kalerkantho

শুক্রবার । ২ আশ্বিন ১৪২৮। ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১। ৯ সফর ১৪৪৩

'ইউএনওর গায়ে আঘাত প্রধানমন্ত্রীকে অপমানের শামিল'

নিজস্ব প্রতি‌বেদক, ব‌রিশাল   

৩০ আগস্ট, ২০২১ ০১:৫৭ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



'ইউএনওর গায়ে আঘাত প্রধানমন্ত্রীকে অপমানের শামিল'

বরিশালে ইউএনওর বাসভবন চত্বরে অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনার ১০ দিন পর প্রকাশ্যে মুখ খুললেন জেলা প্রশাসক জসীম উদ্দীন হায়দার। তিনি বলেন, জেলায় প্রধানমন্ত্রীর প্রতিনিধিত্ব করছেন জেলা প্রশাসক এবং উপজেলায় ইউএনও। ইউএনওর গায়ে কেউ আঘাত করলে তা প্রধানমন্ত্রীকে অপমানের শামিল। যারা রাষ্ট্রের জন্য কাজ করে তারা প্রধানমন্ত্রীর প্রতিনিধিত্ব করেন, তাদের সম্মান দেখাতে হবে।

মুজিব শতবর্ষ উপলক্ষে পানি সম্পদ প্রতিমন্ত্রী জাহিদ ফারুক শামীমের ব্যক্তিগত তহবিল থেকে আশ্রয়ণ প্রকল্পের উপকারভোগীদের মাঝে সেলাই মেশিন বিতরণ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। রবিবার (২৯ আগস্ট) বরিশালের সদর উপজেলার চরমোনাই ইউনিয়নের গিলাতলী আশ্রয়ণ প্রকল্প ওই এলাকায় আয়োজিত অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন। প্রধান অতিথি হিসেবে পানি সম্পদ প্রতিমন্ত্রী জাহিদ ফারুক শামীম তার বক্তৃতায় ইউএনওর বাসভবন চত্বরে অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনার কথা বলেননি।

এর আগে, গত ১৯ আগস্ট শেষবার জেলা প্রশাসক জসীম উদ্দীন হায়দার গণমাধ্যমের মুখোমুখি হয়েছিলেন। সেদিন প্রশ্নের জবাবে তৎকালীন প্রেক্ষাপটে বিজিবি চাওয়ার কথা জানিয়েছিলেন তিনি। এর পরদিন থেকে গণমাধ্যম কর্মীরা বহু চেষ্টা করেও তাকে পাননি। মুঠোফোনে তাকে সংযোগের চেষ্টা করেও পাওয়া যায়নি। ওই ঘটনার ১০ দিন পর রবিবার তিনি সদর উপজেলার গিলাতলীতে সেলাই মেশিন বিতরণ অনুষ্ঠানে উপস্থিত হন।

অনুষ্ঠানে সভাপতির বক্তৃতার এক পর্যায়ে জেলা প্রশাসক বলেন, যেহেতু তিনি জেলার প্রতিনিধিত্ব করেন তাই সিটি করপোরেশনের অনেক বরাদ্দ তার হাত দিয়েই গেছে। অতি সম্প্রতি জেলা প্রশাসকের হাত দিয়েই ২০০ মেট্রিক টন চাল এবং ১ কোটি টাকা বরাদ্দ দেওয়া হয়েছিল বলে বক্তৃতায় উল্লেখ করেছেন তিনি।

প্রায় তিন মিনিট বক্তৃতাকালে ১৮ আগস্টের বিষয়টি জেলা প্রশাসক সরাসরি উল্লেখ করেননি। তবে ক্ষোভের সঙ্গে বলেছেন, আন্তরিকতাকে যেন কেউ দুর্বলতা না ভাবে, অন্যায়কে প্রশ্রয় দেওয়া হবে না।

ইউএনওর বদলি প্রসঙ্গে বলেন, অনেকে বলেন ইউএনওকে বদলি করা হয়েছে। তাকে বদলি করা হয়েছে ১০ আগস্ট, ঘটনার ৮ দিন আগে। বদলির পরও ইউএনও যতদিন ইচ্ছা বর্তমান কর্মস্থলে কাজ করবে বলে জানিয়েছেন। জেলা প্রশাসক আরো বলেন, ইউএনওকে তার কাজ করতে দিতে হবে।

তিনি আরো বলেন, আন্তরিকতা, ভালোবাসাকে কেউ দুর্বলতা মনে করবেন না। কর্মকর্তারা রাষ্ট্রের প্রতিনিধিত্ব করেন। কারো সঙ্গে শত্রুতা নেই। তবে কারো কোনো অন্যায় কাজের প্রশ্রয় দেওয়া হবে না। অনুষ্ঠানে সদর উপজেলা ইউএনও মুনিবুর রহমান উপস্থিত ছিলেন। তবে তিনি গত ১৮ আগস্টের বরিশালের ঘটনা নিয়ে কোনো কথা বলেননি।



সাতদিনের সেরা