kalerkantho

সোমবার । ২ কার্তিক ১৪২৮। ১৮ অক্টোবর ২০২১। ১০ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

সরু রাস্তা-জলাবদ্ধতায় সোনারগাঁয়ে দিনভর যানজট, ভোগান্তির চূড়ান্ত

সোনারগাঁ (নারায়ণগঞ্জ) প্রতিনিধি   

২৫ আগস্ট, ২০২১ ২০:০৯ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



সরু রাস্তা-জলাবদ্ধতায় সোনারগাঁয়ে দিনভর যানজট, ভোগান্তির চূড়ান্ত

নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁ উপজেলার ব্যস্ততম প্রধান সড়কে কম্পানির পণ্যবাহী ট্রাক, যত্রতত্র ব্যাটারিচালিত অটোরিকশা স্ট্যান্ড, ট্রাফিক আইন না মেনে আগে যাব মনোভাবের কারণে দীর্ঘ যানজট সৃষ্টি হচ্ছে। কম্পানির পণ্যবাহী ট্রাক ও অনিয়ন্ত্রিত এবং বিশৃঙ্খলভাবে সিএনজি, অটোরিকশা চলার কারণে সরু এ রাস্তায় যানজট লেগে থাকে দিনের বেশির ভাগ সময়।

একদিকে রাস্তায় যানজট, অন্যদিকে শহীদ মজনু পার্কের পূর্বদিকের ভাঙা রাস্তায় হাঁটু পানি। ভাঙা রাস্তা পার হতে গিয়ে আটকে যাচ্ছে গাড়ি। ফলে যাত্রী-চালকদের অনেকেই বাধ্য হয়ে হাঁটু পানিতে নেমে ঠেলছেন গাড়ি। এ রাস্তা পার হতে গিয়ে বিশেষ করে সিএনজি ও রিকশা চালকদের বেশি দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে।

একদিকে সরু রাস্তা অন্যদিকে জলাবদ্ধতার কারণে সকাল থেকেই দুর্ভোগে পড়েছেন সোনারগাঁ উপজেলা, থানা, রেজিস্ট্রি অফিস, সরকারি হাসপাতাল, পশু হাসপাতাল, এসি ল্যান্ড অফিসসহ সরকারি বিভিন্ন দপ্তরে জরুরি কাজে আসা যাত্রী, পথচারী, সাধারণ মানুষ ও উপজেলার কয়েকটি ইউনিয়ন, আড়াই হাজার উপজেলার একাংশ, নদীপথে আসা কুমিল্লার কয়েকটি উপজেলার যাত্রীরা।

যানজটে অতিষ্ট সোনারগাঁয়ের চরাঞ্চল নুনের টেকের হক মিয়া বলেন, প্রায় এক ঘণ্টা ধরে বসে আছি, গাড়ি যাচ্ছে না। রাস্তার একদিকে সামান্য যানজট লাগলেই সিএনটি, ট্রাক ও অটোরিকশার চালকরা পুরো রাস্তা বন্ধ করে দেয়। এতে দীর্ঘ যানজটের সৃষ্টি হয়।

পৌরসভার সাইফুল ইসলাম বলেন, কোম্পানিগঞ্জ মোড়ে শহীদ মজনু পার্কেও পূর্বপাশের রাস্তা দিয়ে মালবাহী ট্রাক চলাচল করে রাস্তাটি ভেঙে ফেলেছে। দীর্ঘদিন হলেও এটা মেরামতের কোনো উদ্যোগ নিচ্ছে না কর্তৃপক্ষ।

খাদেপড়া সিএনজিচালক মকবুল হোসেন বলেন, 'এ রাস্তায় পড়ে প্রতিদিনই কারো না কারো গাড়ি নষ্ট হচ্ছে। ভাঙা রাস্তায় ঝুঁকি নিয়ে চলার কারণে কোনোভাবে গাড়ি উল্টে গিয়ে চালকসহ অনেক যাত্রী দুর্ঘটনার শিকার হচ্ছেন।'

উপজেলা নির্বাহী কর্মকতা আতিকুল ইসলাম জানান, যানজট নিরসন করতে কম্পানির গাড়ি চলাচলের জন্য বিকল্প রাস্তা তৈরি করার চূড়ান্ত প্রস্ততি নিয়েছে সড়ক ও জনপদ কর্তৃপক্ষ। তিনি আরো বলেন, চালকরা যদি আগে চলো নীতিতে গাড়ি না চালিয়ে একটু ধৈর্য ধরে গাড়ি চালাত তাহলেও অনেকটা যানজট মুক্ত থাকা যেত।



সাতদিনের সেরা