kalerkantho

শনিবার । ১০ আশ্বিন ১৪২৮। ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১। ১৭ সফর ১৪৪৩

বৃষ্টির পানিতে বেতাগীর পান চাষিরা বিপাকে

বেতাগী (বরগুনা) প্রতিনিধি   

২ আগস্ট, ২০২১ ২১:০১ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



বৃষ্টির পানিতে বেতাগীর পান চাষিরা বিপাকে

গত এক সপ্তাহ ধরে সমুদ্রে লঘুচাপের কারণে উপকূলীয় অঞ্চল বরগুনার বেতাগীতে টানা বর্ষণ এবং জোয়ারের প্রভাবে বিষখালী নদীর পানি  বেড়ে যাওয়ায় বিপাকে পড়েছেন পান চাষিরা। অস্বাভাবিক পানিতে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে পানের বরজ। এতে এক কোটি টাকার আর্থিক ক্ষতির সন্মূখীন হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে পান চাষিদের।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, বেতাগী উপজেলার পৌরসভাসহ ৭টি ইউনিয়নে ২৭৫ হেক্টর জমিতে পান চাষ করা হয়। তবে বিবিচিনি, মোকামিয়া, বুড়ামজুমদার ও সরিষামুড়ি ইউনিয়নে চাষীর সংখ্যাই বেশি। এ উপজেলার ৫ শতাধিকের বেশি পান চাষির আড়াই হাজারের বেশি পানের বরজ রয়েছে।

পানের জন্য বিখ্যাত এ উপজেলার উৎপাদিত পান স্থানীয় চাহিদা মিটিয়ে প্রতি বছর কোটি টাকার পান ঢাকা ও চট্টগ্রামসহ বিভিন্ন জেলায় রপ্তানি হয়। স্বাদ ও গুণগত মান ভালো হওয়ায় বাজারে ব্যাপক চাহিদাও রয়েছে এখানকার পানের। টানা এক সপ্তাহের পানিতে এক কোটি টাকার পানের বরজ নষ্ট হয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। একাধিক পান চাষিরা জানিয়েছেন, বৃষ্টির পানি দ্রুত নেমে না গেলে পচঁন ধরে নষ্ট হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

মোকামিয়া ইউনিয়নে পান চাষি রতন হাওলাদার জানান, বৃষ্টির পানিতে তার পানের বরজ তলিয়ে রয়েছে।

পটুয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের উদ্যানতত্ত্ব বিভাগের অধ্যাপক ড. সন্তোষ কুমার বসু বলেন, পানের বরজে পানি জমে থাকলে পান গাছে ও পাতায় ছত্রাক জন্ম নেবে। এ ছাড়া পাতা হলুদ বর্ণ ধারণ করে ঝড়ে পড়বে এবং পচন ধরবে।

উপজেলার কৃষি কর্মকর্তা মো. ইকবাল হোসেন মজুমদার বলেন, বৃষ্টির পানি দ্রুত নেমে গেলে তেমন ক্ষতি হবে না। তবে ক্ষতি বিবরণসহ সংশ্লিষ্ট ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে অবহিত করা হয়েছে।



সাতদিনের সেরা