kalerkantho

শনিবার । ৩ আশ্বিন ১৪২৮। ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১। ১০ সফর ১৪৪৩

ফোন চুরির অভিযোগে শিশুকে মধ্যযুগীয় কায়দায় নির্যাতন

মহাদেবপুর-বদলগাছী (নওগাঁ) প্রতিনিধি   

৩০ জুলাই, ২০২১ ১৯:৩৩ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ফোন চুরির অভিযোগে শিশুকে মধ্যযুগীয় কায়দায় নির্যাতন

নওগাঁর মহাদেবপুরে ফোন চুরির অভিযোগ তুলে শিহাব হোসেন (১৪) নামে এক শিশুকে হাত-পা বেঁধে নির্যাতনের অভিযোগ পাওয়া গেছে। আজ শুক্রবার সকালে উপজেলার বাগাচারা এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। শিশুটিকে মারধরের ঘটনায় ওই এলাকায় নির্মাণাধীন একটি অটোগ্যাস ফিলিং স্টেশনের নৈশপ্রহরীকে আটক করেছে পুলিশ। আটক ব্যক্তির নাম বকুল হোসেন (৫৫)। তিনি উপজেলার চৌমাশিয়া গ্রামের বাসিন্দা। নির্যাতনের শিকার শিহাব বাগাচারা গ্রামের খোরশেদ আলমের ছেলে।

নির্যাতনের শিকার শিশুর পরিবার, স্থানীয় বাসিন্দা ও মহাদেবপুর থানা পুলিশ সূত্রে জানা যায়, সকাল ৭টার দিকে নওগাঁ-রাজশাহী আঞ্চলিক মহাসড়কের পাশে উপজেলার বাগাচারা এলাকায় নির্মাণাধীন একটি অটোগ্যাস ফিলিং স্টেশন এলাকায় যায় শিহাব নামের শিশুটি। এ সময় মুঠোফোন চুরির অভিযোগ তুলে ফিলিং স্টেশনের নৈশপ্রহরী বকুল হোসেন ও কয়েকজন নির্মাণ শ্রমিক শিশুটিকে হাত-পা বেঁধে লাঠি দিয়ে মারধর করে। পরে শিশুটিকে হাত-পা বাঁধা অবস্থায় নৈশপ্রহরী বকুল তার কক্ষে আটকে রাখে। পরে ঘটনা জানাজানি হলে শিশুটির পরিবারের লোকজন ও স্থানীয় বাসিন্দারা এসে শিশুটিকে সেখান থেকে উদ্ধার করে। লোকজন আসার আগেই নৈশপ্রহরী বকুল হোসেন সেখান থেকে পালিয়ে যায়।

নির্যাতিত শিশুটির বাবা খোরশেদ আলম বলেন, ‘আমার ছেলে শিহাবকে হাত-পা বেঁধে মারধরের ঘটনার ভিডিও এলাকার বিভিন্ন মানুষের মোবাইলে ছড়িয়ে পড়েছে। ভিডিওতে দেখতে পাইছি, ছেলেক হাত-পা বেঁধে কিভাবে মারধর করা হয়েছে। আমি এ নির্যাতনের বিচার চাই।’

মহাদেবপুর থানার ওসি (তদন্ত) আবুল কালাম আজাদ বলেন, ‘এ ঘটনায় ইতোমধ্যে মূল অভিযুক্ত ব্যক্তিকে আটক করা হয়েছে। ঘটনার সাথে জড়িত অন্যদেরও আটকের চেষ্টা চলছে। এ ঘটনায় থানায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।



সাতদিনের সেরা