kalerkantho

মঙ্গলবার । ১৩ আশ্বিন ১৪২৮। ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২১। ২০ সফর ১৪৪৩

সিরাজগঞ্জে বসুন্ধরার খাদ্য সহায়তা পেল ৯০০ পরিবার

অসীম মণ্ডল ও নাজমুল হুদা, সিরাজগঞ্জ থেকে    

৮ আগস্ট, ২০২১ ০৩:২৫ | পড়া যাবে ৬ মিনিটে



সিরাজগঞ্জে বসুন্ধরার খাদ্য সহায়তা পেল ৯০০ পরিবার

সিরাজগঞ্জে গতকাল বসুন্ধরা গ্রুপের খাদ্য সহায়তা বিতরণ কাজে উপস্থিত ছিলেন সিরাজগঞ্জ-৩ আসনের সংসদ সদস্য অধ্যাপক ডা. মো. আব্দুল আজিজ।

কাঠমিস্ত্রি রেজাউল করিম। হাতের নিপুণ শৈলীতে কাঠকে রূপ দেন দৃষ্টিনন্দন নকশায়। ঘর বানানো থেকে আসবাব তৈরি, তাঁর কাজের দারুণ সমঝদার এলাকার মানুষ। বাড়ি বাড়ি ঘুরে তৈরি করেন ঘর, খাট-পালঙ্ক, চেয়ার, টেবিল। কিন্তু তাঁর এই কাজে বাগড়া বসায় করোনা মহামারি। দেড় বছর ধরে পাচ্ছেন না কাজ। করোনার কারণে সব কিছু স্থবির হয়ে পড়েছে। কাজ না পাওয়ায় তাঁর আয়ের পথ বন্ধ। পাঁচ সদস্যের সংসার চলত তাঁর উপার্জনে। সেই পথ বন্ধ হয়ে যাওয়ায় ভীষণ টানাপড়েনের মধ্যে জীবন পার করছিলেন। কালের কণ্ঠ শুভসংঘের সদস্যরা বসুন্ধরা গ্রুপের সহায়তার খাদ্যসামগ্রী তুলে দেন রেজাউলের হাতে। খাদ্য সহায়তা পেয়ে তিনি বলেন, ‘এই অসহায় সময়ে আমাদের খাবার দিলেন। খুব উপকার হলো। আপনাদের ধন্যবাদ জানাই।’

রেজাউলের মতো কালাম শেখও কাঠমিস্ত্রি। অসুস্থতার পর পঙ্গু হয়ে গেছেন বছর তিনেক আগে। এরপর আর তিনি কাজ করতে পারছেন না। তাঁর হাতেও তুলে দেওয়া হয় বসুন্ধরা গ্রুপের সহায়তার খাদ্যসামগ্রী। সহায়তা পেয়ে হাত তুলে বসুন্ধরা গ্রুপের জন্য দোয়া করে বলেন, ‘আল্লাহ বসুন্ধরা গ্রুপের মালিকক ছোলপোল ভালো রাখুক। তাকে শান্তিতে রাখুক।’

গতকাল শনিবার সিরাজগঞ্জ জেলার তিন উপজেলা কাজিপুর, রায়গঞ্জ ও তাড়াশে তাঁদের মতো ৯০০ অসহায় পরিবারের মাঝে স্বাস্থ্যবিধি মেনে বসুন্ধরা গ্রুপের সহায়তার খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করেন কালের কণ্ঠ শুভসংঘের সদস্যরা। উপকারভোগী প্রতিটি পরিবারকে ১০ কেজি চাল, তিন কেজি ডাল ও তিন কেজি আটা দেওয়া হয়।

কাজিপুর উপজেলা পরিষদ মাঠে ৩০০, রায়গঞ্জের শালিয়াগাড়ী উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে ৩০০ এবং তাড়াশের বাঁশহাটা মাঠে ৩০০ পরিবারের মাঝে সহায়তার এই খাদ্যসামগ্রী পৌঁছে দেওয়া হয়।

ফেরি করে চা-বিস্কুট বিক্রি করতেন রানা সিং। করোনার কারণে তাঁর এই কাজ বন্ধ হয়ে যায়। স্ত্রী-সন্তান নিয়ে বড় কষ্টে জীবন পার করছিলেন। বসুন্ধরা গ্রুপের সহায়তার খাদ্যসামগ্রী পেয়ে তিনি বলেন, ‘পত্রিকাত দেখছিলাম বসুন্ধরা গ্রুপ মানুষেক খাওয়ার দিতাছে। আমরা চিন্তা করি কখন পামু। আইজকা পাইলাম। কয়ডা দিন গেদা-গেদিক নিয়া খাওয়ার পামু। তাগোরে জন্য দোয়া করি।’

খাদ্য সহায়তা পেয়ে বৃদ্ধা রাবেয়া খাতুন বলেন, ‘আমার স্বামী নাই, গেদা-গেদি নাই। ভাতিজার কাছে খাই। ঠিকমতো চইল্যা পারি না, খাইয়া পারি না। আমাগের যে শান্তি দিতাছে, আল্লা তাগোরে শান্তি দিবে।’

কাজিপুরে খাদ্যসামগ্রী বিতরণকাজে ভার্চুয়ালি অংশ নিয়ে সিরাজগঞ্জ-১ আসনের সংসদ সদস্য তানভীর শাকিল জয় বলেন, ‘দেশব্যাপী বসুন্ধরা গ্রুপের এই খাদ্য সহায়তা কার্যক্রম বঙ্গবন্ধুর আদর্শে আগস্ট মাসের শোককে শক্তিতে পরিণত করার চেতনার সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ। করোনার মধ্যে ক্ষতিগ্রস্ত কর্মজীবী ও অসহায় মানুষের জন্য তাদের এই মহতী উদ্যোগকে সাধুবাদ জানাই। কালের কণ্ঠ শুভসংঘের সদস্যদের ধন্যবাদ জানাই এই উদ্যোগ সফলভাবে বাস্তবায়ন করার জন্য। আমি আশা করি, আপনাদের এই উদ্যোগ অব্যাহত থাকবে। আর বসুন্ধরার এই মহতী উদ্যোগ দেখে দেশের বড় শিল্পপ্রতিষ্ঠানগুলোও অনুপ্রাণিত হয়ে অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়াবে সেই প্রত্যাশা করি।’

কাজিপুরে খাদ্যসামগ্রী বিতরণ কাজে আরো উপস্থিত ছিলেন উপজেলা চেয়ারম্যান খলিলুর রহমান, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) জাহিদ হাসান সিদ্দিকী, থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা পঞ্চনন্দ সরকার, কালের কণ্ঠ উপজেলা প্রতিনিধি আব্দুল জলিল, শুভসংঘের কাজিপুর উপজেলা শাখার প্রধান উপদেষ্টা বাংলাদেশ বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের ডেপুটি ডিরেক্টর আব্দুর রাজ্জাক, কথাসাহিত্যিক রিপন আহসান ঋতু, সভাপতি বিশিষ্ট ব্যবসায়ী শরিফুল ইসলাম সোহেল, সাধারণ সম্পাদক ডা. আশকারুল হক পাইনসহ শাহ আলম, আবু বাশির সবুজ, আশা সরকার, আশরাফুল আলম, নুরুজ্জামান, আব্দুল লতিফ, শফিকুল   ইসলাম, নুসরাত মৌ, তোতা মিয়া, সাব্বির আহমেদ, রিমন হাসান, সাথী আক্তার।

তাড়াশে সহায়তার খাদ্য বিতরণকাজে উপস্থিত হয়ে সিরাজগঞ্জ-৩ আসনের সংসদ সদস্য অধ্যাপক ডা. মো. আব্দুল আজিজ বলেন, ‘আমি বসুন্ধরা গ্রুপ ও কালের কণ্ঠ শুভসংঘকে আন্তরিক ধন্যবাদ জানাই। তাঁরা আমার সংসদীয় আসনের অসহায় মানুষকে খাদ্য সহায়তা দিয়েছে। শুধু তা-ই নয়, দেশজুড়ে তারা তাদের এই ত্রাণ কার্যক্রম পরিচালনা করছে। এর জন্য বসুন্ধরা গ্রুপের চেয়ারম্যান আহমেদ আকবর সোবহান সাহেবকে আন্তরিক ধন্যবাদ জানাই। পাশাপাশি দেশের এই ক্রান্তিকালে বসুন্ধরা গ্রুপের মতো বিত্তশালীদেরও এগিয়ে আসার আহবান জানাই।’

তাড়াশে আরো উপস্থিত ছিলেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. মেজবাউল করিম, থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ফজলে আশিক, উপজেলা প্রেস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক সাহেদ খান জয়, কালের কণ্ঠ উপজেলা প্রতিনিধি সনাতন দাস, শুভসংঘের তাড়াশ উপজেলা শাখার সভাপতি তপন গোস্বামী, সাধারণ সম্পাদক শামিউল হক শামিমসহ মোসতাক আহমেদ, নবকুমার, মুন্নি আহমেদ, পিয়াল লস্কর, মহর সরকার, মিনাল সরকার মিলু, শামসুল মির্জা, বাচ্চু সরকার।

বৃদ্ধ সাখাওয়াত হোসেন হাঁস-মুরগি পালন করে সংসার চালান। বসুন্ধরা গ্রুপের খাদ্য সহায়তা পেয়ে তিনি বলেন, ‘মোরা স্বামী-স্ত্রী দুইজন এই খাবার দিয়া ১৫-২০ দিন খামু। আল্লা বসুন্ধরাক যেন কামাই-কাজে বরকত দেয়। আরো ত্রাণ দিবার দেয়।’

নাঈম দ্বিতীয় শ্রেণির শিক্ষার্থী। বাবা গেছেন মাছ বিক্রি করতে। ফলে বসুন্ধরার সহায়তার খাদ্যসামগ্রী নিতে এসেছে সে। তার হাতে খাদ্যসামগ্রী তুলে দেওয়ার পর ভীষণ খুশি সে।

রায়গঞ্জে বসুন্ধরার সহায়তার খাদ্যসামগ্রী বিতরণকাজে যুক্ত হয়ে উপজেলা চেয়ারম্যান ইমরুল হোসেন তালুকদার বলেন, ‘বসুন্ধরা গ্রুপ দেশের দুই লাখ অসহায় পরিবারকে এই দুঃসময়ে খাদ্য সহায়তা দিচ্ছে। এই মানবিক কাজের জন্য বসুন্ধরা গ্রুপের চেয়ারম্যানকে আন্তরিক ধন্যবাদ জানাই। দেশে আরো অনেক ব্যবসায়ী গ্রুপ আছে; কিন্তু আর কেউ এগিয়ে আসেনি। মহামারির এই কঠিন সময়ে বসুন্ধরা গ্রুপ অসহায় মানুষকে সহায়তা দিতে অনেক বড় উদ্যোগ নিয়েছে। আমি বসুন্ধরা গ্রুপের চেয়ারম্যানের সুস্বাস্থ্য ও দীর্ঘায়ু কামনা করছি। এই খাদ্যসামগ্রী দিয়ে আপনারা কিছুদিন নিশ্চিন্তে খেতে পারবেন। এই খাবারটা আপনাদের কাছে পৌঁছতে কালের কণ্ঠ শুভসংঘের সদস্যরা রাত-দিন পরিশ্রম করছেন। তাঁদেরকেও আমি আন্তরিক ধন্যবাদ জানাই।’

রায়গঞ্জে বসুন্ধরার সহায়তার খাদ্যসামগ্রী বিতরণকাজে আরো উপস্থিত ছিলেন শালিয়াগাড়ী ইউপি চেয়ারম্যান রায়সুল হাসান সুমন, শালিয়াগাড়ী উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মাহাবুব তালুকদার, শুভসংঘের শালিয়াগাড়ী শাখার সভাপতি শ্যাম সুন্দর টুটুলসহ নিলু, লিটন, অর্জুন তালুকদার।

গতকাল খাদ্যসামগ্রী বিতরণের সব কাজে উপস্থিত ছিলেন কালের কণ্ঠ শুভসংঘের পরিচালক জাকারিয়া জামান, কালের কণ্ঠ বগুড়া ব্যুরোপ্রধান লিমন বাসার, শুভসংঘের বগুড়া জেলার উপদেষ্টা মোস্তফা মাহমুদ শাওন, শুভসংঘের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য শরীফ মাহ্দী আশরাফ জীবন, সিরাজগঞ্জ জেলা কমিটির উপদেষ্টা প্রদীপ সাহা, সাধারণ সম্পাদক মো. হোসেন আলী, সুচিত সরকার, তোফায়েল আহমেদ, জুবায়ের, হুজাইয়া ইসলাম, বগুড়া জেলার সদস্য মশিউর রহমান জুয়েল ও উত্তরা ইউনিভার্সিটির সাবেক সভাপতি আলমগীর হোসেন রনি।



সাতদিনের সেরা