kalerkantho

শনিবার । ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৮। ৪ ডিসেম্বর ২০২১। ২৮ রবিউস সানি ১৪৪৩

তফসিল ঘোষণার আগেই নৌকা পেতে দৌড়ঝাঁপ

পাটগ্রাম (লালমনিরহাট) প্রতিনিধি   

১৯ অক্টোবর, ২০২১ ২২:০৩ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



তফসিল ঘোষণার আগেই নৌকা পেতে দৌড়ঝাঁপ

নির্বাচনী তফসিল ঘোষণার আগেই লালমনিরহাটের পাটগ্রাম উপজেলার বহুল আলোচিত দহগ্রাম ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগের দলীয় মনোয়ন পেতে মনোনয়ন প্রত্যাশীরা আগাম প্রচারণা শুরু করেছেন। তফসিল ঘোষণা না হলেও আগামী ডিসেম্বর মাসকে লক্ষ করে দহগ্রাম ইউনিয়নে ইতিমধ্যে বইছে নির্বাচনী হাওয়া। সম্ভাব্য প্রার্থীরা ভোটারদের দ্বারে দ্বারে ঘুরে উন্নয়নের নানা প্রতিশ্রুতি দিচ্ছেন। দলীয় প্রতীক নৌকা পেতে মরিয়া হয়ে উঠেছেন আওয়ামী লীগের সম্ভাব্য প্রার্থীরা।

দলীয় মনোনয়ন ও সমর্থনের জন্য এলাকায় দৌড়ঝাঁপ শুরু করেছেন তারা। অনেকেই দলীয় মনোনয়ন পেতে ঢাকায় গিয়ে কেন্দ্রীয় নেতাদের দৃষ্টি আকর্ষণের জন্য তদবির শুরু করেছেন। এই ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনকে ঘিরে প্রায় ৬ মাস ধরে হাট-বাজারে, রাস্তা- ঘাটে, পাড়া-মহল্লায় ভোট নিয়ে আলোচনা-সমালোচনা চলছে। তারা ভোটারদের খোঁজ- খবর নেওয়াসহ করছেন কুশল বিনিময়।

এদিকে দলীয় প্রার্থীর বাহিরে অন্য প্রার্থী ও ইউপি সদস্য পদে প্রার্থীরা ভোটার ও সাধারণ মানুষের কাছে দোয়া ও সহযোগিতা কামনা করে প্রচারণা চালাচ্ছেন। অনেকে দলীয় মনোনয়ন ও সমর্থন চেয়ে ব্যানার, ফেস্টুন, পোস্টার সাটিয়ে নিজের প্রার্থীতা জানান দিচ্ছেন। এতে ভোটাররাও উৎসুক।

দহগ্রাম ইউপি নির্বাচনে আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনয়ন প্রত্যাশীদের মধ্যে তিন জন প্রার্থী উল্লেখ যোগ্য তাঁরা হলেন দহগ্রাম ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক চেয়ারম্যান মো. হাবিবুর রহমান, দহগ্রাম ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি সাফিউল আলম বাবলু ও দহগ্রাম ইউনিয়ন পরিষদের বর্তমান চেয়ারম্যান মো. কামাল হোসেন প্রধান।

দহগ্রাম ইউপি নির্বাচনে আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনয়ন প্রত্যাশীদের মধ্যে রয়েছেন দহগ্রাম ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান মো. হাবিবুর রহমান। তিনি দহগ্রাম ইউনিয়ন আওয়ামী যুবলীগের সাবেক সভাপতি। ২০১০ সালের নির্বাচনে বিএনপির প্রার্থী ও প্রাক্তন চেয়ারম্যান সাইফুল ইসলামকে পরাজিত করে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন।

এ বিষয়ে দহগ্রাম ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক চেয়ারম্যান মো. হাবিবুর রহমান বলেন, আমি দহগ্রাম ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান ও বর্তমানে দহগ্রাম ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হিসেবে জনগণের সেবা করে আসছি। এলাকার মানুষের সুখে- দুঃখে যেকোনো কাজে আমার কাছে গিয়ে কেউ ফেরত আসেনি। এ জন্য জনগণ আমার পাশে আছে। দলমত- নির্বিশেষে সবাই আমাকে পছন্দ করে। আমি শতভাগ আশাবাদী মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আমাকে দলীয় মনোনয়ন দেবেন।

তাঁর পাশাপাশি আওয়ামী লীগ থেকে প্রার্থী হতে আগ্রহ প্রকাশ করে দহগ্রাম ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি সাফিউল আলম বাবলু এলাকায় প্রচারণা চালাচ্ছেন। প্রতিনিয়ত ভোটারদের দ্বারে দ্বারে ঘুরছেন। তিনি দহগ্রাম ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও আহ্বায়ক ছিলেন।

দহগ্রাম ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি সাফিউল আলম বাবলু বলেন, আমি এলাকার অসহায় ও গরিব মানুষের বিপদে- আপদে সবসময় পাশে দাঁড়িয়েছি। তাদের আর্থিকভাবে সহযোগিতাসহ তাদের নানান রকম সমস্যা সমাধানে পাশে থেকে সমাধান করেছি। এ জন্য আমি মনে করি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা আমাকে দলীয় মনোনয়ন দিলে আমি বিপুল ভোটে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হব।

উল্লেখ্য, গত ২০১৬ সালের দহগ্রাম ইউপি নির্বাচনে আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনয়ন পেয়েছেন সাবেক চেয়ারম্যান হাবিবুর রহমান কিন্তু বিদ্রোহী হিসেবে নির্বাচনে বর্তমান চেয়ারম্যান কামাল হোসেন প্রধান জয় লাভ করেন। এ ছাড়াও আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনয়ন প্রত্যার্শী হিসেবে রয়েছেন দহগ্রাম ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি ও দহগ্রাম ইউনিয়ন পরিষদের বর্তমান চেয়ারম্যান মো. কামাল হোসেন প্রধান।

এ বিষয়ে দহগ্রাম ইউনিয়ন পরিষদের বর্তমান চেয়ারম্যান মো. কামাল হোসেন প্রধান বলেন, দহগ্রামের মাঠি ও মানুষের সঙ্গে আমার দীর্ঘদিনের নিবিড় সম্পর্ক। আমি চেয়ারম্যান নির্বাচিত হওয়ার পর এলাকার ব্যাপক উন্নয়ন হয়েছে। আমি মনে করি দহগ্রাম ইউপি নির্বাচনে আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনয়নের জন্য তৃণমূল থেকে আমার নাম তালিকা কেন্দ্রে পাঠালে আমি দলীয় মনোনয়ন পাব এবং পূনরায় চেয়ারম্যান নির্বাচিত হব।



সাতদিনের সেরা