kalerkantho

বুধবার । ৪ কার্তিক ১৪২৮। ২০ অক্টোবর ২০২১। ১২ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

'বিশেষ কাজ আছে' বলে স্ত্রীকে গভীর জঙ্গলে নিয়ে হত্যা

নিজস্ব প্রতিবেদক, গাজীপুর   

২০ সেপ্টেম্বর, ২০২১ ২০:২০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



'বিশেষ কাজ আছে' বলে স্ত্রীকে গভীর জঙ্গলে নিয়ে হত্যা

আগের দিন রাতেও স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে তুমুল ঝগড়া হয়। সকালে দুজনই চলে যান যার যার কর্মস্থলে। দুপুরের খাবার বিরতির সময় স্বামী রাজু আহম্মেদ ফোন দেন স্ত্রী জরিফুলকে। বলেন, গার্মেন্টের বাইরে আসতে। জরিফুল আসার পর 'বিশেষ কাজ' আছে বলে বাসে তুলে নিয়ে আসেন গাজীপুরের চান্দনা চৌরাস্তায়। সেখান থেকে রিকশায় স্ত্রী নিয়ে আসেন ভাওয়াল জাতীয় উদ্যানে। নির্জন গজারি বনের ভেতর গিয়ে দাঁড়িয়ে যান তিনি। জরিফুল জানতে চান 'কেন দাঁড়াইছা'? 'আজ তরে মাইরা ফালামু' বলেই এক হাত দিয়ে জরিফুলের ঘাড় চেপে ধরেন তিনি। অন্য হাত দিয়ে মুখ। জরিফুল নিস্তেজ হয়ে এলে তাঁর ওড়না গলায় পেঁচিয়ে মৃত্যু নিশ্চিত করেন। পরে পকেটে থাকা ব্লেড দিয়ে স্ত্রীর ডান হাতের কবজিতে কেটে দিয়ে কারিয়াকৈরের মৌচাকের ভাড়া বাসায় চলে আসে রাজু। ১৬ সেপ্টেম্বর অজ্ঞাত হিসেবে জরিফুলের লাশ উদ্ধার করে সদর থানার পুলিশ।

গতকাল রবিবার রাতে স্বামী গার্মেন্ট শ্রমিক রাজুকে ভাড়া বাসা থেকে গ্রেপ্তার করে হত্যা রহস্য উদঘাটন করে গাজীপুর পিবিআই। সোমবার বিকেলে এসব তথ্য জানান পিবিআইয়ের পুলিশ সুপার মোহাম্মদ মাকছুদের রহমান।

গ্রেপ্তার রাজু আহম্মেদ (৩১) জামালপুরের ইসলামপুর থানার পাঁচবাড়িয়া গ্রামের মো.আবু বক্কর সিদ্দিকের ছেলে। তিনি কালিয়াকৈরের সফিপুর পল্লী বিদ্যুৎ এলাকার লিবার্টি গার্মেন্টের ডায়িং বিভাগের কোয়ালিটি কন্ট্রোলার পদে চাকরি করেন। আর তার স্ত্রী জরিফুল (৩৫) মৌচাক নিট কারখানায় চাকরি করতেন। ২০০৭ সালে তারা প্রেম করে বিয়ে করেন। তাদের ৮ বছরের একটি কন্যা সন্তান রয়েছে।

পুলিশ সুপার বলেন, স্ত্রীকে নিয়ে মৌচাকের মাজার সড়কে ভাড়া থাকতেন রাজু। সম্প্রতি জরিফুল পাশের রুমের ভাড়াটিয়ার সাথে অবৈধ সম্পর্কে জড়িয়ে পড়েন। জানতে পেরে চলতি মাসের শুরুতে বাসা ছেড়ে দেন রাজু। এ নিয়ে তাদের মধ্যে প্রায় ঝগড়া হতো। চাকরি করলেও বেতনের টাকা সংসারে না দিয়ে বাবা-মার কাছে পাঠাতেন জরিফুল। এরই জেরে গত ১৫ সেপ্টেম্বর রাতে তাদের মধ্যে ঝগড়া হয়েছিল।  



সাতদিনের সেরা