kalerkantho

সোমবার । ২ কার্তিক ১৪২৮। ১৮ অক্টোবর ২০২১। ১০ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

বেতন না পেয়ে সোনারগাঁয়ে সড়কে টায়ার জ্বালিয়ে বিক্ষোভ

সোনারগাঁ (নারায়ণগঞ্জ) প্রতিনিধি   

২২ সেপ্টেম্বর, ২০২১ ২০:৪১ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



বেতন না পেয়ে সোনারগাঁয়ে সড়কে টায়ার জ্বালিয়ে বিক্ষোভ

নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁ উপজেলার কাচঁপুর শিল্পাঞ্চলে ওপেক্স ও সিনহা গার্মেন্টেসে বকেয়া বেতনের দাবিতে ঢাকা-চট্টগ্রাম ও ঢাকা-সিলেট মহাসড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করেছে কয়েক হাজার শ্রমিক। এতে দুই মহাসড়কে প্রায় ২০ কিলোমিটার এলাকা জুড়ে যানজটের সৃষ্টি হয়েছে। আজ বুধবার সন্ধ্যায় মহাসড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করেন শ্রমিকরা।

বুধবার বেতন দেওয়ার কথা থাকলেও তাদের বকেয়া বেতন না দেওয়ায় শ্রমিকরা একত্রিত হয়ে মহাড়ক অবরোধ করে টায়ারে আগুন জ্বালিয়ে বিক্ষোভ করছে। খবর পেয়ে সোনারগাঁ থানা পুলিশ, শিল্প পুলিশ, কাচঁপুর হাইওয়ে থানা পুলিশ শ্রমিকদের মহাসড়ক থেকে সরিয়ে নিয়ে যানচলাচলের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে।

ওপেক্স অ্যান্ড সিনহা গ্রুপের শ্রমিকরা জানান, বুধবার সকালে তাদের বকেয়া বেতন দেওয়ার কথা বলেছিল মালিক পক্ষ। পরে বিকেল পর্যন্ত অপেক্ষা করে বেতন না পেয়ে তারা সড়ক অবরোধ করে। তাদের তিন মাসের বেতন বকেয়া রয়েছে। বেতন দেওয়ার কথা বললেই তারা তালবাহানা শুরু করেন। এ ছাড়া শ্রমিকদের অবসর সার্ভিসের টাকা, মাতৃত্বকালীন ছুটি, বাৎসরিক ছুটির টাকা, মৃত্যুজনিত এককালীন বীমার টাকা পরিশোধ করা হচ্ছে না। এসব বিষয় নিয়ে শ্রমিকরা মালিক পক্ষের লোকজনের সাথে কথা বলতে গেলে তারা ভয়ভীতি দেখাচ্ছেন। তারা জানান, দাবি পূরণ না হলে মহাসড়ক ছাড়বেন না।

সিনাহা ওপেক্স গার্মেন্টের শ্রমিক আছিয়া বেগম জানান, লকডাউন থেকেই তাদের বেতন বকেয়া রয়েছে। আজ তিন মাসের বকেয়া বেতন দেওয়ার কথা বলেছিলেন মালিক পক্ষ। হঠাৎ আগামী মাসে বেতন দেওয়া হবে বলে একটি নোটিশ ঝুলিয়ে দেয়। তারপরও আমরা বেতনের জন্য মালিক পক্ষের সঙ্গে কথা বলার চেষ্টা করেছি। কিন্তু মালিক পক্ষের লোকজন আমাদের সঙ্গে কোনো কথা বলেনি। বাধ্য হয়ে বিকেলে সড়ক অবরোধ করতে হয়েছে।

শ্রমিক নোমান মিয়া বলেন, আমরা সকাল থেকে রাত পর্যন্ত কাজ কলেও বেতন না পাওয়ায় মানবেতর জিবন যাপন করতে হচ্ছে। দোকান বাকি ও বাসা ভাড়া বকেয়ার জন্য মালিকরা প্রতিদিনই অপমান অপদস্ত করছে। নিরুপায় হয়ে আমাদের আন্দোলন করতে হচ্ছে।

সোনারগাঁ থানার ওসি মোহাম্মদ হাফিজুর রহমান জানান, শ্রমিকদের দাবি নিয়ে মালিকপক্ষের সঙ্গে কথা হয়েছে। তাদের দাবি পূরণের আশ্বাস দিয়ে মহাসড়ক থেকে সরিয়ে পণ্যবাহী যান চলাচল স্বাভাবিক করা হয়েছে। 



সাতদিনের সেরা