kalerkantho

বুধবার । ৪ কার্তিক ১৪২৮। ২০ অক্টোবর ২০২১। ১২ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা আওয়ামী লীগ

শঙ্কার সভা শেষ হলো স্বস্তিতে!

বিশ্বজিৎ পাল বাবু, ব্রাহ্মণবাড়িয়া   

১৯ সেপ্টেম্বর, ২০২১ ০১:৪৩ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



শঙ্কার সভা শেষ হলো স্বস্তিতে!

ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী কমিটির সভা শনিবার (১৮ সেপ্টেম্বর) পৌর এলাকার সুর সম্রাট ওস্তাদ দি আলাউদ্দিন সঙ্গীতাঙ্গনে অনুষ্ঠিত হয়। সভা শুরু হওয়ার আগ থেকেই বিপুলসংখ্যক পুলিশ মোতায়েন, ছাত্রলীগ নেতা-কর্মীদের ব্যাপক উপস্থিতির কারণে তৈরি হওয়া শঙ্কা, সম্মেলনের তারিখ ঘোষণা, প্রচার সম্পাদককে শোকজের বিষয় নিয়ে আলোচনা নির্ধারিত থাকা সভাটি শেষ পর্যন্ত স্বস্তির মধ্য দিয়ে শেষ হয়েছে।

সভায় আগামী ২৭ নভেম্বর ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলনের সম্ভাব্য তারিখ নির্ধারণ করা হয়েছে। এর আগে ১০ অক্টোবর থেকে ১৫ নভেম্বরের মধ্যে জেলার কসবা, আখাউড়া, নবীনগর, নাসিরনগর, সরাইল ও আশুগঞ্জ উপজেলা শাখার সম্মেলন করার সিদ্ধান্ত হয়। এছাড়া আগামী ৬ অক্টোবর তৃণমূল প্রতিনিধি সভা, ৭ অক্টোবর জেলা আওয়ামী লীগের সভার করারও সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা র. আ. ম উবায়দুল মোকতাদির চৌধুরী এমপি’র সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক যুদ্ধাহত বীর মুক্তিযোদ্ধা আল-মামুন সরকারের সঞ্চালনায় এতে বক্তব্য রাখেন জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি তাজ মো. ইয়াছিন, মো. হেলাল উদ্দিন মো. মুজিবুর রহমান বাবুল, যুগ্ম-সম্পাদক মাহবুবুল বারী চৌধুরী মন্টু, মঈন উদ্দিন মঈন, সাংগঠনিক সম্পাদক অ্যাডভোকেট মাহবুবুল আলম খোকন, আবদুল হান্নান রতন, দপ্তর সম্পাদক তানজিন আহমেদ, সাংস্কৃতিক সম্পাদক নবীনগর পৌর মেয়র শিবশংকর দাস, শিক্ষা সম্পাদক ব্যারিস্টার জাকির আহমেদ, শ্রম সম্পাদক শেখ মো. মহসিন, কার্যকরী সদস্য আখাউড়ার পৌরসভার মেয়র মো. তাকজিল খলিফা কাজল, কাজী মোর্শেদ কামাল, জহিরুল ইসলাম ভূঞা, সাদেকুর রহমান শরীফ প্রমুখ।

বক্তরা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক অবস্থাসহ বিভিন্ন বিষয় সভায় তুলে ধরেন। স্থানীয় সংসদ সদস্যের সঙ্গে সমন্বয় করে উপজেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলন করার জন্য সাংগঠনিক দলও গঠন করে দেওয়া হয় সভায়।

সভায় অভিযোগ করা হয়, সাবেক পৌর কাউন্সিলর ও ওলামা সমন্বয় পরিষদ নেতা মুফতি মকবুল আহমেদকে ষড়যন্ত্রমূলকভাবে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। এছাড়া সদর উপজেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি হাফসা বেগমের ছেলে ছাত্রলীগ কর্মী শেখ সাদি’র মুক্তিও দাবি করা হয় সভায়।

এদিকে সভাকে কেন্দ্র করে আলাউদ্দিন সঙ্গীতাঙ্গনের আশেপাশে সকাল থেকে প্রায় ১০০ জন পুলিশ অবস্থান নেয়। ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীরাও সকাল থেকে সেখানে অংশ নিয়ে মাঝে মাঝে স্লোগান দেন। অবশ্য সঙ্গীতাঙ্গনের ভেতরে আওয়ামী লীগের সদস্য ছাড়া কাউকে প্রবেশ করতে দেওয়া হয়নি।



সাতদিনের সেরা