kalerkantho

বৃহস্পতিবার  । ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৮। ৯ ডিসেম্বর ২০২১। ৪ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৩

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়

হলের দুয়ার খুলল দেড় বছর পর

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি   

১৭ অক্টোবর, ২০২১ ১৭:২৪ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



হলের দুয়ার খুলল দেড় বছর পর

করোনার কারণে দেড় বছর বন্ধ থাকার পর অবশেষে খুলেছে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের আবাসিক হলগুলো। রবিবার (১৭ অক্টোবর) সকাল ১০টায় বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন ও আবাসিক হলগুলোর পক্ষ থেকে শিক্ষার্থীদের ফুল দিয়ে বরণ করে নেওয়া হয়। এরপরই শিক্ষার্থীরা হলে প্রবেশ করতে শুরু করেন।

আগামী বুধবার (২০ অক্টোবর) থেকে শিক্ষার্থীদের সশরীরে উপস্থিতিতে ক্লাসও শুরু হবে। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হলে শিক্ষার্থীদের বরণ করে নেওয়ার কার্যক্রম উদ্বোধন করেন উপাচার্য অধ্যাপক গোলাম সাব্বির সাত্তার। শিক্ষার্থীদের বরণকালে তিনি সবাইকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার ব্যাপারে দিক-নির্দেশনা প্রদান করেন। হলে প্রবেশের সময় প্রত্যেক শিক্ষার্থীকে গোলাপ ফুল, মাস্ক, হ্যান্ড স্যানিটাইজার ও চকলেট দেওয়া হয়।

এ সময় অন্যান্যের মধ্যে উপ-উপাচার্য অধ্যাপক সুলতান-উল-ইসলাম টিপু, উপ-উপাচার্য চৌধুরী মো. জাকারিয়া, রেজিস্ট্রার অধ্যাপক মো. আবদুস সালাম, হল প্রাধ্যক্ষ ড. মো. রওশন জাহিদ ও আবাসিক শিক্ষকবৃন্দ, ভারপ্রাপ্ত প্রক্টর মো. লিয়াকত আলী, ছাত্র উপদেষ্টা এম তারেক নূর, জনসংযোগ দপ্তরের প্রশাসক ড. মো. আজিজুর রহমান প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

আবাসিক হলগুলো ঘুরে দেখা গেছে, হলে প্রবেশ করেই শিক্ষার্থীরা যার যার রুম পরিচ্ছন্নের কাজে ব্যস্ত হয়ে পড়েন। দীর্ঘদিন পর হলে উঠতে পেরে উচ্ছাস প্রকাশ করেন তারা। এদিকে, হলগুলোর ভেতরে রাখা হয়েছে জরুরি আইসোলেশন রুমের ব্যবস্থা। বিভিন্ন স্থানে টানানো হয়েছে স্বাস্থ্যবিধি সম্পর্কিত বিভিন্ন চার্ট।

হোসেন শহীদ সোহ্রাওয়ার্দী হলের আবাসিক শিক্ষার্থী আল হাসান সাব্বির বলেন, অন্যান্য বিশ্ববিদ্যালয়ের আবাসিক হলগুলো খুলে দেওয়ায় আমরাও প্রতীক্ষায় ছিলাম কবে আমাদের হল খুলবে। দীর্ঘদিন পর আজ হল খুলেছে। হলে এসে বন্ধু, বড় ভাইদের সঙ্গে দেখা হয়েছে। এতদিন পর হলে এসে সত্যিই খুব ভাল লাগছে।

এদিকে, অন্তত এক ডোজ টিকা নিয়েছেন এমন শিক্ষার্থীদেরকেই কেবল হলে প্রবেশ করতে দেওয়া হয়। যারা এখনো টিকা পায়নি বা দ্বিতীয় ডোজ গ্রহণ করেনি সেসব শিক্ষার্থীদের জন্য বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসেই টিকা দেওয়া শুরু হয়েছে। গতকাল শহীদ সুখরঞ্জন সমাদ্দার ছাত্র-শিক্ষক সাংস্কৃতিক কেন্দ্রে চারটি বুথে টিকা প্রদান করা হয়। আগামী ২২ অক্টোবর পর্যন্ত প্রতিদিন সকাল ৯টা থেকে দুপুর ২টা পর্যন্ত টিকা প্রদান কার্যক্রম চলবে। রবিবার প্রথম দিন ৬০০ শিক্ষার্থী এই কেন্দ্র থেকে টিকা গ্রহণ করেন।

সার্বিক বিষয়ে হল প্রাধ্যক্ষ পরিষদের আহ্বায়ক ড. জুলকার নায়েন বলেন, শিক্ষার্থীরা দীর্ঘদিন পর হলে ফিরতে পেরেছে। সত্যিই বিষয়টি আনন্দের। আমরা শিক্ষার্থীদের হলে অবস্থানের জন্য তাদের স্বাস্থ্যবিধির বিষয়টি গুরুত্বের সঙ্গে দেখছি।

করোনা সংক্রমণের কারণে গত বছরের ১৮ই মার্চ বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্লাস-পরীক্ষা ও আবাসিক হল বন্ধ ঘোষণা করা হয়। পরে গত ৩০ সেপ্টেম্বর অনুষ্ঠিত এক সভায় হল খোলার বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেয় বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।



সাতদিনের সেরা