৭ রবিউস সানি ১৪৪৩

ঢাকায় অগ্নিকাণ্ডে নিহত মনিরকে হারিয়ে বাকরুদ্ধ পরিবার

ফারুক আহম্মদ, চাঁদপুর    

৬ নভেম্বর, ২০২১ ০০:২৮ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ঢাকায় অগ্নিকাণ্ডে নিহত মনিরকে হারিয়ে বাকরুদ্ধ পরিবার

রাজধানী ঢাকার সোয়ারিঘাটে নিউ রোমানা রাবার (জুতার) কারখানাতে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডে নিহত পাঁচজনের একজন হচ্ছেন চাঁদপুরের কচুয়া উপজেলার মনির হোসেন। উপজেলার বিতারা ইউনিয়নের বাইছারা গ্রামে তাঁর বাড়ি। শ্রমিক মনির হোসেনের মর্মান্তিক মৃত্যুতে পরিবারের সদস্যদের মাঝে এখন শোকের মাতম চলছে।

বৃহস্পতিবার (৪ নভেম্বর) মধ্যরাতে ওই জুতার কারখানায় কর্মরত অবস্থায় আগুনের ধোঁয়ায় শ্বাসরুদ্ধ হয়ে অপর চারজনের সঙ্গে মনির হোসেনও অগ্নিদগ্ধ হয়ে মারা যান। 

ছেলের এমন মৃত্যুতে আফরোজা বেগম বলেন, প্রায় দশ মাস আগে তাঁর স্বামী মির্জা হাসেম মারা যান। এখন ঢাকায় অগ্নিকাণ্ডে পরিবারের একমাত্র উপার্জনক্ষম ছেলে মনির হোসেনকে হারিয়ে  বাকরুদ্ধ তিনিসহ পরিবারের সদস্যরা। ছেলের বউ, নাতি-নাতনিদের ভবিষ্যত কি হবে। এমন অজানা শঙ্কায় হাউ মাউ করে কেঁদে ফেলেন এই বৃদ্ধা মা।

নিহত মনিরের স্ত্রী নুরহাজান বেগম বলেন, তাঁর স্বামী গত মাসের ৪ তারিখ সর্বশেষ বাড়িতে আসেন। অবুঝ ২ ছেলে ও ১ মেয়েকে নিয়ে এখন কী করবে। এই নিয়ে কান্নায় ভেঙে পড়েন তিনি। 

স্থানীয়রা জানান, মনির হোসেনের পরিবার নিতান্ত অসহায় দরিদ্র। তাঁর মৃত্যুতে পরিবারের লোকজন মারাত্মক বিপদের মুখে পড়ে গেল।

কাজী আব্দুল বাতেন নামে একজন বলেন, মনির হোসেন তাঁর খালাতো ভাই। দীর্ঘ কয়েক বছর ধরে  পুরান ঢাকায় রুমানা নামে জুতার কারখানায় কর্মরত রয়েছেন। অসহায় মনির হোসেনের পরিবারের পাশে দাড়াঁতে রুমানা কারখানার মালিকপক্ষ হাজী রফিকুল ইসলামের প্রতি অনুরোধ জানান তিনি।

এদিকে মনির হোসেনের মৃত্যুর খবর পেয়ে এলাকার শত শত নারী-পুরুষ তার বাড়িতে ভিড় জমান। এসময় মনির হোসেনের স্বজন ও এলাকাবাসীর কান্নায় আকাশ ভারী হয়ে উঠে। 

নিহতের মরদেহের ময়নাতদন্ত শেষে আজ শনিবার দুপুরে পরিবারের কাছে হস্তান্তর করার কথা রয়েছে।



সাতদিনের সেরা