kalerkantho

শুক্রবার । ৯ আশ্বিন ১৪২৮। ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১। ১৬ সফর ১৪৪৩

আমতলীতে আয়রন ব্রিজ ভেঙে খালে, বিচ্ছিন্ন ১০ হাজার মানুষ

আমতলী (বরগুনা) প্রতিনিধি   

৭ আগস্ট, ২০২১ ২১:৪৮ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



আমতলীতে আয়রন ব্রিজ ভেঙে খালে, বিচ্ছিন্ন ১০ হাজার মানুষ

বরগুনার আমতলী উপজেলার হলদিয়া ইউনিয়নের জুলেখা স্লুইজের মোল্লা বাড়ি সংলগ্ন কাদির খাঁ খালের ওপর নির্মিত আয়রন ব্রিজটি আজ শনিবার দুপুরে মাঝখান দিয়ে ভেঙে খালে পড়ে যোগাযোগ ব্যবস্থা বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে। এতে ওই ইউনিয়নের ৭টি গ্রামের শিক্ষার্থীসহ প্রায় ১০ হাজার মানুষ ভোগান্তিতে পড়েছে।

উপজেলা প্রকৌশলী বিভাগ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, ২০০৫ সালে স্থানীয় সরকার প্রকৌশল বিভাগ উপজেলার হলদিয়া ইউনিয়নের সেনেরহাট এবং হলদিয়া তক্তাবুনিয়া গ্রামের সংযোগ স্থাপনের জন্য এই আয়রন ব্রিজটি নির্মাণ করে। ব্রিজটি ব্যবহার করে সড়ক পথে শিক্ষার্থীসহ ওই ইউনিয়নের দুপাড়ের হলদিয়া, তক্তাবুনিয়া, গুরুদল, কুলাইরচর, টেপুড়া, অফিস বাজার ও মীরাকান্দা গ্রামের প্রায় ১০ হাজার মানুষ এবং দক্ষিণ তক্তাবুনিয়া মাধ্যমিক বিদ্যালয়, জেবি সেনেরহাট এবং পূর্ব হলদিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষাক্ষার্থীরা বিদ্যালয়ে এবং উপজেলা সদর ও ইউনিয়ন পরিষদে যাতায়াত করে। নির্মাণের ১৬ বছর পর ব্রিজটি মাঝখান দিয়ে হঠাৎ ভেঙে খালে পড়ে যায়।

মোল্লাকান্দা গ্রামের বাসিন্দা মো. হিরন মোল্লা  বলেন, শনিবার দুপুরে হঠাৎ ব্রিজটির মাঝখান দিয়ে ভেঙে পড়ে। এতে দুই পাড়ের বেশ কয়েকটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীসহ ৭টি গ্রামের প্রায় ১০ হাজার মানুষের যোগাযোগ ব্যবস্থা বন্ধ হয়ে গেছে।

হলদিয়া ইউনিয়নের বিশিষ্ট সমাজসেবক মো. নান্নু মোল্লা বলেন, ভেঙে পড়া আয়রন ব্রিজটি এ এলাকার মানুষ ও কোমলমতি শিক্ষার্থীদের চলাচলের একমাত্র মাধ্যম। ব্রিজটি দ্রুত মেরামত অথবা নতুন একটি গার্ডার ব্রিজ নির্মাণ করার জোর দাবি জানাচ্ছি।

হলদিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. আসাদুজ্জামান মিন্টু মল্লিক বলেন, জনসাধারণের দুর্ভোগ লাঘবে দ্রুত ব্রিজটি নির্মাণে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করছি।

উপজেলা প্রকৌশলী মো. আল মামুন বলেন, আয়রন ব্রিজটি ভেঙে যাওয়ার সংবাদ পেয়েছি।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. আসাদুজ্জামান মুঠোফোনে বলেন, ডেবে যাওয়া ব্রিজ এলাকা পরিদর্শন করে মানুষের যাতে দুর্ভোগ পোহাতে না হয় দ্রুত সেই ব্যবস্থা নেওয়া হবে।



সাতদিনের সেরা