kalerkantho

বুধবার । ৪ কার্তিক ১৪২৮। ২০ অক্টোবর ২০২১। ১২ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

টেকনাফে হুমকির মুখে এলাকা ছাড়া নৌকার প্রার্থী

বিশেষ প্রতিনিধি, কক্সবাজার   

১৯ সেপ্টেম্বর, ২০২১ ০০:৫৮ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



টেকনাফে হুমকির মুখে এলাকা ছাড়া নৌকার প্রার্থী

কক্সবাজারের টেকনাফ সীমান্তে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনী উত্তাপ এখন সহিংসতায় রূপ নিয়েছে। সীমান্ত এলাকার ৪টি ইউনিয়নের নির্বাচন নিয়ে এখন চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে। খোদ নৌকা প্রতীকধারী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী প্রতিপক্ষ প্রার্থীর দেওয়া প্রাণনাশের হুমকির মুখে নির্বাচনী মাঠ ছেড়ে দিয়ে টেকনাফ থেকে কক্সবাজার জেলা শহরে এসে আশ্রয় নিয়েছেন।

টেকনাফ সদর ইউনিয়নের আওয়ামী লীগ দলীয় মনোনীত নৌকা প্রতীকধারী চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী আবু সৈয়দ শনিবার কক্সবাজারের জেলা প্রশাসকের নিকট এসে তার নিরাপত্তাহীনতার কথা জানান। জেলা প্রশাসককে চেয়ারম্যান প্রার্থী আবু সৈয়দ জানান, তার প্রতিপক্ষ আরো দুজন চেয়ারম্যান প্রার্থী রয়েছেন। 

তাদের একজন টেকনাফ উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান এবং টেকনাফ উপজেলা আওয়ামী লীগের বহিষ্কৃত সহ সভাপতি জাফর আলমের ছেলে শ্রমিক লীগ নেতা মোহাম্মদ শাহজাহান। পিতা-পুত্র দুজনই স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের তালিকাভুক্ত ইয়াবা কারবারি।

অপর একজন চেয়ারম্যান প্রার্থী হচ্ছেন- কক্সবাজার জেলা বিএনপি’র অর্থ সম্পাদক মোহাম্মদ আবদুল্লাহর ছোট ভাই এবং বিএনপি কর্মী জিয়াউর রহমান। চেয়ারম্যান প্রার্থী জিয়াউর রহমান ইয়াবা কারবারি হিসাবে ২০১৯ সালের ১৬ ফেব্রুয়ারি টেকনাফে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর কাছে আত্মসমর্পণ করা ১০২ জন কারবারির অন্যতম একজন। দুই বছর কারাভোগ করার পর জামিনে এসে চেয়ারম্যান পদে নির্বাচন করছেন।

নৌকা প্রতীকের চেয়ারম্যান প্রার্থী জেলা প্রশাসককে অভিযোগ করে জানান, শুক্রবার সন্ধ্যায় প্রতিদ্বন্দ্বী চেয়ারম্যান প্রার্থী ও বিএনপি কর্মী জিয়াউর রহমান শতাধিক সশস্ত্র সন্ত্রাসী নিয়ে প্রার্থী আবু সৈয়দের ঘরে চড়াও হয় এবং বিভিন্ন স্থানে প্রচারকাজে নিয়োজিত কর্মীদের ওপর হামলা চালায়। সন্ত্রাসীরা আবু সৈয়দকে নির্বাচন থেকে সরে যেতে হুমকি প্রদর্শন করে। এমনকি সন্ত্রাসীরা প্রার্থী আবু সৈয়দের প্রাণনাশের হুমকিও দেয়।

এরকম হুমকির মুখে তিনি টেকনাফের নির্বাচনী মাঠ ছেড়ে কক্সবাজারে এসে জেলা আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দসহ জেলা প্রশাসকের কাছে গিয়ে শনিবার নালিশ জানান। জেলা প্রশাসক তাকে সন্ত্রাসমুক্ত পরিবেশে নির্বাচন অনুষ্ঠানের আশ্বাস দেন। অপরদিকে জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মুজিবুর রহমানের পরামর্শে তিনি (আবু সৈয়দ) শনিবার সন্ধ্যায় টেকনাফ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার কাছে এ বিষয়ে একটি লিখিত অভিযোগ করেন।

এদিকে এসব অভিযোগের প্রেক্ষিতে জেলা বিএনপি’র অর্থ সম্পাদক মোহাম্মদ আবদুল্লাহ বলেছেন, বাস্তবে এ জাতীয় কোনো ঘটনাই ঘটেনি। নির্বাচনে পরাজয় টের পেয়ে নৌকা প্রতীকের চেয়ারম্যান প্রার্থী ডাহা মিথ্যা অভিযোগ নিয়ে অপপ্রচার চালিয়ে যাচ্ছেন। 

হ্নীলা ইউপি নির্বাচনে হুমকি-ধমকির অভিযোগে সংবাদ সম্মেলন
কক্সবাজারের টেকনাফে অনুষ্ঠিতব্য ইউপি নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী আনারস প্রতীকের বিজয় নিশ্চিত জেনে নৌকা প্রতীকের কর্মী-সমর্থক কর্তৃক হুমকি-ধমকি প্রদান এবং ঝুঁকিপূর্ণ কেন্দ্রসমূহে পর্যাপ্ত পরিমাণ আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য মোতায়েন করে অবাধ, নিরপেক্ষ ও শান্তিপূর্ণ নির্বাচন করার দাবিতে সংবাদ সম্মেলন করা হয়েছে। 

শনিবার আনারস প্রতীকের চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী আলী হোছাইন শোভনের বাস ভবনে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন তিনি। এতে তিনি বলেন, নির্বাচনী প্রচার-প্রচারণা এবং গণসংযোগকালে আনারস প্রতীকের প্রতি সাধারণ ভোটারদের স্বতঃস্ফূর্ত সমর্থন ও আগ্রহ দেখে নৌকা প্রতীকের চেয়ারম্যান প্রার্থী এবং কর্মী-সমর্থকেরা আমার আনারস প্রতীকের বিজয় নিশ্চিত জেনে বিভিন্ন প্রকারের হুমকি-ধমকি দেওয়া অব্যাহত রেখেছে। এতে সুষ্ঠু-নিরপেক্ষ ও শান্তিপূর্ণ নির্বাচন ব্যাহত হতে পারে।

মেম্বার প্রার্থীর ভাইয়ের ওপর প্রতিপক্ষ প্রার্থীর সমর্থকদের হামলা
টেকনাফের হ্নীলায় ৪নং ওয়ার্ডের মেম্বার প্রার্থী হোছাইন আহমদ মেম্বারের ছোট ভাইয়ের ওপর হামলার অভিযোগ উঠেছে। হামলায় হোছাইন মেম্বারের ভাই মৌলভী আলী আহমদ আহত হয়েছেন। এ ঘটনায় পানখালী এলাকায় থমথমে পরিস্থিতি বিরাজ করছে। পুলিশ এবং র‌্যাবের বিশেষ টহল দল ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।



সাতদিনের সেরা