kalerkantho

সোমবার । ২ কার্তিক ১৪২৮। ১৮ অক্টোবর ২০২১। ১০ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

কেরানীগঞ্জে ব্যবসায়ী সেলিম হত্যা মামলার প্রধান আসামি গ্রেপ্তার

কেরানীগঞ্জ (ঢাকা) প্রতিনিধি   

২০ সেপ্টেম্বর, ২০২১ ০১:৩২ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



কেরানীগঞ্জে ব্যবসায়ী সেলিম হত্যা মামলার প্রধান আসামি গ্রেপ্তার

ব্যবসায়ী সেলিম হত্যার প্রধান আসামি রানা রায়হান

দক্ষিণ কেরানীগঞ্জে প্রকাশ্যে পাশবিক নির্যাতন চালিয়ে গুরুতর আহত করেছিল ব্যবসায়ী সেলিমকে। দীর্ঘ ২ মাস ১০ দিন মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে গত ১৩ আগস্ট রাত ৩টার দিকে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান সেলিম।

নিহতের পরিবার সূত্রে জানা যায়, সেলিমের বাড়ি দক্ষিণ কেরানীগঞ্জের নতুন বাক্তারচর এলাকায়। বাড়ির পাশেই রয়েছে মোল্লারহাট বাজার, সেই বাজারে সেলিমের জ্বালানি ডিজেল তেলের দোকান রয়েছে।

রানা রায়হান নামে এক কাস্টমারের কাছে সেলিম ডিজেল বিক্রির ১১ হাজার টাকা পাওনা ছিলেন। সেই টাকা না দিয়ে রানা আরো তেল বাকিতে নিতে চাইলে দোকানে থাকা সেলিমের ছোট ভাই শরীফ ও বোনজামাই নূর মোহাম্মদ বাকিতে তেল বিক্রিতে অস্বীকৃতি জানান। এতে ক্ষুব্ধ হন রানা রায়হান। সেই জের ধরে গত ৩ জুন দুপুরে রানা রায়হানের নেতৃত্বে আব্বাস আলী, হাতিম মিয়া, রবিউল্লাহ, জাহের আলী, শাহীন, সজিবসহ ১০/১৫ জন লাঠিসোটা নিয়ে শরীফ ও নূর মোহাম্মদের ওপর হামলা চালায়। এ সময় বাড়িতে ছিলেন সেলিম।

খবর পেয়ে তিনি ঘটনাস্থলে গেলে সন্ত্রাসীরা তার ওপরও হামলা চালায় এলোপাতাড়ি পিটিয়ে তার মাথার খুলি ভেঙে দেয়। গুরুতর অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে কয়েক দফা মাথায় অস্ত্রোপচার চালায় এবং  চিকিৎসাধীন অবস্থায়ই সেখানে মারা যান সেলিম। সেলিমের ছোট ভাই ঢাকা মেডিক্যালে এক মাস চিকিৎসা নিয়ে সুস্থ হয়ে বাসায় আসেন।

সেলিমের স্ত্রী আকলিমা বেগম জানান, ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল থেকে মাথার অপারেশনের পর খুলির কিছু অংশ ডাক্তাররা তাদের দেন ফ্রিজে রাখার জন্য। ডাক্তাররা জানিয়েছিলেন, অপারেশন সফল হলে ফ্রিজে রাখা খুলির অংশ মাথায় প্রতিস্থাপন করা হবে। কিন্তু সেটি আর হলো না।

এ বিষয়ে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই নাজমুল আলম বলেন, ব্যবসায়ী সেলিম হত্যা মামলার পলাতক প্রধান আসামিকে গ্রেপ্তার করতে সক্ষম হয়েছি। এ হত্যা মামলাটি আলোচিত হওয়ায় সার্কেল এএসপি শাহাবুদ্দিন কবিরের কঠোর নির্দেশে প্রধান আসামি রানা রায়হানকে গ্রেপ্তার করে  আদালতে পাঠানো হয়েছে।

এ বিষয়ে কেরানীগঞ্জ (সার্কেল) অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শাহাবুদ্দিন কবির বলেন, এই মামলার প্রধান আসামি রানা রায়হান মোস্ট ওয়ানটেড। তাকে গ্রেপ্তার করতে আমরা দেশের বিভিন্ন এলাকায় অভিযান পরিচালনা করি। সে দেশের বিভিন্ন অঞ্চল কখনো যশোর, কখনো ব্রহ্মণবাড়িয়া পালিয়েছিলেন। প্রযুক্তির সহায়তায় অভিযান চালিয়ে শুক্রবার দিবাগত রাতে ঢাকা থেকে গ্রেপ্তার করতে সক্ষম হয়েছি।

এ হত্যার ঘটনায় দুটি মামলা হয়েছিল একটি সেলিমের ভাই শরিফ বাদী হয়ে ৭ জনকে আসামি করে দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ থানায় মামলা করেন এবং সেলিমের স্ত্রী আকলিমা বেগম কোর্টে ১৩ জনকে আসামি করে একটি হত্যা মামলা করেন। উভয় মামলায় ১নং (প্রধান আসামি) রানা রায়হান। এ মামলার ৩নং আসামি হাতেম পলাতক অবস্থায় মারা যায়। অন্য আসামিদেরও দ্রুত গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।



সাতদিনের সেরা