kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ১৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৮। ২ ডিসেম্বর ২০২১। ২৬ রবিউস সানি ১৪৪৩

ফেরির সাথে শখের বাইকটিও ডুবে গেছে, মায়ায় পড়েছেন অমল

আঞ্চলিক প্রতিনিধি, মানিকগঞ্জ   

২৮ অক্টোবর, ২০২১ ১৭:৩৪ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ফেরির সাথে শখের বাইকটিও ডুবে গেছে, মায়ায় পড়েছেন অমল

অমল ভট্টাচার্যের বাড়ি যশোরের মণিরামপুরে। চাকরির সুবাদে পরিবার নিয়ে থাকেন ফরিদপুর শহরে। শাপলা মহিলা সংস্থা নামে একটা এনজিওতে প্রজেক্ট ম্যানাজার হিসেবে কাজ করেন। অফিসের কাজেই বুধবার সকালে শখের মোটরসাইকেল নিয়ে ঢাকা যাচ্ছিলেন। কিন্তু রাজবাড়ীর দৌলতদিয়া থেকে পদ্মা পাড়ি দেওয়ার জন্য বাইক নিয়ে রোরো আমানত শাহ ফেরিতে ওঠেন। ফেরিটি পাটুরিয়ার পাঁচ নম্বর ঘাটে ভিড়ার সাথে সাথে এক দিকে কাত হতে থাকে। তাড়হুড়ো করে ফেরি থেকে কয়েকটি ট্রাক নামতে সক্ষম হলেও তিনি বাইক দ্রুত স্টার্ট দিয়ে পন্টুনে নামার চেষ্টা করেন। কিন্তু সামনে পড়ে যায় আরেকটি মোটরসাইকেল। এরপর ফেরি ডুবে যাওয়ায় বাইকটি নিয়ে আর পাড়ে নামতে পারেননি। ফেরির সাথে তার শখের বাইকটি নদীর পানিতে ডুবে যায়।

অমল ভট্টাচার্য কালের কণ্ঠকে বলেন, আমি বৃহস্পতিবার দুপুর থেকে বসে আছি। যদি উদ্ধারকর্মীরা মোটরসাইকেলটি খুঁজে পায়। সেই আশায়ই ঘাটে বসে আছি। কারণ দুর্ঘটনার পরই একটি মোটরসাইকেল উদ্ধার হয়েছিল।

তিনি আরো বলেন, দেড় শ সিসির মোটরসাইকেলটিকে শখের কারণে খুব যত্ন করতাম। এ কারণে মায়া ছাড়তে পারছি না। অন্য মানুষের লাখ লাখ টাকার ট্রাক ডুবে গেলেও আপনি একটা মোটরসাইকেলর জন্য বসে আছেন প্রশ্ন করলে অমল আরো বলেন, সংসারে যেমন ভাঙা কুলার জন্য মায়া হয় আর আমার তো দামী মোটরসাইকেল। তার জন্যতো মায়া হবেই।

উল্লেখ্য, গতকাল বুধবার অনেকগুলো ট্রাক ও আট-দশটি মোটরসাইকেল নিয়ে পাটুরিয়ার পাঁচ নম্বর ঘাটের কাছে আমানত শাহ নামের একটি রোরো ফেরি ডান দিকে কাত হয়ে ডুবে যায়। এ ঘটনায় একটি মোটরসাইকেল ও আটটি ট্রাক উদ্ধার করেছে উদ্ধার কর্মীরা।



সাতদিনের সেরা