kalerkantho

শনিবার । ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৮। ৪ ডিসেম্বর ২০২১। ২৮ রবিউস সানি ১৪৪৩

ময়মনসিংহের ফুলবাড়িয়া

এবারও নৌকা পেলেন জাতীয় পার্টি থেকে বিএনপি হয়ে আসা সাইফুজ্জামান

২০১৪ সালের জাতীয় সংসদ নির্বাচন প্রতিহত কমিটির সদস্যও ছিলেন তিনি

নিজস্ব প্রতিবেদক, ময়মনসিংহ    

১৫ অক্টোবর, ২০২১ ১১:১৪ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



এবারও নৌকা পেলেন জাতীয় পার্টি থেকে বিএনপি হয়ে আসা সাইফুজ্জামান

এক সময়ে করতেন জাতীয় পার্টি। এরপর যুক্ত ছিলেন ময়মনসিংহের ফুলবাড়িয়া উপজেলার বিএনপি’র রাজনীতিতে। বিএনপি নেতা হিসেবে ২০১৪ সালের জাতীয় সংসদ নির্বাচন প্রতিহত কমিটির সদস্যও ছিলেন। আলোচিত এ ব্যক্তির নাম সাইফুজ্জামান। গত ইউপি নির্বাচনে তিনি পেয়ে যান আওয়ামী লীগের নৌকা প্রতীক। হয়ে যান চেয়ারম্যান। এরপর দলীয় রাজনীতিতে নীরব থাকেন। বর্তমানে আওয়ামী লীগের দলীয় সদস্য পদও নবায়ন করেননি তিনি। সেই সাইফুজ্জামান এবারও নৌকা প্রতীক পেয়েছেন ফুলবাড়িয়া উপজেলার ১২ নম্বর আছিম পাটুলি ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে। স্থানীয় আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা বিগত সময়েই তার দলীয় মনোনয়নে বিক্ষুব্ধ হয়েছিলেন। কিন্তু আবারও সেই আগের ব্যক্তিই নৌকা প্রতীক পাওয়ায় এবার স্থানীয় নেতাকর্মীরা চরম ভাবে ক্ষুব্ধ। জানা গেছে, বিতর্কিত এ ব্যক্তির দলীয় মনোনয়ন পাওয়ার ক্ষেত্রে ভূমিকা রেখেছেন উপজেলা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক আব্দুল মালেক সরকার। 

    
স্থানীয়ভাবে এবং সংশ্লিষ্ট কাগজপত্রের সূত্রে ধরে জানা যায়, সাইফুজ্জামান এক সময়ে জাতীয় পার্টি করতেন। তিনি জাতীয় পার্টির সময়ে ফুলবাড়িয়া থেকে জেলা পরিষদের সদস্যও হয়েছিলেন। পরে বিএনপি ক্ষমতায় আসলে তিনি বিএনপি’তে যোগ দেন। চেয়ারম্যান হন আছিম পাটুলী ইউনিয়ন থেকে। এরপর তিনি বিএনপি’র উপজেলা কমিটির ৫৪ নম্বর সদস্য হন। অভিযোগ আছে, ওই সময়ে তিনি স্থানীয় আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের বিভিন্নভাবে নির্যাতন ও হয়রানী  করেন। সবচেয়ে বড় অভিযোগটি হলো, ২০১৪ সালে বিএনপি’র হয়ে জাতীয় সংসদ নির্বাচন প্রতিহত কেন্দ্র কমিটির ৩৬ নম্বর সদস্য ছিলেন। বিগত ইউপি নির্বাচনেও সাইফুজ্জামান নৌকা প্রতীক পেয়ে যান। নৌকা নিয়ে নির্বাচন করে ইউপি চেয়ারম্যান পদে বিজয়ীও হয়ে যান। এরপর তিনি রাজনীতিতে নীরব হয়ে পড়েন। এমনকি পরবর্তীতে তিনি আওয়ামী লীগের সদস্য পদও নবায়ন করেননি। এবারও সেই সাইফুজ্জামান আবারও নৌকা প্রতীক পেয়েছেন। 
   
আছিম পাটুলী ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ থেকে মনোনয়ন প্রত্যাশী মো. শামছুল আলক আকন্দ বলেন সাইফুজ্জামান ভিন্ন দল করতেন। এরপরও নৌকা নিয়ে চেয়ারম্যান হন। চেয়ারম্যান হয়ে দলের কোনো কাজে ছিলেন না। এমনকি দলের সদস্য পদও নবায়ন করেননি। তিনি বিষয়টি লিখিতভাবে দলের হাই কমান্ডকে জানিয়েছেন বলে জানান। 
   
জানা গেছে, সাইফুজ্জামানকে দলীয় মনোনয়ন দেয়ার ক্ষেত্রে মূল ভূমিকা রেখেছেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল মালেক সরকার। এ ব্যাপারে আব্দুল মালেক সরকার বলেন, সাইফুজ্জামান আওয়ামী লীগ করেন। যারা মনোনয়ন পায়নি তারাই নানান কথা বলছে। সাইফুজ্জামানকে এ ব্যাপারে জানতে চেয়ে ফোন দিলে তিনি বলেন তিনি ব্যস্ত আছেন। পরে কথা বলবেন। 



সাতদিনের সেরা