kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ১২ কার্তিক ১৪২৮। ২৮ অক্টোবর ২০২১। ২০ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

পাকুন্দিয়ায় যুবদলের কমিটি পুনর্বহাল দাবি, না হলে কঠোর কর্মসূচি

পাকুন্দিয়া (কিশোরগঞ্জ) প্রতিনিধি   

২৭ সেপ্টেম্বর, ২০২১ ২১:৫৬ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



পাকুন্দিয়ায় যুবদলের কমিটি পুনর্বহাল দাবি, না হলে কঠোর কর্মসূচি

সম্প্রতি কিশোরগঞ্জের পাকুন্দিয়া উপজেলা যুবদলের আহ্বায়ক কমিটি বিলুপ্ত করা হয়েছে। এ কমিটি পুনর্বহালের দাবিতে সংবাদ সম্মেলন করেছে বিলুপ্ত কমিটির একাংশের নেতাকর্মীরা। আজ সোমবার বিকেল সাড়ে ৫টার দিকে পাকুন্দিয়া প্রেস ক্লাব মিলনায়তনে এ সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন বিলুপ্ত কমিটির যুগ্ম আহ্বায়ক মো. দিদারুল আলম দিদার। সম্মেলনে দিদারুল আলম লিখিত বক্তব্যে অভিযোগ করেন, ২০ সেপ্টেম্বর এক প্রেস বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে পাকুন্দিয়া উপজেলা যুবদলের কমিটি বিলুপ্ত করে দেয় কেন্দ্রীয় কমিটি। কোনো প্রকার কারণ দর্শানো ছাড়া, জেলা কমিটিকে অবহিত না করে এবং যথাযথ সাংগঠনিক প্রক্রিয়া অনুসরণ না করে এ কমিটি বিলুপ্ত করা হয়। দীর্ঘদিনের রাজপথের আন্দোলন সংগ্রামে ত্যাগী ও পরীক্ষিত নেতাদের দিয়ে এ কমিটি গঠন করা হয়েছিল। কিন্তু দুঃখের বিষয় কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সভাপতি ও ময়মনসিংহ বিভাগীয় সাংগঠনিক টিমের প্রধান আবদুল খালেক হাওলাদার প্রভাব খাটিয়ে কেন্দ্রীয় কমিটিকে ভুল বুঝিয়ে এ কমিটি বিলুপ্ত করিয়েছেন। এ সিদ্ধান্তে আমরা ক্ষুব্ধ, হতাশ ও হতবাক হয়েছি। যা দলের জন্য খুবই অমঙলজনক।

লিখিত বক্তব্যে তিনি বলেন, কমিটি গঠনের পর থেকেই মহামারি করোনার কারণে লকডাউন ও গণজমায়েত নিষিদ্ধ করে সরকার। যে কারণে ইউনিয়ন কমিটি গঠনসহ দলীয় বিভিন্ন কর্মসূচী আমরা করতে পারিনি। এরপরও বুরুদিয়া ইউনিয়ন কমিটি গঠন করেছি। জাঙালিয়া ইউনিয়ন কমিটি গঠনের প্রস্তুতি নিয়েছিলাম। এর মধ্যেই কমিটি বিলুপ্ত করা হয়। দলের এ হঠকারী সিদ্ধান্ত অনতিবিলম্বে প্রত্যাহারের জন্য আমরা জোর দাবি জানাচ্ছি।

সংবাদ সম্মেলন থেকে আগামী সাত দিনের মধ্যে পাকুন্দিয়া উপজেলা যুবদলের বিলুপ্ত কমিটি পুনর্বহাল না করা হলে পরবর্তীতে কঠোর কর্মসূচি দেওয়া হবে বলে হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করা হয়।

সংবাদ সম্মেলনে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন জেলা যুবদলের সদস্য নুরুল ইসলাম বুলবুল, বিলুপ্ত কমিটির যুগ্ম আহ্বায়ক ও ইউপি সদস্য তৌফিকুল ইসলাম, খুরশিদ আলম, আমির খসরু, জসিম উদ্দিন, কার্যকরী সদস্য হাবিবুল্লাহ সোহাগ, মাহবুব উল্লাহ তাকি ও রাজন হক প্রমুখ।

উল্লেখ্য, গত বছরের ১৬ মার্চ প্রভাষক মিজানুর রহমান খাঁন সুমনকে আহ্বায়ক ও রাকিবুল আলম ছোটনকে এক নম্বর যুগ্ম আহ্বায়ক করে ৩১ সদস্যের এ আহ্বায়ক কমিটির অনুমোদন দেয় জেলা কমিটি। প্রায় দেড় বছর পর গত ২০ সেপ্টেম্বর এক প্রেস বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে এ কমিটির বিলুপ্ত ঘোষণা করে কেন্দ্রীয় কমিটি। 



সাতদিনের সেরা