kalerkantho

বুধবার । ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৮। ৮ ডিসেম্বর ২০২১। ৩ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৩

বঙ্গবন্ধুর ম্যুরাল অবরুদ্ধের অভিযোগ

অধ্যক্ষের পদত্যাগ দাবিতে গফরগাঁও সরকারি কলেজে ছাত্রলীগের বিক্ষোভ-মানববন্ধন

গফরগাঁও (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি   

২৬ অক্টোবর, ২০২১ ১৬:১২ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



অধ্যক্ষের পদত্যাগ দাবিতে গফরগাঁও সরকারি কলেজে ছাত্রলীগের বিক্ষোভ-মানববন্ধন

ময়মনসিংহের গফরগাঁও সরকারি কলেজ ক্যাম্পাসে ইটের প্রাচীর নির্মাণ করে বঙ্গবন্ধুর ম্যুরাল অবরুদ্ধ করা হয়েছে- এমন অভিযোগ তুলে এর প্রতিবাদে অধ্যক্ষের পদত্যাগ দাবি করে বিক্ষোভ মিছিল ও মানববন্ধন করেছে ছাত্রলীগ। আজ মঙ্গলবার সকাল ১১টায় কলেজ সংলগ্ন খান বাহাদুর ঈসমাইল সড়কে ছাত্রলীগ নেতাকর্মীদের অংশগ্রহণে এ মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। সেখানে সাধারণ শিক্ষার্থীদেরও অংশ নিতে দেখা গেছে।

এ সময় অধ্যক্ষের স্বেচ্ছাচারী সিদ্ধান্তে সোন্দর্য বর্ধনের নামে ইটের প্রাচীর নির্মাণ করে বঙ্গবন্ধুর ম্যুরাল অবরুদ্ধ করার প্রতিবাদে ক্ষোভ প্রকাশ করে বক্তব্য দেন  উপজেলা ছাত্রলীগ সভাপতি মেহেদী হাসান সানিল, সাধারণ সম্পাদক শরিফুল ইসলাম মণ্ডল, পৌর ছাত্রলীগ সভাপতি সাকিব মাহমুদ সিয়াম, সাধারণ সম্পাদক মেহরাব হোসেন তানভীর, কলেজ শাখা ছাত্রলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক নাজমুল হাসান রিভান, শাহরিয়ার সীমান্ত, সাব্বির আহম্মেদ, মুরাদ হাসানসহ বিভিন্ন স্তরের ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা। পরে একটি বিক্ষোভ মিছিল ক্যাম্পাস প্রদক্ষিণ শেষে অধ্যক্ষের কার্যালয় অবরোধ করে বিক্ষোভ প্রদর্শন করে। এ সময় বিক্ষোভকারীরা অধ্যক্ষের পদত্যাগ দাবি করে স্লোগান দেন।

জানা যায়, ছাত্রলীগের উদ্যোগ ও অর্থায়নে গফরগাঁও সরকারি কলেজ ক্যাম্পাসের কলা ভবনের সামনে বঙ্গবন্ধুর ম্যুরাল নির্মাণ করা হয়। পরে সংসদ সদস্য ফাহমী গোলন্দাজ বাবেল ম্যুরালটি উদ্বোধন করেন। সম্প্রতি কলেজ কর্তৃপক্ষ ম্যুরালের সামনে ইটের প্রাচীর নির্মাণ করে। ফলে ম্যুরালের সামনের জায়গা কমে যায়। এ অবস্থায় কলেজ শাখা ছাত্রলীগের পক্ষ থেকে ওয়াল নির্মাণ না করতে কলেজ কর্তৃপক্ষকে অনুরোধ করা হয়েছে। কিন্তু কলেজ কর্তৃপক্ষ সিদ্ধান্ত পরিবর্তন না করায় উপজেলা ও কলেজ শাখা ছাত্রলীগ মানববন্ধন ও বিক্ষোভ মিছিলের কর্মসূচি গ্রহণ করে।

উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক শরিফুল ইসলাম মণ্ডল বলেন, জামায়াত-বিএনপিঘেঁষা অধ্যক্ষের স্বেচ্ছাচারী সিদ্ধান্তে ইটের প্রাচীর নির্মাণ করে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর ম্যুরাল অবরুদ্ধ করা হয়েছে। অধ্যক্ষের স্বেচ্ছাচারিতা কোনোভাবেই মেনে নেওয়া যায় না। আমরা অধ্যক্ষের পদত্যাগ দাবি করছি।

গফরগাঁও সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর কাজী ফারুক আহম্মেদ বলেন, কলেজের শিক্ষার পরিবেশ নষ্ট হোক সেটা আমিও চাই না। ছাত্রলীগ নেতাদেরকে আমার কার্যালয়ে ডেকেছি। তাদের সঙ্গে আলোচনা করে পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেব।



সাতদিনের সেরা