kalerkantho

শনিবার । ৩১ আশ্বিন ১৪২৮। ১৬ অক্টোবর ২০২১। ৮ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

বেনাপোলে দ্বিতীয় দিনের কর্মবিরতি, বন্দরে আটকা শত শত ট্রাক

বেনাপোল প্রতিনিধি    

২২ সেপ্টেম্বর, ২০২১ ১৩:২১ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



বেনাপোলে দ্বিতীয় দিনের কর্মবিরতি, বন্দরে আটকা শত শত ট্রাক

১৫ দফা দাবি আদায়ের লক্ষ্যে ৭২ ঘণ্টা কর্মবিরতির আজ বুধবার (২২ সেপ্টেম্বর) দ্বিতীয় দিনে বেনাপোল থেকে সব ধরনের পণ্যবাহী ট্রাক চলাচল বন্ধ রয়েছে। পণ্যবাহী ট্রাক চলাচল বন্ধ থাকায় বেনাপোল বন্দর এলাকায় সৃষ্টি হয়েছে পণ্যজটের। যা পরবর্তী সময়ে রূপ নিয়েছে যানজটে। তবে ভারত-বাংলাদেশের মধ্যে আমদানি-রপ্তানি কার্যক্রম স্বাভাবিক আছে।

গতকাল মঙ্গলবার (২১ সেপ্টেম্বর) ভোর ৬টা থেকে আগামী বৃহস্পতিবার (২৪ সেপ্টেম্বর) ভোর ৬টা পর্যন্ত এ কর্মবিরতির ডাক দেন বাংলাদেশ ট্রাক, কাভার্ডভ্যান, প্রাইমমুভার পণ্য পরিবহন মালিক অ্যাসোসিয়েশন ও বাংলাদেশ ট্রাকচালক শ্রমিক ফেডারেশন। তারই সঙ্গে একাত্মতা ঘোষণা করে যশোর জেলা ট্রাক মালিক সমিতি, বেনাপোল ট্রাক মালিক সমিতি ও ট্রান্সপোর্ট মালিক সমিতি। 

কয়েকটি ট্রাক বন্দর থেকে পণ্য লোড করে গন্তব্যে যেতে না পেরে বন্দর এলাকায় আটকা পড়েছেন ট্রাকচালকরা। কাজ করতে না পেরে অসহায় হয়ে পড়েছেন দিন আনা দিন খাওয়া বন্দর শ্রমিকরা। দ্রুত ধর্মঘট প্রত্যাহার চান তারা। এদিকে, দাবি না মানা পর্যন্ত এ কর্মবিরতি চলবে বলে জানিয়েছেন অ্যাসোসিয়েশন নেতারা। মাইকিং চলছে সংগঠনের পক্ষে।

বন্দর শ্রমিকরা জানান, তারা বন্দরে কাজ করে সংসার চালান। কিন্তু কর্মবিরতিতে বন্দর থেকে আমদানিপণ্য খালাস না হওয়ায় কাজ হারিয়ে তারা অসহায় হয়ে পড়েছেন। দ্রুত কর্মবিরতি প্রত্যাহার চেয়েছেন সাধারণ শ্রমিকরা।

বেনাপোল ট্রান্সপোর্ট মালিক সমিতির সভাপতি এ কে এম আতিকুজ্জামান সনি ও সাধারণ সম্পাদক আজিম উদ্দীন গাজী জানান, এ কর্মবিরতিকে সমর্থন জানিয়ে বেনাপোল বন্দর এলাকায় লিফলেট বিতরণ ও মাইকিং করে পণ্যবাহী ট্রাক চলাচলে কর্মবিরতি পালন করা হচ্ছে। কর্মবিরতির প্রথম দিনে মঙ্গলবার কোনো পণ্যবাহী ট্রাক বেনাপোল বন্দর থেকে পণ্য লোড করেনি বা বেনাপোল ছেড়ে যায়নি। আজ বুধবারও কর্মবিরতি পালন করা হচ্ছে। 

কর্মবিরতি পালন করায় বন্দর থেকে কোনো ট্রাক পণ্য লোড করবে না বা বেনাপোল থেকে কোনো ট্রাক ছেড়ে যাবে না বলে জানান বেনাপোল ট্রান্সপোর্ট মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক আজিম উদ্দিন গাজী। তিনি আরো জানান, মালিক সমিতির দেওয়া ১৫ দফা দাবি আদায়ের লক্ষ্যে এ আন্দোলন চলবে। 

বেনাপোল আমদানি-রপ্তানিকারক সমিতির সহ-সভাপতি আমিনুল হক বলেন, শিল্প-কলকারখানার কাঁচামাল, গার্মেন্টস ও খাদ্যদ্রব্যজাতীয় পণ্য ভারত থেকে আমদানি হয়ে থাকে। কিন্তু পরিবহন কর্মবিরতির কারণে ট্রাকচালকরা এসব পণ্য নিয়ে গন্তব্যে যেতে পারছেন না। এতে বন্দর এলাকায় পাঁচ শতাধিক ট্রাক পণ্য নিয়ে আটকা পড়েছে। দ্রুত কর্মবিরতি প্রত্যাহার না হলে শিল্প-কারখানায় উৎপাদন কার্যক্রম ব্যাহত হবে। এ ছাড়া আটকা পড়া পণ্যে বড় ধরনের লোকসানের কবলে পড়বেন ব্যবসায়ীরা।

বেনাপোল সিঅ্যান্ডএফ অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি মফিজুর রহমান সজন জানান, ট্রাক মালিক সমিতির ডাকা তিন দিনের কর্মবিরতিতে বেনাপোল বন্দর থেকে কোনো পণ্য লোড হচ্ছে না। পণ্য লোড না হওয়ার কারণে বন্দর এলাকায় সৃষ্টি হয়েছে পণ্যজটের। পণ্যজটের কারণে আমদানি-রপ্তানি কার্যক্রম ব্যাহত হচ্ছে। একদিকে রপ্তানি পণ্যবাহী ট্রাক জায়গা না থাকায় রাস্তার ওপর দাঁড়িয়ে রয়েছে, অন্যদিকে আমদানি করা পণ্য ঢুকছে। সব মিলে বেনাপোলে ব্যাপক যানজটের সৃষ্টি হচ্ছে। সাধারণ মানুষের চলাচলে ভাগান্তি বাড়ছে।

বেনাপোল বন্দরের উপপরিচালক (প্রশাসন) আব্দুল জলিল বলেন, কর্মবিরতিতে বেনাপোল বন্দর থেকে পণ্য পরিবহন বন্ধ থাকলেও বন্দরের কার্যক্রম সচল রয়েছে। আমদানি-রপ্তানি বাণিজ্য সচল ও পাসপোর্টধারী যাত্রীরা দুই দেশের মধ্যে যাতায়াত করছে। তবে  কর্মবিরতিতে ব্যবসায়ীরা পণ্য পরিবহন করতে না পারাই বাণিজ্য কার্যক্রম ব্যাহত হচ্ছে।

উল্লেখ্য, অ্যাসোসিয়েশনের ১৫ দাবির মধ্যে রয়েছে- মোটরযান মালিকদের ওপর আরোপিত অগ্রিম আয়করের (এআইটি) ওপর চাপিয়ে দেওয়া বর্ধিত আয়কর অবিলম্বে প্রত্যাহার করতে হবে, যেসব চালক ভারী মোটরযান চালাচ্ছেন তাদের সবাইকে সহজ শর্তে এবং সরকারি ফি’র বিনিময়ে অবিলম্বে ভারী ড্রাইভিং লাইসেন্স প্রদান করতে হবে, ড্রাইভিং লাইসেন্সের নবায়ন ক্ষেত্রে পুনরায় হয়রানিমূলক ফিটনেস ও পরীক্ষা পদ্ধতি বাতিল করতে হবে। এ ছাড়া পণ্য পরিবহন খাতের ট্রাক ও কাভার্ডভ্যান প্রাইমমুভার ট্রেলার পরিস্থিতি সরকার নিবন্ধিত শ্রমিক ইউনিয়নগুলো গঠনতন্ত্রসম্মত কল্যাণ তহবিল সংগ্রহের ওপর কোনো অজুহাতে বিধি-নিষেধ আরোপ করা চলবে না। চট্টগ্রাম প্রাইমমুভার ট্রেইলার শ্রমিক ইউনিয়ন রেজিস্ট্রার নম্বর ২০৮৮ চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষ সমীপে পেশ করা প্রস্তাব বা সুপারিশগুলো অবিলম্বে বাস্তবায়ন করতে হবে বলে দাবি তাদের। 



সাতদিনের সেরা