kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ১ আশ্বিন ১৪২৮। ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২১।৮ সফর ১৪৪৩

জাবিতে নাট্যাচার্য সেলিম আল দীনের ৭২তম জন্মবার্ষিকী উদযাপন

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি   

১৮ আগস্ট, ২০২১ ২১:৫৯ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



জাবিতে নাট্যাচার্য সেলিম আল দীনের ৭২তম জন্মবার্ষিকী উদযাপন

বাংলাদেশের বিচিত্র শ্রমজীবী, পেশাজীবী ও আবহমান বাংলার সমাজজীবন ও সাংস্কৃতিক দ্যোতনা নাটকে সুনিপণভাবে ফুটিয়ে তুলেছিলেন নাট্যাচার্য সেলিম আল দীন। দেশজ উপাদান অবলম্বন করে বিচিত্র ও রীতির নাটক রচনার মাধ্যমে তিনি বাংলা সাহিত্যকে সমৃদ্ধ করেছেন। গুণী এই নাট্যকার ১৯৪৯ সালের ১৮ আগস্ট ফেনীর সোনাগাজী থানার সেনেরখিল গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন।

নানা আয়েজানের মধ্য দিয়ে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে (জাবি) পালিত হয়েছে বাংলা ভাষার আধুনিককালের অন্যতম শ্রেষ্ঠ এই নাট্যকারের ৭২তম জন্মবার্ষিকী। বুধবার সকালে দিনটি উপলক্ষ্যে বিশ্ববিদ্যালয়ের পুরাতন কলা ভবনের সামনে থেকে শোভাযাত্রা বের করে নাটক ও নাট্যতত্ত্ব বিভাগ। শোভাযাত্রাটি বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ সড়ক প্রদক্ষিণ করে কেন্দ্রীয় মসজিদ সংলগ্ন গুণী এই নাট্যকারের সমাধিস্থলে এসে শেষ হয়। এরপরই সমাধিতে শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের পক্ষ থেকে পুষ্পস্তবক অর্পণ করা হয়।

বিশ্ববিদ্যালয়ের নাটক ও নাট্যতত্ত্ব বিভাগ ও ছাত্র-শিক্ষক কেন্দ্র ছাড়াও তালুকদার থিয়েটার, সেলিম আল দীন বিদ্যাপীঠ, স্বপ্নদল, এস এম সুলতান গবেষণা কেন্দ্র, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় নাট্যকলা বিভাগ, গ্রাম থিয়েটার, ঢাকা থিয়েটার, ভোর হলো, দেশ বাংলা থিয়েটার, বাংলাদেশ পুতুলনাট্য গবেষণা ও উন্নয়ন কেন্দ্রসহ বিভিন্ন সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠন সমাধিস্থলে পুষ্পস্তবক অর্পণ করে।

শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে অধ্যাপক ড. হারুন অর রশীদের সঞ্চালনায় সংক্ষিপ্ত স্মরণসভার আয়োজন করা হয়। স্মরণসভায় স্মৃতিচারণকালে বিশিষ্ট নাট্যকার ও নাট্যব্যক্তিত্ব নাসির উদ্দীন ইউসুফ বলেন, “জাতিসত্তার উন্মোচনের মধ্য দিয়ে জাতি শক্তিশালী হয়। শুধুমাত্র বিনোদনের জন্যই যে নাটক বা সঙ্গীত তা নয়। এটা মানুষকে উজ্জীবিত করে, একটা রসায়ন তৈরি করে। এই কথাগুলো সেলিম এসে আমাদের আবার মনে করিয়ে দেয়।”

নাট্যাচার্য সেলিম আল দীনের জন্মবার্ষিকীতে দিনব্যাপী অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছে জাবির নাটক ও নাট্যতত্ত্ব বিভাগ।

দুপুর ১২টায় বারীণ ঘোষের ছবির গল্পে সেলিম আল দীন। বিকাল ৩টায় মাস্টার ক্লাস: সেলিম আল দীনের বিশ্ববীক্ষা। এতে বক্তা হিসেবে ছিলেন, অধ্যাপক ড. আফসার আহমদ। বিকাল ৪টায় ড. ফাহমিদা আক্তারের সঞ্চালনায় “চলচ্চিত্রে সেলিম আল দীন” আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে অতিথি ছিলেন নাসির উদ্দীন ইউসুফ, মোরশেদুল ইসলাম, আবু সাইয়ীদ, নার্গিস আক্তার। এছাড়াও বিকাল ৫টায় ইউসুফ সাকী ব্যানার্জি পরিবেশিত রেকর্ডেড সঙ্গীতানুষ্ঠান “তোমাকে শোনাবো বলে সেলিম আল দীন” প্রাচারিত হয়। অনুষ্ঠানগুলো নাটক ও নাট্যতত্ত্ব বিভাগের ফেসবুক পেজ ও ইউটিউব চ্যানেলে দেখানো হয়েছে।

এ বিষয়ে নাটক ও নাট্যতত্ত্ব বিভাগের সভাপতি ড. সোমা মুমতাজ বলেন, “মহামারির এই অবস্থায় আমরা তেমন কোন আয়োজন করতে পারিনি। ঢাকা থেকে আগত অতিথি এবং শিক্ষকরা এসেছেন তারা একসাথে ফুল দিয়েছেন।

এছাড়া বাংলাদেশ গ্রাম থিয়েটার ও ঢাকা থিয়েটার যৌথ আয়োজনে বাংলাদেশ গ্রাম থিয়েটারের ফেসবুক পেজে দিন রাত ৮টায় আলোচনা সভা। রাত ৯টায় “সেলিম আল দীনের রচনা থেকে পাঠ”, রাত সাড়ে ৯টায় সঙ্গীতানুষ্ঠান "তোমাকে শোনাবা বলে তোমাকে শোনাবো বলে সেলিম আল দীন” প্রচারিত হয়েছে।



সাতদিনের সেরা