kalerkantho

শনিবার । ১২ অগ্রহায়ণ ১৪২৮। ২৭ নভেম্বর ২০২১। ২১ রবিউস সানি ১৪৪৩

বানিয়াচং স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স : আছে অপারেশন থিয়েটার, বন্ধ দরজা

বানিয়াচং (হবিগঞ্জ) প্রতিনিধি   

১০ অক্টোবর, ২০২১ ১৬:০৩ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



বানিয়াচং স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স : আছে অপারেশন থিয়েটার, বন্ধ দরজা

হবিগঞ্জের বানিয়াচংয়ে ৫০ শয্যার স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের অপারেশন থিয়েটার ২২ বছর ধরে বন্ধ। সর্বশেষ অপারেশন হয়েছিল ১৯৯৯ সালে। জেনারেল সার্জন প্রয়াত ডাক্তার খায়রুল আলম বদলি হয়ে চলে যাওয়ার পর থেকে অপারেশন বন্ধ রয়েছে। এরপর আর কোনো দিন বানিয়াচংয়ের স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে অপারেশন হয়নি। তবে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের দাবি, ২০১৮ সালে কিছু সিজার হয়েছে। 

মাঝেমধ্যে অপারেশন থিয়েটার সচল করার উদ্যোগ নেওয়া হলেও তা আর বাস্তবায়ন করা যায়নি। অস্ত্রোপচারের যন্ত্রপাতি থাকলে সার্জন থাকেন না। আবার সার্জন থাকলে এনেসথেসিয়ার লোক থাকেন না। আবার এনেসথেসিয়ার লোক ও সার্জন থাকলেও দেখা যায় অস্ত্রোপচারের যন্ত্রপাতি অকেজো। এ রকমভাবে কেটে গেছে ২২ বছর। কিন্তু কার্যকরভাবে সমন্বিত কোনো উদ্যোগ নেওয়া হয়নি। যে কারণে দীর্ঘদিন ধরে দুর্ভোগ পোহাচ্ছেন স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে জরুরি চিকিৎসা নিতে আসা সাধারণ রোগী ও তাদের স্বজনরা। 

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক তরুণ জানান, প্রায় তিন মাস আগে কোনোভাবে তার শরীরের কোনো অংশ কেটে যায়। বানিয়াচং হাসপাতালের জরুরি বিভাগের ডাক্তার জানান, এই হাসপাতালে চিকিৎসা করা সম্ভব নয়। এ সময় ওই তরুণ চিন্তিত হয়ে পড়লে এগিয়ে আসেন জরুরি বিভাগের এক সহকারী। তিনি হাসপাতালের সামনের ফার্মেসিতে গিয়ে বসার জন্য বলেন তাকে। পরে তিনি এসে জানান, তিনি নিজেই সেলাই করে দেবেন।

বানিয়াচং স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে সদ্যই যোগদান করেছেন এনেসথেসিয়ার ডাক্তার। কিন্তু জেনারেল সার্জন ও গাইনি কনসালটেন্ট না থাকার কারণে দুটি অপারেশন থিয়েটার থাকার পরও অস্ত্রোপচার করা সম্ভব নয় বলে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স সূত্রে জানা যায়। 

বানিয়াচং উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের কর্মকর্তা ডা. শামীমা আক্তার বলেন, ‘আমাদের প্রয়োজনীয় লোকবল না থাকার কারণে জরুরি কোনো অস্ত্রোপচার করা সম্ভব হচ্ছে না। তবে টুকটাক কোনো সমস্যা হলে আমরা চেষ্টা করব।’



সাতদিনের সেরা