kalerkantho

বুধবার । ৪ কার্তিক ১৪২৮। ২০ অক্টোবর ২০২১। ১২ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

মান্দায় একইস্থানে দুই মণ্ডপে পূজার প্রস্তুতি নিয়ে উত্তেজনা

মান্দা (নওগাঁ) প্রতিনিধি    

২১ সেপ্টেম্বর, ২০২১ ১৬:৩০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



মান্দায় একইস্থানে দুই মণ্ডপে পূজার প্রস্তুতি নিয়ে উত্তেজনা

নওগাঁর মান্দায় সামাজিক দ্বন্দ্বে গ্রামবাসী দু’ভাগে বিভক্ত হয়ে একইস্থানে দুই মণ্ডপে দুর্গাপূজা উদযাপনের প্রস্তুতি নেওয়ায় উত্তেজনা দেখা দিয়েছে। এ নিয়ে উপজেলার বিষ্ণুপুর ইউনিয়নের প্রত্যন্ত পল্লী পারসিমলা গ্রামে যেকোনো সময় রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের আশঙ্কা করছেন স্থানীয়রা।

পারসিমলা সার্বজনীন দুর্গা মন্দির কমিটির সেক্রেটারি গোবিন্দ চন্দ্র তালুকদার জানান, ৪০ বছরেরও অধিক সময় ধরে এই মন্দিরে গ্রামবাসী সম্মিলিতভাবে পূজা-অর্চনা করে আসছেন। এবারও দুর্গাপূজা উদযাপনের লক্ষ্যে গ্রামবাসীদের নিয়ে বৈঠক করা হয়। এতে গ্রামের অজিত চন্দ্র তালুকদারের নেতৃত্বে একটি পক্ষ বিভিন্ন অজুহাত তুলে বিরোধিতাসহ পূজা করবে না বলে জানিয়ে দেন। 

তিনি আরও বলেন, এ অবস্থায় মন্দির কমিটি তাদের সহযোগিতা ছাড়াই পূজা উদযাপনের প্রস্তুতি নেন। হঠাৎ করে অজিত তালুকদারের নেতৃত্বে মন্দির চত্বরের জায়গা দখল করে মণ্ডপ নির্মাণসহ প্রতিমা তৈরির কাজ শুরম্ন করেন। এতে মন্দির পক্ষের লোকজনের মাঝে উত্তেজনা দেখা দেয়।

এ প্রসঙ্গে অজিত চন্দ্র তালুকদার বলেন, মন্দির কমিটিতে থাকা ব্যক্তিদের আচার-আচরণ ভালো নয়। অনুষ্ঠান শেষে আয়-ব্যয়ের হিসাব তারা সঠিকভাবে দেন না। কমিটির মেয়াদ শেষ হলেও নতুন কমিটি না করে গায়ের জোরে এবারও পূজা উদযাপনের প্রস্তুতি নিয়েছে প্রতিপক্ষরা।

তিনি আরও বলেন, মন্দির চত্বরের সম্পত্তি আমাদের ব্যক্তি মালিকানার সম্পত্তি। সেখানে আমরা মণ্ডপ তৈরি করে পূজার প্রস্তুতি নিয়েছি। এতে দোষের কিছু দেখি না।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক গ্রামের একাধিক ব্যক্তি জানান, দুই মণ্ডপে পূজা উদযাপনকে কেন্দ্র করে গ্রামবাসীর দু’পক্ষে উত্তেজনা বিরাজ করছে। তৃতীয় কোনো পক্ষ এ সুযোগ কাজে লাগাতে পারে। গ্রামে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষেরও আশঙ্কা করছেন তারা।

উপজেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি প্রবীন কুমার দাস জানান, বিষয়টি আমাদের নলেজে আছে। আজ মঙ্গলবার বিকেলে ওই গ্রামে সমঝোতা বৈঠক করা হবে। সমঝোতার মাধ্যমে উভয়পক্ষকে নিয়ে শান্তিপূর্ণ পরিবেশে পূজা উদযাপনের লক্ষ্যে কাজ করছে উপজেলা পূজা উদযাপন পরিষদ।  

মান্দা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শাহিনুর রহমান জানান, এ বিষয় নিয়ে মঙ্গলবার বিকেলে উপজেলা পূজা উদযাপন কমিটির নেতৃবৃন্দদের নিয়ে সেখানে সমঝোতা বৈঠকের আয়োজন করা হয়েছে। অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে ওই গ্রামে পুলিশি নজরদারি বাড়ানো হয়েছে।



সাতদিনের সেরা