kalerkantho

রবিবার । ৪ আশ্বিন ১৪২৮। ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১। ১১ সফর ১৪৪৩

ঘরের খুঁটিতে বেঁধে ভ্যানচালককে মেম্বারের নির্যাতন

নাটোর প্রতিনিধি   

১৭ আগস্ট, ২০২১ ১৯:১৬ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ঘরের খুঁটিতে বেঁধে ভ্যানচালককে মেম্বারের নির্যাতন

নাটোরের সিংড়ায় এক ভ্যানচালকে ঘরের খুটির সঙ্গে বেঁধে লোহার রড দিয়ে পিটিয়ে নির্যাতনের অভিযোগ উঠেছে স্থানীয় মেম্বারের বিরুদ্ধে। খবর পেয়ে পুলিশ নির্যাতনের শিকার ভ্যানচালক মিজু আহমেদকে (৩৫) উদ্ধার করে। রাতেই অভিযান চালিয়ে অভিযুক্ত ইউপি সদস্যকে গ্রেপ্তার করা হয়।

সোমবার (১৬ আগস্ট) রাতে সিংড়া উপজেলার তাজুপর ইউনিয়নের ক্ষরসতি গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। আটক তাজপুর ইউপি সদস্য ফজর আলী (৩৮) একই গ্রামের মোতালেব কাজীর ছেলে। এ ব্যাপারে মামলার পর পুলিশ মঙ্গলবার দুপুরে তাকে আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে প্রেরণ করে।

পুলিশ ও গ্রামবাসী সূত্রে জানা যায়, সোমবার রাত ৮টার দিকে উপজেলার তাজপুর ইউনিয়নের ক্ষরসতি বাজারে ইউপি সদস্য ফজর আলীর দ্বিতীয় স্ত্রী রেখার দোকানে আসে তার মামাতো ভাই ভ্যানচালক মিজু আহমেদ। এ সময় রেখার স্বামী ফজর আলী ভেতরে প্রবেশ করেই মিজুকে মরধর শুরু করেন। এক পর্যায়ে তাকে ঘরের খুঁটিতে বেঁধে লোহার রড দিয়ে পেটাতে থাকে। এসময় মিজুর চিৎকারে প্রতিবেশীরা এগিয়ে আসে এবং তাকে উদ্ধারের চেষ্টা করে। না পেরে পুলিশে খবর দেয় স্থানীয়রা। পরে পুলিশ এসে আহত মিজু আহমেদকে উদ্ধার করে সিংড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে।

স্থানীয় সংরক্ষিত আসনের ইউপি সদস্য মনোয়ারা বেগম জানান, আমার বোন রেখার সঙ্গে ইউপি সদস্য ফজর আলীর ১৭/১৮ বছর আগে বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকে তাঁকে বিভিন্ন ভাবে নির্যাতন করা হয়। তাঁর কোনো খরচ দেয় না। মিজু আমার মামাতো ভাই। তাঁকেও অন্যায়ভাবে মারা হয়েছে।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই কিশোর কুমার পাল জানান, পুলিশ সংবাদ পেয়ে আহত মিজুকে উদ্ধার করে। এ ঘটনায় নির্যাতিত মিজু আহমেদের মা মর্জিনা বেগম বাদী হয়ে ইউপি সদস্য ফজর আলীসহ চারজনকে অভিযুক্ত করে একটি মামলা দায়ের করেছেন। পুলিশ অভিযান চালিয়ে সোমবার রাতে ফরজ আলীকে গ্রেপ্তার করে। অন্যান্য অভিযুক্তরা পলাতক রয়েছে।

তাজপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মিনহাজ উদ্দিন ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, খবর পেয়ে আমি ঘটনাস্থলে যাই। ভ্যানচালককে পাশবিক নির্যাতন করা হয়েছে। এর উপযুক্ত বিচার হওয়া উচিৎ।



সাতদিনের সেরা