kalerkantho

সোমবার  । ১২ আশ্বিন ১৪২৮। ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২১। ১৯ সফর ১৪৪৩

নিহতরা সবাই আত্মীয়, কে দেবে কাকে সান্ত্বনা

অনলাইন ডেস্ক   

৪ আগস্ট, ২০২১ ১৮:৪৯ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



নিহতরা সবাই আত্মীয়, কে দেবে কাকে সান্ত্বনা

মিজানুরে রহমান যাচ্ছিলেন বধূকে বাড়িতে আনতে। সঙ্গে তার আত্মীয়-স্বজন ও পরিবারের সদস্যরা। সেই যাত্র শোকযাত্রায় পরিণত হলো। সব আয়োজন শেষ। এখন শুধু লাশ আর লাশ। বজ্রপাতে মারা গেছেন বাবা, পরিবারের সদস্য, আত্মীয়-স্বজন, নৌকার মাঝিসহ ১৭ জন। বিয়েবাড়িতে এখন শুধু কান্না আর আহাজারি।

চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জে পদ্মা নদীতে বজ্রপাতে বরযাত্রীবাহী নৌকায় থাকা ১৭ জনের মৃত্যু হয়েছে। আহত হয়েছে আরো ছয়জন। বুধবার (৪ আগস্ট) দুপুর ১২টার দিকে এ ঘটনা ঘটে।

আহত ব্যক্তিদের সদর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। বিষয়টি গণমাধ্যমকে নিশ্চিত করেছেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) সাকিব আল রাব্বি।

নিহতরা হলেন, শিবগঞ্জ উপজেলার পাঁকা ইউনিয়নের দক্ষিণপাঁকা তের রশিয়া গ্রামের মহবুল ইসলামের ছেলে রফিকুল ইসলাম (৬০), চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর উপজেলার মহারাজনগর-ডাইলপাড়ার মৃত সৈয়ব আলীর ছেলে তবজুল আলী (৭০), তাঁর স্ত্রী জামিলা বেগম (৫৮), ছেলে সাদল আলী (৩৫), একই এলাকার জামাল উদ্দিনের মেয়ে লেচন (৫০), সূর্য নারায়ণপুর গ্রামের ধুনু মিয়ার ছেলে সজীব আলী (২২), কালুর ছেলে আলম (৪৫), মোস্তফার ছেলে পাচু (৪০), ফাটাপাড়ার সাদেকুল ইসলামের স্ত্রী টকি বেগম (৩০), চরবাগঙাডা গোঠাপাড়ার সাত্তার আলীর ছেলে সোহবুল (৩০), চর সূর্য নারায়নপুরের টিপুর স্ত্রী বেলি বেগম (৩২), মহারাজনগর ডাইলপাড়ার রফিকুল ইসলামের ছেলে বাবুল (২৬), সূর্য নারায়ণপুরের বাবু আলীর স্ত্রী মোসা. মৌসুমী বেগম (২৫), বাবু ডাইং এলাকার টিপু সুলতান (৪৫), মহারাজনগরের বাদল আলীর ছেলে বাবু (২০) ও সুন্দরপুরের সেরাজুল ইসলামের ছেলে আসিকুল ইসলাম (২০)। এ ছাড়া অপর একজন নিহত ও আহতদের নাম পরিচয় পাওয়া যায়নি।

ইউএনও জানান, পদ্মা নদী পার হয়ে ২৩ জনের একটি দল শিবগঞ্জ উপজেলার পাকা ইউনিয়নে বিয়ের অনুষ্ঠানে যাচ্ছিলেন। পথে বৃষ্টি শুরু হলে তারা টেলিখারি এলাকায় নেমে একটি চালার নিচে অপেক্ষা করছিলেন। এ সময় বজ্রপাত হলে ঘটনাস্থলেই ১৭ জনের মৃত্যু হয়।

স্থানীয়রা জানান, বরযাত্রী নিয়ে যাওয়ার সময় বৃষ্টি নামলে উপজেলার পাকা ইউনিয়নের দক্ষিণ পাকার দুড়াউড়ি ঘাট এলাকার একটি টিনের ঘরে তারা আশ্রয় নেয়। এ সময় বজ্রপাত হলে তাদের মৃত্যু হয়।



সাতদিনের সেরা