kalerkantho

মঙ্গলবার । ১৩ আশ্বিন ১৪২৮। ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২১। ২০ সফর ১৪৪৩

কর্মস্থলের দিকে ছুটছে মানুষ, সঙ্গী দুর্ভোগ-ঝুঁকি

পূর্বধলা (নেত্রকোনা) প্রতিনিধি   

৩১ জুলাই, ২০২১ ১৬:৪০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



কর্মস্থলের দিকে ছুটছে মানুষ, সঙ্গী দুর্ভোগ-ঝুঁকি

পদে পদে দুর্ভোগ। ভোগান্তি। ঝুঁকি। গুনতে হচ্ছে অতিরিক্ত ভাড়া। এমন অবস্থার মধ্যেই নেত্রকোনার পূর্বধলা উপজেলা থেকে কর্মস্থলে ছুটছেন গার্মেন্টকর্মীরা। এ যেন জনস্রোত।

আগামীকাল রবিবার গার্মেন্ট কারখানা খোলার সিদ্ধান্তে কর্মস্থলের দিকে ছুটছে হাজারো মানুষ। দূরপাল্লার বড় যানবাহন না থাকায় বাধ্য হয়েই দূরের পথ পাড়ি দিতে ছোট ছোট পরিবহনেই চড়ছেন। কেউ কেউ হেঁটেও রওনা হয়েছেন। এতে তারা চরম ভোগান্তিতে পড়েছেন। গুনতে হচ্ছে অতিরিক্ত ভাড়া। রয়েছে ঝুঁকি।

সরেজমিনে দেখা গেছে, নেত্রকোনা-ময়মনসিংহ ও শ্যামগঞ্জ-বিরিশিরি সড়কে ছোট ছোট অসংখ্য গাড়ির চাপ। সিএনজি চালিত অটোরিকশা, ব্যাটারিচালিত অটোরিকশা, মোটরসাইকেল, ভ্যান, পিকআপে করে ঝুঁকি নিয়ে যে যেভাবে পারছেন কর্মস্থলে যাওয়ার চেষ্টা করছেন। নেওয়া হচ্ছে নির্ধারিত ভাড়া চেয়ে দ্বিগুণ।

গাজীপুরে একটি গার্মেন্ট কারখানার কর্মী বিপ্লব মিয়া তার স্ত্রী ও দুই সন্তান নিয়ে শ্যামগঞ্জ-বিরিশিরি সড়কের পূর্বধলা সদরের চৌরাস্তায় গাড়ির জন্য অপেক্ষা করছেন। দীর্ঘসময় পর ময়মনসিংহ পর্যন্ত গাড়ি পেলেও ১০০ টাকার স্থলে ভাড়া চাওয়া হচ্ছে প্রতিজনে ২০০ টাকা। আবার ময়মনসিংহ থেকে গাড়ি পাওয়ার অনিশ্চয়তাতো রয়েছেই।

ঢাকামুখী গার্মেন্টকর্মী জুয়েল, ফারুকসহ অনেকে বলেন, একদিকে লকডাউন অন্যদিকে কাল থেকে আবার কারখানা খোলা। রাস্তায় দূরপাল্লার কোনো গাড়ি নেই। কিন্তু চাকরি বাঁচাতে হলে কারখানায় যেতেই হবে।



সাতদিনের সেরা