kalerkantho

সোমবার । ১৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৮। ২৯ নভেম্বর ২০২১। ২৩ রবিউস সানি ১৪৪৩

ইউপি'র প্রার্থী তালিকায় অনুপ্রবেশকারী বিএনপি নেতার নাম প্রস্তাব!

দীঘিনালায় ক্ষোভ

খাগড়াছড়ি ও দীঘিনালা প্রতিনিধি   

১৬ অক্টোবর, ২০২১ ২৩:৩০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ইউপি'র প্রার্থী তালিকায় অনুপ্রবেশকারী বিএনপি নেতার নাম প্রস্তাব!

আসন্ন ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে সম্ভাব্য প্রার্থী তালিকায় অনুপ্রবেশকারী বিএনপি নেতার নাম থাকায় ক্ষোভ জানিয়েছেন উপজেলা আওয়ামী লীগের নেতারা। এ ঘটনা ঘটেছে খাগড়াছড়ি জেলার দীঘিনালার উপজেলার কবাখালী ইউনিয়নে। সেখানে সম্ভাব্য প্রার্থীদের তালিকায় এক নম্বরে সাবেক বিএনপি নেতা আব্দুল বারেকের নাম প্রস্তাব করা হচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে। 

উপজেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি মো. মাহবুব আলম, ইউনিয়নের বর্তমান চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক জাহাঙ্গীর হোসেন এবং উপজেলা আওয়ামী লীগের প্রস্তাবিত কমিটির যুগ্ম সম্পাদক মো. রওশন আলী ভূইয়া এ ব্যাপারে জেলা আওয়ামী লীগের হস্তক্ষেপ কামনা করে আজ শনিবার জেলা কমিটির কাছে লিখিতভাবে অভিযোগ করেন।

অভিযোগে উল্লেখ করা হয়েছে, কবাখালী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান প্রার্থী মনোনয়ন দেওয়াকে কেন্দ্র করে উপজেলা আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে আকস্মিকভাবে গত শুক্রবার বৈঠক ডাকা হয়। সেখানে ইউনিয়ন কমিটির ৬৮ ব্যক্তিকে দিয়ে ভোট নেওয়া হয়। অভিযোগ রয়েছে, দুই বছর আগে ইউনিয়ন কমিটি গঠন করা হলেও তা অনুমোদিত নয়। তাছাড়া ওই প্রস্তাবিত কমিটির বেশ কয়েকজনই বিএনপি ও সহযোগী সংগঠন থেকে সদ্য আওয়ামী লীগে যোগদানকারী। যারা ভোট দিয়ে তাদের সাবেক বিএনপি নেতা আব্দুল বারেককে সম্ভাব্য ইউপি চেয়ারম্যান হিসেবে মনোনয়ন দিয়েছেন। উল্লেখ্য প্রস্তাবিত চেয়ারম্যান হিসেবে আরো তিনজনের নামও রয়েছে।

ইউনিয়ন পরিষদের বর্তমান চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর হোসেন জানান, একজন অনুপ্রবেশকারী ও পঙ্গু ব্যক্তি (আব্দুল বারেক) মনোনয়ন পেতে পারেন না। উপজেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি মাহবুব আলম বলেন, ‘১৮ বছর ধরে কেবল উপজেলা আওয়ামী লীগেই কাজ করছি। অথচ দলে অনুপ্রবেশ করেই প্রার্থী হবেন এটা মেনে নেওয়া যায় না।’ আওয়ামী লীগ নেতা মো. রওশন আলী ভূইয়া জানান, ‘শুনেছি ইউনিয়ন কমিটির বৈঠকের কিছুক্ষণ আগেই সেই কমিটিকে অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। যেখানে উপজেলা কমিটিকে এখনো অনুমোদন দেওয়া হয়নি; সেই কমিটি কিভাবে ইউনিয়ন কমিটির অনুমোদন দিল?’

এ বিষয়ে জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নির্মলেন্দু চৌধুরী জানিয়েছেন, এ ধরনের কোনো লিখিত অভিযোগ তিনি পাননি। তবে দলে সদ্য যোগদানকারী বা অনুপ্রবেশকারী কাউকে প্রার্থী হিসেবে মনোনয়ন দেওয়ার চিন্তা নেই। দিলেও তাদের অতীত সম্পর্কে আলাদাভাবে নোট দেওয়া হবে।



সাতদিনের সেরা