kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ৮ আশ্বিন ১৪২৮। ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১। ১৫ সফর ১৪৪৩

মাদারীপুরে আশ্রয়ণ প্রকল্পের ঘরে ঘরে আনন্দ

'নামাজ পড়ে রোজ প্রধানমন্ত্রীর জন্য দোয়া করি'

মাদারীপুর প্রতিনিধি   

২৮ আগস্ট, ২০২১ ১৭:৪৯ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



'নামাজ পড়ে রোজ প্রধানমন্ত্রীর জন্য দোয়া করি'

'প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে দোয়া ছাড়া আর কি দিতে পারি? তাকে দেওয়ার মতো আমাগো তো আর কিছুই নাই। তিনি যে মমতাময়ী মা। আইজ তার জন্যিই তো আমরা মাথা গোঁজার ঠাঁই পাইলাম। সুন্দর ঘর পাইছি; জমি পাইছি। অহন কইতে পারি আমরা ভূমিহীন না। যা কোনো দিন স্বপ্নেও দেহি নাই। এর থাইক্যা আনন্দের আর কি আছে? এতোদিন আমরা মাইনষের বাড়িতে, অন্যের জমিতে খুপড়ি বানাইয়্যা থাকতাম। আইজ এহানে তো কাল অন্যহানে থাকতাম। কতোজনে কতো কথা কইছে। জাগা খালি কইরা দেও, তোমরা সমাজের জঞ্জাল; তোমাগো জন্যি আমাগো যতো জ্বালা। অহন আর কেউ এ সব কথা কইবো না। অহন মাথা উইচা কইরা কইতে পারুম, আমরা সমাজের জঞ্জাল না, আমরাও মানুষ। নামাজ পইড়্যা আল্লাহর কাছে প্রধানমন্ত্রীর জন্যি দোয়া করি, তিনি যেনো আরো অনেক দিন বাঁইচ্যা থাহেন, আমাগোর মতোন আরো অনেক অসহায় মাইষেরে যেনো ঘরবাড়ি-জমি দিতে পারেন।'

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতি এমন কৃতজ্ঞতা ও অনুভূতি প্রকাশ করলেন মাদারীপুর সদর উপজেলার পেয়ারপুর ইউনিয়নে নির্মিত আশ্রয়ণ প্রকল্পে জমিসহ ঘর পাওয়া বৃদ্ধা আছিয়া বেগম, গৃহবধূ নাজমা বেগম, বৃদ্ধ আবদুল ওয়াহেদ তালুকদার, হাফসা বেগম। তাদের মতো একই অনূভূতি জানালেন প্রধানমন্ত্রীর উপহার পাওয়া সুবিধাভোগীরাও।

আজ শনিবার সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত পেয়ারপুর আশ্রয়ণ প্রকল্প এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, সবুজে ঘেরা প্রাকৃতিক পরিবেশে গড়ে তোলা হয়েছে দীর্ঘ লাইনে সারি সারি ঘর। সুন্দর এবং মজবুত এ সব ঘরের পেছনে-সামনে নানা জাতের সবুজ বনানীর শীতল ছায়া। প্রতিটি ঘরের সামনে যার যার সীমানার খোলা জায়গা। কেউ বাগান করেছে, কেউ করেছে সবজি চাষ, কেউ হাস মুরগির খামার, কেউ আবার নিজের ঘরটির সামনে রঙিন তোরণ নির্মাণ করে আরো দৃষ্টিনন্দন করে তুলেছে। সীমানার সামনে রাস্তা এবং রাস্তার পাশে সারি সারি গাছ। রয়েছে সার্বক্ষণিক ফ্রি বিদ্যুৎ সুবিধা। প্রকল্পের সামনে দিয়ে বয়ে গেছে লোয়ার কুমার নদ। বিশুদ্ধ পানীয় জলের চাহিদা মেটাতে প্রতি ১০ পরিবারের জন্য স্থাপন করা হয়েছে একটি করে ডিপটিউবয়েল।

সুবিধাভোগী আবদুল ওয়াহেদ তালুকদার বলেন, 'আমাদের এখানকার ঘরগুলো বেশ টেকসই। অন্যান্য জেলার যে সব কথা শুনেছি তাতে আমরা চিন্তায় ছিলাম। সে তুলনায় আমাদের সব ঘর সুন্দর এবং ভালোমানের।'

গৃহবধূ নাজমা বেগম বলেন, 'আমি নামাজ পড়ে প্রধানমন্ত্রীর জন্য দোয়া করি। তার দানে আল্লাহর রহমতে আজ আমরা সুখে আছি। আল্লাহ যেন ওনাকে দীর্ঘজীবী করেন। আমি ও আমার স্বামী নাসির ফকির (ভ্যানচালক) আমাদের ঘরখানা সুন্দর করে সাজিয়েছি। ঘরের সামনে গেট বানিয়ে রং করেছি; যাতে আরো সুন্দর দেখা যায়। আমার এক ছেলে এক মেয়ে। মেয়েটা বিয়ে দিয়েছি। ছেলে এবছর এসএসসি পরীক্ষা দিবে তাই দোয়া করবেন। ছেলেটা ঘরের সামনে সাজিয়েছে।'

মাদারীপুর সদর উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মো. মশিউর রহমান বলেন, 'প্রধানমন্ত্রীর উপহার হিসেবে আমরা দুই দফায় ১৭৫টি ঘর বরাদ্দ পেয়েছি। এর মধ্যে ১০০ ঘর নির্মাণ কাজ সম্পন্ন করে প্রতি পরিবার ২ শতাংশ জমিসহ ঘরগুলো সুবিধাভোগীদের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। বাকি ৭৫টি ঘরের নির্মাণপ্রক্রিয়া চলমান। কাজ শেষ হলেই হস্তান্তর করা হবে।'

গৃহহীনদের জন্য প্রধানমন্ত্রীর উপহার সুন্দর ও মানসম্পন্ন হওয়ার কারণ জানতে চাইলে মাদারীপুর সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. সাইফুদ্দিন গিয়াস বলেন, আমরা নিজেদের তত্ত্বাবধানে ঘরগুলো নির্মাণ করেছি। আপ্রাণ চেষ্টা করা হয়েছে প্রধানমন্ত্রীর দেওয়া উপহার (বাসস্থান) শতভাগ ত্রুটিমুক্ত করার। আমাদের আরো পরিকল্পনা আছে আশ্রয়ণ প্রকল্পে সুবিধাভোগী পরিবারগুলোর সন্তানেরা যাতে লেখাপড়া শিখতে পারে সে জন্য প্রাক-প্রাথমিক বিদ্যালয় নির্মাণ করা। এ জন্য স্থান নির্ধারণ করে মাটি দিয়ে জায়গা ভরাট করা হচ্ছে। পাশাপাশি নদীসংলগ্ন বড় আশ্রয়ণ প্রকল্পের সামনে লোয়ার কুমার নদে কয়েকটি ঘাটলা তৈরি করার পরিকল্পনাও রয়েছে। যাতে পানির জন্য অসহায় মানুষগুলো কষ্ট না পায়।

জেলা প্রশাসক ড. রহিমা খাতুন সাংবাদিকদের বলেন, 'বরাদ্দ অনুযায়ী আমাদের জেলার ঘরগুলো উন্নতমানের। জেলা ও উপজেলা প্রশাসনের তত্ত্বাবধানে ঘরগুলো নির্মাণ করায় এর গুণগতমান ভালো হয়েছে। দেশের কয়েকটি জেলার আশ্রয়ণ প্রকল্পে ঘর নির্মাণে নানা প্রশ্ন উঠেছে। এরপরে সরকার কিছুটা বরাদ্দ বাড়িয়ে দিয়েছে। এতে আশা করি দ্বিতীয় এবং তৃতীয় পর্যায়ের ঘরগুলো আরো উন্নতমানের হবে।'



সাতদিনের সেরা