kalerkantho

বুধবার । ৪ কার্তিক ১৪২৮। ২০ অক্টোবর ২০২১। ১২ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

অসুস্থ স্ত্রীকে তালা দিয়ে আরেক স্ত্রীর কাছে স্বামী, উদ্ধার করল পুলিশ

নিজস্ব প্রতিবেদক, ময়মনসিংহ    

২১ সেপ্টেম্বর, ২০২১ ১৫:৪৭ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



অসুস্থ স্ত্রীকে তালা দিয়ে আরেক স্ত্রীর কাছে স্বামী, উদ্ধার করল পুলিশ

ঘরে অসুস্থ স্ত্রীকে তালাবদ্ধ করে রাতে দ্বিতীয় স্ত্রীর বাড়িতে যান স্বামী। মধ্যরাতেই ওই নারী অসুস্থ হয়ে পড়েন। অসুস্থ অবস্থায় ঘরের ভেতরে কাতরাচ্ছিলেন ওই নারী। তার চিৎকারে প্রতিবেশীরা জড়ো হয়। তবে ঘর তালাবদ্ধ থাকার তারা ভেতরে প্রবেশ করতে পারেননি। এমন সময় তাদের মধ্যে একজন পুলিশের হেল্পলাইন ৯৯৯-এ ফোন দিয়ে বিষয়টি জানান। পরে পুলিশ এসে ওই নারীকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নেয়।

সোমবার (২০ সেপ্টেম্বর) দিবাগত রাতে এমন ঘটনা ঘটেছে ময়মনসিংহ নগরীতে। ওই নারীর ঠিকানা ছিল নগরীর জেসিগুহ রোড। তার স্বামীর নাম আব্দুল হাকিম। তিনি পেশায় একজন দোকানদার।

জানা যায়, ওই নারী কিছুদিন আগে পাঁচমাসের অন্তঃসত্ত্বা অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিলেন। সেখানে 'মিসক্যারেজ' জনিত কারণে ডিএমসি করানো হয় তাকে। এর ফলে তার রক্তশূন্যতাসহ শ্বাসকষ্ট দেখা দেয়। তবে পরে তিনি একটু সুস্থ হয়ে বাড়িতে ফিরে আসেন। সোমবার রাতে তাকে ঘরে তালাবদ্ধে রেখে স্বামী আব্দুল হাকিম তার দ্বিতীয় স্ত্রীর বাড়িতে যান। এমন সময় ওই নারী অসুস্থ হয়ে পড়েন। তার চিৎকারে প্রতিবেশীরা এগিয়ে এসে ঘরটি বাইরে থেকে তালাবদ্ধ অবস্থায় দেখতে পান। প্রতিবেশীরা এ সময় আব্দুল হাকিমকে ফোন দিলে তার মোবাইলটিও বন্ধ পান। পরে তাদের মধ্যে একজন পুলিশের হেল্পলাইন ৯৯৯-এ ফোন দিয়ে বিষয়টি জানান।

পুলিশ জানায়, তালাবদ্ধ ওই নারীকে উদ্ধারে ৯৯৯ থেকে ফোন আসে কোতোয়ালী থানার ওসি শাহ কামালের কাছে। তিনি তাৎক্ষণিক পুলিশের একটি টিম ঘটনাস্থলে পাঠান। পুলিশ ওই বাড়িতে গিয়ে স্থানীয়দের সহায়তায় বাড়ির বাথরুমের পেছনের দেয়াল ভেঙে ওই নারীকে উদ্ধার করে।

পরে ওই নারীকে উদ্ধার করে হাসপাতালের জরুরী বিভাগে ভর্তি করে পুলিশ। তিনি সেখানে চিকিৎসাধীন আছেন বলে জানা গেছে। এখন অনেকটা সুস্থ আছেন বলে জানিয়েছেন চিকিৎসক।

কোতোয়ালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শাহ কামাল বলেন, ৯৯৯-এ পোন পেয়ে বাড়ির দেয়াল ভেঙে ওই নারীকে উদ্ধার করা হয়েছে। তিনি এখন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন। চিকিৎসা শেষে ওই নারী কোনো অভিযোগ দিলে বিষয়টি খতিয়ে দেখা হবে।



সাতদিনের সেরা