kalerkantho

শুক্রবার । ২ আশ্বিন ১৪২৮। ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১। ৯ সফর ১৪৪৩

চুরি করতে দেখে ফেলায় হত্যা করা হয় ছাত্রলীগ নেতা মাছুমকে

নিজস্ব প্রতিবেদক, গাজীপুর   

১ আগস্ট, ২০২১ ২০:৫২ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



চুরি করতে দেখে ফেলায় হত্যা করা হয় ছাত্রলীগ নেতা মাছুমকে

ছাত্রলীগ নেতা মাছুমদের সঙ্গে জমিজমা সংক্রান্ত বিরোধ ছিল প্রতিবেশী মারুফ ও জহিরদের। মাছুম বাসায় না থাকার সুযোগে রুমের তালা ভেঙ্গে মূল কাগজপত্র চুরির জন্য পরিকল্পনা করে মারুফরা। পরিকল্পনা অনুযায়ী ঈদের রাতে তারা সহযোগী কালামকে নিয়ে ঘরে ঢুকে চুরি করার সময় ঘরে প্রবেশ করে দেখে ফেলে মাছুম। তারপর চুরির সাক্ষী না রাখতেই হত্যার উদ্দেশ্যে প্রথমে পিটিয়ে পরে ইটদিয়ে মাথায় আঘাত করে পালিয়ে যায় আসামীরা। দুইদিন পর হাসপাতালে মৃত্যু হয় মাছুমের। 

ঘটনায় গ্রেপ্তার শ্রীপুরের বেরাইদের চালা এলাকার মৃত হাবিবুল্লাহ ক্বারীর ছেলে আবুল কালাম (৪১) শনিবার ছাত্রলীগ নেতা মাছুম হত্যাকান্ডের বর্ননা দিয়ে আদালতে বিস্তারিত স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে। 

পিবিআই গাজীপুরের পুলিশ সুপার মোহাম্মদ মাকছুদের রহমান বলেন, মাছুম হত্যাকান্ডে কালাম ছাড়াও এ পর্যন্ত একই এলাকার শফিকুল ইসলাম (৩২), নাজির হোসেন জয় (২৯), সাইফুল ইসলামকে (৪০) ও হারুন অর রশিদকে (৩৮) গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তাদের মধ্যে আবুল কালাম আদালতে গ্রেপ্তার সবার হত্যায় জড়িত থাকার স্বীকারোক্তি দিয়েছে। 
খালি  ঘরের তালা ভেঙ্গে ভিতরে ঢুকে জমির দলিলপত্র চুরি করে নিয়ে যাওয়ার সময় ঘরে প্রবেশ করে মাছুম। এ সময় আসামীরা দৌড়ে পালিয়ে যেতে থাকে। মাছুমকে একজনকে ধরে ফেলে। তখন আসামীদের সঙ্গে তার ধস্তাধস্তি হয়। এক পর্যায়ে আসামীরা ইট দিয়ে মাছুমের মাথায় আঘাত করে পালিয়ে যায়। ঘটনাস্থলে আসামীরা তিন জোড়া সেন্ডেল ও দুইটি ছাতা ফেলে রেখে যায়। জুতা ও ছাতার সূত্র ধরে গেপ্তার করা হয় আসামীদের। 



সাতদিনের সেরা