kalerkantho

সোমবার । ৯ কার্তিক ১৪২৮। ২৫ অক্টোবর ২০২১। ১৭ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

চকরিয়া পৌরসভা নির্বাচন কাল, শেষ হলো প্রচারণা

শতভাগ সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ নির্বাচন অনুষ্ঠানে প্রশাসনের প্রস্তুতি

চকরিয়া (কক্সবাজার) প্রতিনিধি    

১৯ সেপ্টেম্বর, ২০২১ ১২:৫০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



চকরিয়া পৌরসভা নির্বাচন কাল, শেষ হলো প্রচারণা

ইভিএম পদ্ধতিতে কীভাবে ভোটপ্রদান করতে হয় তা প্রতিটি ভোটকেন্দ্রে ভোটারদের শেখানো হচ্ছে

সবকিছু ঠিকঠাক থাকলে আগামীকাল সোমবার অনুষ্ঠিত হবে কক্সবাজারের চকরিয়া পৌরসভার বহুল প্রতিক্ষীত নির্বাচন। প্রথমবারের মতো ইভিএম পদ্ধতিতে অনুষ্ঠিত হবে এই নির্বাচন। নির্বাচন কমিশনের ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী গতকাল শনিবার রাতে শেষ হয়েছে প্রার্থীদের প্রচার-প্রচারণা। শনিবার পৌরসভার ১৮টি কেন্দ্রে মক ভোটিং কার্যক্রমও পরিচালনা করা হয় প্রশাসনের পক্ষ থেকে। 

নির্বাচনকে কেন্দ্র করে সাধারণ ভোটারদের মাঝে নানা ধরনের শঙ্কা কাজ করলেও অনেকটাই শান্তিপূর্ণ পরিবেশে প্রচার-প্রচারণার কার্যক্রম শেষ করতে পেরেছেন প্রার্থীরা। তবে আচরণবিধি লঙ্ঘন হয়েছে প্রতিটি ক্ষেত্রে। সব প্রার্থীই আচরণবিধির তোয়াক্কা না করেই সমানতালে প্রচারণা চালিয়েছেন।

প্রশাসনের পক্ষ থেকে কঠোর নজরদারীর পাশাপাশি আগামীকাল সোমবার শতভাগ সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ পরিবেশে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠান সম্পন্ন করতে নেওয়া হয়েছে ব্যাপক প্রস্তুতি। 

প্রশাসনের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, ভোটকেন্দ্র ও আশপাশের এলাকায় তিন স্তরের নিরাপত্তা বলয় গড়ে তোলা হবে। এতে সাধারণ ভোটাররা একেবারে নির্বিঘ্নে ও শান্তিপূর্ণ পরিবেশে ভোট প্রদান করতে পারবেন। কারো মাঝে কোনো ধরনের শঙ্কা যাতে কাজ না করে সেজন্য ব্যাপক প্রস্তুতি গ্রহণ করা হয়েছে। 

রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয় সূত্র জানায়, সোমবার ভোট গ্রহণের দিন একজন বিচারিক ম্যাজিস্ট্রেট, ১০ নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট, চার প্লাটুন বিজিবি, র‌্যাবের ৬টি স্ট্রাইকিং ফোর্স, পুলিশের ৬টি মোবাইল ফোর্স ও দুটি স্ট্রাইকিং ফোর্স, অতিরিক্ত স্ট্রাইকিং ফোর্স পুরো পৌরসভায় টহল ব্যবস্থা জোরদার করবে। একইসাথে প্রতিটি ভোটকেন্দ্রে ৩ জন পুলিশ, ৯ জন আনসার সদস্য (৩ জন নারী আনসারসহ) নিরবচ্ছিন্নভাবে দায়িত্ব পালন করবেন। তবে অতিঝুঁকিপূর্ণ কেন্দ্রে নিরবচ্ছিন্নভাবে বাড়তি ফোর্স দেওয়া হবে। 

এ ব্যাপারে রিটার্নিং কর্মকর্তা ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) সৈয়দ শামসুল তাবরীজ কালের কণ্ঠকে বলেন, শতভাগ সুষ্ঠু, গ্রহণযোগ্য ও শান্তিপূর্ণ পরিবেশে নির্বাচন অনুষ্ঠানের জন্য সকল ধরনের প্রস্তুতি সম্পন্ন করা হয়েছে। নির্বাচনের শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত যাতে কোনো ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনা না ঘটে সেজন্য কঠোর থেকে কঠোরতম পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে। 

অতিমারি করোনার কারণে দুই দফা স্থগিত হয়ে যায় চকরিয়া পৌরসভার নির্বাচন। সর্বশেষ নির্বাচন কমিশন ঘোষণা দেয় ২০ সেপ্টেম্বর নির্বাচন অনুষ্ঠানের। নির্বাচনে মেয়র পদে চার জন প্রার্থী যথাক্রমে সরকার দলের নৌকা প্রতীকের বর্তমান মেয়র আলমগীর চৌধুরী, নাগরিক কমিটির (স্বতন্ত্র) নারিকেল গাছ প্রতীকের জিয়াবুল হক, জাতীয় পার্টির লাঙ্গল প্রতীকের মনোয়ার আলম ও স্বতন্ত্র প্রার্থী কম্পিউটার প্রতীকের অ্যাডভোকেট ফয়সাল উদ্দিন সিদ্দিকী প্রতিদ্বন্ধীতা করছেন। তন্মধ্যে নৌকার প্রার্থীকে সমর্থন দিয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে ফয়সাল সিদ্দিকী নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়িয়েছেন গতকাল। নির্বাচনে মেয়র পদে নৌকা ও নারিকেল গাছ প্রতীকের মধ্যে তুমুল প্রতিদ্বন্দ্বিতা হবে বলে আভাস মিলেছে। 

অপরদিকে, সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর পদে তিনটি ওয়ার্ডে ১৪ জন এবং ৯টি ওয়ার্ডে সাধারণ কাউন্সিলর পদে ৪৯ জনসহ তিন পদে সর্বমোট ৬৭ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। 

উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা ও সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তা মো. শহিদুল ইসলাম জানান, ৯টি ওয়ার্ডের ১৮টি কেন্দ্রের ১৩৯টি বুথে ইভিএম পদ্ধতিতে সকাল ৮টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত নিরবচ্ছিন্নভাবে ভোটগ্রহণ চলবে। ৪৮৭২৪ জন নারী-পুরুষ ভোটার তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগের মাধ্যমে নতুন পৌর পরিষদ নির্বাচন করবেন।



সাতদিনের সেরা