kalerkantho

রবিবার । ১ কার্তিক ১৪২৮। ১৭ অক্টোবর ২০২১। ৯ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

বেনাপোল পৌরসভার প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মোজাম্মেল হক

বেনাপোল প্রতিনিধি   

১১ আগস্ট, ২০২১ ০৫:০৯ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



বেনাপোল পৌরসভার প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মোজাম্মেল হক

সকল জল্পনা কল্পনার অবসান ঘটিয়ে অবশেষে দেশের সর্ববৃহৎ স্থলবন্দর বেনাপোল পৌরসভায় প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা পদে নিয়োগ পেয়েছেন মোজাম্মেল হক চৌধুরী। আগে মেয়রের পরে মর্যাদার দিক থেকে ছিলেন একজন সচিব। এখন মেয়রের পর পদ মর্যাদায় থাকবেন প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা।

গত ৮ আগস্ট জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের উপসচিব আবু কায়সার খান স্বাক্ষরিত এক চিঠিতে এ নিয়োগ দেওয়া হয়। মোজাম্মেল হক খুব শিগগির বেনাপোল পৌরসভায় যোগদান করবেন বলে জানা গেছে। এর আগে তিনি চট্টগ্রাম আগ্রাবাদ সার্কেলে সহকারী কমিশনার (ভূমি) পদে কর্মরত ছিলেন।

দেশের স্থানীয় সরকার ব্যবস্থা সংস্কার ও ঢেলে সাজানোর উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। দেশের প্রথম শ্রেণির পৌরসভাগুলোতে প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) হিসেবে প্রশাসন ক্যাডারের কর্মকর্তাদের নিয়োগ দেওয়ার উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। 

স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয় বলছে, পৌরসভার সার্বিক কার্যক্রম গতিশীল করতে এবং স্বচ্ছতা আনতে এই উদ্যোগ। তবে বিষয়টি নিয়ে পৌর মেয়ররা অস্বস্তিতে রয়েছেন। তাঁদের মতে, আমলাতন্ত্রকে শক্তিশালী করতে পৌরসভায় সিইও নিয়োগ দেওয়া হচ্ছে। 

দেশের অধিকাংশ পৌরসভার আয়ের ঘাটতি থাকায় কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বেতন-ভাতা অনিয়মিত। রাজস্ব আদায়ের অনেক ক্ষেত্র থাকার পরেও পৌরসভাগুলোর আয় বাড়ছে না। স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা বলছেন, প্রধান নির্বাহী না থাকায় পৌরসভার আয় বাড়ানোসহ প্রশাসনিক কাজে বিঘ্ন হচ্ছিল। পৌরসভার কার্যক্রমকে শৃঙ্খলায় আনতে প্রধান নির্বাহী নিয়োগ দেওয়া হচ্ছে।

জানা গেছে, ২০০৬ সালে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয় বেনাপোল ইউনিয়নের ১১টা গ্রামের অংশ নিয়ে (৮.৬০ বর্গ মিটার আয়তনে ) বেনাপোল তৃতীয় শ্রেণীর পৌরসভা হিসাবে ঘোষণা করেন। ২০০৬ সালের ১৬ এপ্রিল থেকে বেনাপোল পৌরসভার প্রশাসক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন বিএনপি নেতা শামছুর রহমান। সেনা সমর্থিত তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলে তাকে সরিয়ে শার্শা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বশীর আহমদকে প্রশাসকের দায়িত্ব দেওয়া হয়। এরপর পর্যায়ক্রমে দায়িত্ব পালন করেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার ড. আব্দুল হাকিম, কামরুল আরিফ। ২০১০ সালের ১ ডিসেম্বর তৃতীয় শ্রেণী থেকে ২য় শ্রেণীতে উন্নীত করা হয় বেনাপোল পৌরসভাকে।

এরপর আওয়ামী লীগ সরকারের আমলে ২০১১ সালের ১৩ জানুয়ারি বেনাপোল পৌরসভার প্রথম নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। প্রথম ভোটে মেয়র নির্বাচিত হন আওয়ামী লীগ নেতা আশরাফুল আলম লিটন। ২০১১ সালের ২০ সেপ্টেম্বর বেনাপোল পৌরসভা প্রথম শ্রেণীর মর্যাদা পায় স্থানীয় সরকার পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয় থেকে। ৫ বছর পর ২০১৫ সালের ১৩ জানুয়ারি পৌরসভার মেয়াদ উত্তীর্ণ হলেও সীমানা সংক্রান্ত মামলায় ঝুলে আছে নির্বাচন। ৬ বছর ৭ মাসেও মামলা নিষ্পত্তি না হওয়ায় বেনাপোল পৌরসভার নির্বাচন অনিশ্চিত হয়ে রয়েছে।



সাতদিনের সেরা