kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ৮ আশ্বিন ১৪২৮। ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১। ১৫ সফর ১৪৪৩

মান্দায় গভীর রাতে তিন নারীকে বেঁধে বসতঘর ভাঙচুর

মান্দা (নওগাঁ) প্রতিনিধি    

২৯ আগস্ট, ২০২১ ১৫:৪৯ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



মান্দায় গভীর রাতে তিন নারীকে বেঁধে বসতঘর ভাঙচুর

নওগাঁর মান্দায় গভীর রাতে তিন নারীকে গাছের সঙ্গে বেঁধে রেখে একটি বসতবাড়িতে তাণ্ডব চালিয়েছে দুর্বৃত্তরা। অভিযোগ উঠেছে, আব্দুস সাত্তার নামে এক ব্যক্তির ভাড়াটে বাহিনী এ তাণ্ডব চালায়। গতকাল শনিবার দিবাগত রাতে উপজেলার মৈনম ইউনিয়নের দক্ষিণ মৈনম মোল্লাপাড়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

হামলার শিকার তিন নারী হলেন মৈনম মোল্লাপাড়া গ্রামের জাহানার বেগম (৫৫), মাজেদা বিবি (৫০) ও রেজিয়া বিবি ওরফে ময়না (৪৫)। তাদের উদ্ধার করে নওগাঁ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। 

স্থানীয়দের অভিযোগ, অসহায় ময়না বিবির সম্পত্তি জবরদখল করে নিতে গ্রামের আব্দুস সাত্তার মোল্লা রাতের অন্ধকারে ভাড়াটে বাহিনী দিয়ে সদ্যনির্মিত বসতঘর গুঁড়িয়ে দিয়েছে। এ সময় সেখানে থাকা তিন নারীকে মারপিট করে গাছের সঙ্গে বেঁধে রাখা হয়। তাণ্ডব চালানোর সময় আশপাশের বাড়িঘরের দরজায় বাইরে থেকে শিকল তুলে দেওয়া হয়েছিল। হইচই শুনে গ্রামের লোকজন এসে বাড়ির শিকল খুলে বন্দিদশা থেকে প্রতিবেশীদের উদ্ধার করে। পরে আহতদের হাসপাতালে নেওয়া হয়।

ভুক্তভোগী পরিবারের সদস্য ওশনারা বেগম জানান, সন্ত্রাসী বাহিনীর তাণ্ডবের সময় ৯৯৯ নম্বরে কল দেওয়ার পর পুলিশ ঘটনাস্থলে আসে। ততক্ষণে অপরাধ কর্মকাণ্ড ঘটিয়ে সটকে পড়ে আব্দুস সাত্তারের ভাড়াটে বাহিনী।

মোল্লাপাড়া গ্রামের সামসুদ্দীন মোল্লা ভুট্টো জানান, আহত রেজিয়া বিবি ওরফে ময়না স্বামী পরিত্যক্তা হওয়ার পর ঢাকার একটি গার্মেন্টে চাকরি করেন। বাড়িঘর নির্মাণ করে বসবাস করার মতো তার কোনো জমিজমা নেই। এ অবস্থায় মা আমেনা বেগমের কবলাকৃত সাড়ে ১৬ শতক জমি তাকে দান করেন। এ জমি দখল নেওয়ার জন্য দীর্ঘদিন ধরে পাঁয়তারা চালিয়ে আসছে দক্ষিণ মৈনম মোল্লাপাড়া গ্রামের সৎভাই আব্দুস সাত্তার মোল্লা।

এ প্রসঙ্গে অভিযুক্ত আব্দুস সাত্তার মোল্লা বসতবাড়িতে ভাঙচুর ও মারপিটের অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, আমাকে ফাঁসাতে প্রতিপক্ষ পরিকল্পিতভাবে এ ঘটনা ঘটিয়েছে।

মান্দা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শাহিনুর রহমান ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, এরই মধ্যে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করা হয়েছে। অভিযোগ পেলে তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।



সাতদিনের সেরা