kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ১২ কার্তিক ১৪২৮। ২৮ অক্টোবর ২০২১। ২০ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

শর্ত শিথিল, বেনাপোল দিয়ে ভারতমুখী যাত্রীদের ভিড়

বেনাপোল প্রতিনিধি   

২০ সেপ্টেম্বর, ২০২১ ১৫:৩৪ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



শর্ত শিথিল, বেনাপোল দিয়ে ভারতমুখী যাত্রীদের ভিড়

ভারত গমনে শর্ত শিথিল করায় বেনাপোল চেকপোস্ট ইমিগ্রেশন দিয়ে যাত্রী পারাপার বৃদ্ধি পেয়েছে। গত ৮ সেপ্টেম্বর প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিন উঠে যাওয়ার পর ভারতে যাত্রী গমন বৃদ্ধি পায়। এ ছাড়া ভারত থেকে আসা পাসপোর্ট যাত্রীদেরও হাইকমিশনের অনুমোদনের শর্ত তুলে নেয়। তবে উভয় রাষ্ট্র থেকে পাসপোর্টযাত্রীদের করোনা নেগেটিভ সনদের শর্ত বহাল রয়েছে।

বিশ্বব্যাপী করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়লে দেশের বস চেয়ে বড় স্থলবন্দর বেনাপোল দিয়ে পাসপোর্টযাত্রী চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। এরপর শুধুমাত্র চিকিৎসার জন্য যাত্রীরা বিশেষ অনুমোদন নিয়ে যেতে পারবে বলে উভয় দেশের সরকার অনুমোদন দেয়। কিছুদিন পর স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সুরক্ষা বিভাগের অনুমোদন নিয়ে মেডিক্যাল ভিসা এবং বাণিজ্যিক ভিসার অনুমোদন দেয়। এরপর যাত্রীরা এত শর্ত নিয়ে চলাচলে বিড়ম্বনায় পড়ে। সেই থেকে যাত্রী হ্রাস পায় বহির্গমন ও আন্তর্গমনে। সব মিলে ২০০ এর মধ্যে যাত্রী চলাচল ছিল।

সম্প্রতি শর্ত শিথিলের কারণে এ পথে প্রতিদিন সব মিলিয়ে সহস্রাধিক যাত্রী চলাচল করছে বলে জানা গেছে। গত এক সপ্তাহে ভারত ও বাংলাদেশে আন্ত ও বহির্গমনে ৬ হাজার ৮৩৪ জন যাত্রী চলাচল করেছেন। এর মধ্যে ১৩ সেপ্টেম্বর ৬২৯ জন, ১৪ সেপ্টেম্বর ৮৪৫ জন, ১৫ সেপ্টেম্বর ৫২৯ জন, ১৬ সেপ্টেম্বর ১ হাজার ২২৪ জন, ১৭ সেপ্টেম্বর ১ হাজার ২২৭ জন, ১৮ সেপ্টেম্বর ১ হাজার ২০২ জন ও ১৯ সেপ্টেম্বর ১ হাজার ১৭৮ জন ভারত ও বাংলাদেশি যাত্রী যাতায়াত করেছে।

করোনাভাইরাসের কারণে ভারত থেকে ফেরত আসা যাত্রীদের প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিন শুরু হয় গত ২৬ এপ্রিল থেকে। এর আগেও কোয়ারেন্টিন চালু ছিল গত বছরের জুলাই মাস থেকে। নিজ খরচে প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিনে থাকা খাওয়ার কারণে ভারত গমন যাত্রী অনেক হ্রাস পেয়েছিল। আবার ভারত থেকে ফেরার সময় ভারতে নিযুক্ত বাংলাদেশি হাইকমিশন থেকে অনুমোদন নিয়ে ফেরার কারণেও যাত্রী হ্রাস পায়। তবে মুমূর্ষু রোগীরা সকল শর্ত মেনে ভারত গমন করে।

বেনাপোল চেকপোস্ট ইমিগ্রেশন ওসি আহসান হাবিব বলেন, উভয় দেশের শর্ত শিথিল এবং করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব তুলনামূলক কম হওয়ায় গত এক সপ্তাহ যাবৎ পাসপোর্টযাত্রী বৃদ্ধি পেয়েছে। ট্যুরিস্ট ভিসা ছাড়লে হয়তো আগের মতো দুই দেশ থেকে আসা যাওয়া যাত্রী ১০ হাজারের কাছাকাছি যাবে। এতে সরকারও অনেক রাজস্ব পাবে।

বেনাপোল কাস্টমস সূত্র জানা গেছে, ভারত বাংলাদেশ থেকে মেডিক্যাল, বিজনেস, এম্পলয়ার, স্টুডেন্ট ভিসার পাশাপাশি টিএফ ভিসার যাত্রীও চলাচল করছে। হয়তো খুব তাড়াতাড়ি উভয় রাষ্ট্র ভ্রমণ ভিসা চালু করবে। তখন যাত্রী সংখ্যা বেড়ে আগের মতো হবে বলে আশা করা হচ্ছে।



সাতদিনের সেরা