kalerkantho

মঙ্গলবার । ১০ কার্তিক ১৪২৮। ২৬ অক্টোবর ২০২১। ১৮ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

স্বামীর সঙ্গে ঝগড়া করতে করতে বুড়িগঙ্গায় লাফ তরুণীর

কেরানীগঞ্জ (ঢাকা) প্রতিনিধি   

১৪ আগস্ট, ২০২১ ০১:২৭ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



স্বামীর সঙ্গে ঝগড়া করতে করতে বুড়িগঙ্গায় লাফ তরুণীর

স্বামীর সঙ্গে ঝগড়া করতে করতে রাজধানীর পোস্তগোলা সেতু থেকে বুড়িগঙ্গায় লাফ দিয়ে নূসরাত আক্তার মালা (১৮) নামে এক তরুণী নিখোঁজ হয়েছেন। বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ১০টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। 

খবর পেয়ে নৌ পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরি দল উদ্ধার অভিযান শুরু করলেও শুক্রবার দুপুর পর্যন্ত নিখোঁজ তরুণীর সন্ধান মেলেনি। স্বামীর সঙ্গে ঝগড়া করতে করতে রাজধানীর পোস্তগোলা সেতু থেকে বুড়িগঙ্গায় লাফ দিয়ে নূসরাত আক্তার মালা (১৮) নামে এক তরুণী নিখোঁজ হয়েছেন।

খবর পেয়ে নৌ পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরি দল উদ্ধার অভিযান শুরু করলেও শুক্রবার দুপুর পর্যন্ত নিখোঁজ তরুণীর সন্ধান মেলেনি।

প্রত্যক্ষদর্শী ফুসকা বিক্রেতা মো. রহিম জানান,  বৃহস্পতিবার রাত ১০টার দিকে এক তরুণ ও এক তরুণীকে ব্রিজের ওপর ঘুরতে দেখি। এর কিছুক্ষণ পর তাদের মধ্যে ঝগড়া হয়। ঝগড়ার একপর্যায়ে যুবকটি তরুণীকে প্রচুর মারধর করতে থাকে। এ দেখে আমিসহ আশপাশের আরো কয়েকজন এগিয়ে আসি। পরে জানতে পারি তারা স্বামী- স্ত্রী। স্বামী-স্ত্রীর ঝগড়া বলে আমরা আর কথা না বলে সেখান থেকে চলে আসি। তাদের মধ্যে ঝগড়ার একপর্যায়ে স্ত্রী ব্রিজ থেকে লাফ দেওয়ার চেষ্টা করেন। আমি পাশের দোকানদার ও এক সিএনজি চালক বাঁচাতে গেলে মেয়েটিকে বাঁচাতে পারিনি।

তিনি আরো জানান, ওই তরুণীর স্বামী দূর থেকে শুধু চেয়ে চেয়ে দেখল স্ত্রীকে বাঁচাতে এগিয়ে এলো না। পানিতে পড়ে মেয়েটি বাঁচার জন্য চেষ্টা করলেও এতো রাতে কেউ পানিতে নামেনি কিছুক্ষণ পর তরুণী পানিতে ডুবে যায়।

নিখোঁজ তরুণীর দাদি নুরজাহান বেগম জানান, আমরা রাত সাড়ে ১১টায় নূসরাতের বান্ধবী বৃষ্টি আক্তারের মাধ্যমে খবর পেয়েছি। নূসরাতের স্বামী মজিবর (২৪) বৃষ্টিকে জানিয়েছেন সে ব্রিজ থেকে বুড়িগঙ্গা নদীতে লাফ দিয়ে আত্মহত্যা করেছে। পরে এসে রাতে অনেক খুঁজেছি এবং নৌ পুলিশকে জানিয়েছি।

তিনি আরো জানান, এক বছর আগে বরিশাল জেলার মেহেন্দিগঞ্জ থানার দড়িচর খাজিরা গ্রামের মালার সঙ্গে পটুয়াখালীর বাউফল থানার দাসপাড়া গ্রামের মতিউর রহমানের ছেলে মজিবর প্রেম করে নিজেরা বিয়ে করে। পরে উভয়পক্ষের পরিবার বিয়ে মেনে নেয়। 

বিয়ের পর থেকে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে ঝগড়াঝাটি লেগেই থাকত। মালাকে মজিবরের মা-বাবা শুধু যৌতুকের জন্য চাপ দিত। একথা তাদের পরিবারের লোকজনও জানে। আমার নাতিন জামাই, আমার নাতিনকে আত্মহত্যা উদ্বুদ্ধ করেছে বলে সে বুড়িগঙ্গা নদীতে লাফ দিয়েছে। তিনি বলেন, তারা উভয় পরিবার ঢাকার যাত্রাবাড়ী মীর হাজিরবাগ কাউন্সিলর হাবু মিয়া বাসার গলিতে ভাড়া থাকেন।

মালার মা রুমা বেগম বলেন, যাত্রাবাড়ীর মীর হাজিরবাগ কাউন্সিলর হাবু মিয়ার বাসার গলিতে আমরা ভাড়া থাকি। মেয়ে ও জামাই পাশেই ভাড়া বাসায় থাকে। বৃহস্পতিবার রাত ৯টায় মালা বাসা থেকে বোরকা নিয়ে স্বামীর সঙ্গে বের হয়। মেয়েকে তখন রাগান্বিত দেখি। জিজ্ঞেস করলে ও বলে-জামাই দাঁড়িয়ে আছে। রাত সাড়ে ১১টায় মালার বান্ধবীর মাধ্যমে মালার নিখোঁজের খবর পাই। এর কিছুক্ষণ পর জামাই মজিবর ফোন করে বলে মালা কই আমি বলেছি তোমার সঙ্গে বের হয়েছে। সে বলে না আমার সঙ্গে যায়নি। 

মালার মা রুমা বেগম আরো বলেন, আমার মেয়েকে যৌতুকের জন্য মেরে ফেলেছে। আমার বাসায় গিয়ে আমার মেয়েকে মারত। ফুসকা দোকানদাররা বলেছে, আমার মেয়েকে ব্রিজে এনেও মেরেছে। পরে মজিবর বুড়িগঙ্গায় ঝাঁপ দিতে উদ্বুদ্ধ করেছে। এ সময় মালার মায়ের কান্নায় বুড়িগঙ্গা নদী পাড়ের বাতাস ভারি হয়ে উঠে।

এ ব্যাপারে নৌ পুলিশ সদরঘাট ইনচার্জ কায়ূম আলী সরদার জানিয়েছেন, খবর শোনার সঙ্গে সঙ্গে এসআই রেজাউল করিমকে পাঠিয়েছি, রাতে ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরি দল এসেছিল বৈরি আবহাওয়ার কারণে তারা নদীতে নামেনি। শুক্রবার সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত খুঁজেছে লাশটির হদিস না পেয়ে খোঁজাখুঁজি বন্ধ করা হয়।



সাতদিনের সেরা