kalerkantho

শনিবার । ১০ আশ্বিন ১৪২৮। ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১। ১৭ সফর ১৪৪৩

গোপালগঞ্জ জেলা প্রশাসক পেলেন জনপ্রশাসন পদক

গোপালগঞ্জ প্রতিনিধি   

২৭ জুলাই, ২০২১ ২১:০২ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



গোপালগঞ্জ জেলা প্রশাসক পেলেন জনপ্রশাসন পদক

গোপালঞ্জ জেলা প্রশাসক শাহিদা সুলতানাকে জাতীয় পর্যায়ে জনপ্রশাসন পদকে ভূষিত করা হয়েছে। গোপালগঞ্জ জেলায় পরিবার পরিচিতি কার্ড প্রস্তুত করা এবং সেই অনুযায়ী সরকারি সাহায্য দরিদ্র পরিবারের হাতে পৌঁছে দেওয়ার অবদানের জন্য তাকে এই পদকে ভূষিত করা হয়। জাতীয় পাবলিক সার্ভিস দিবস উদযাপন উপলক্ষে আজ মঙ্গলবার সকালে তার হাতে এই পদক তুলে দেওয়া হয়।

জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের আয়োজনে ঢাকার ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে জনপ্রশাসন পদক ২০২০ ও ২০২১ প্রদান অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে ভার্চুয়ালি উপস্থিত ছিলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে প্রধানমন্ত্রীর পক্ষে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের মাননীয় মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক পুরস্কারের সনদ ও ক্রেস্ট জেলা প্রশাসকের হাতে তুলে দেন। এ সময় সরকারের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাগণ উপস্থিত ছিলেন।

জেলা প্রশাসক শাহিদা সুলতানাকে জাতীয় পর্যায়ে জনপ্রশাসন পদকে ভূষিত করায় গোপালগঞ্জের বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ সরকার প্রধানকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন এবং সেই সাথে অভিনন্দন জানিয়েছেন জেলা প্রশাসককে।

গোপালগঞ্জ জেলা উদীচীর সভাপতি মো. নাজমুল ইসলাম বলেন, জেলা প্রশাসক গোপালগঞ্জে আসার পর থেকে বিভিন্ন উন্নয়ন কাজ সঠিকভাবে দেখভাল করছেন। পরিবার পরিচিতি কার্ড তৈরি করে দেশের মধ্যে নতুন দৃস্টান্ত স্থাপন করেছেন। এই কার্ডের মাধ্যমে করোনাকালীন সময়ে সরকারের বিভিন্ন সাহায্য সহযোগিতা দরিদ্রদের মাঝে সঠিকভাবে বণ্টন করেছেন। বিভিন্ন সংগঠন বা ব্যক্তিকে উদ্ভুদ্ধ করে করোনা আক্রান্ত ও দরিদ্র শ্রমজীবী মানুষদের সাহায্যে নিজেকে আত্মনিয়োগ করেছেন। আমি তার এই গঠনমূলক কাজকে সাধুবাদ জানাই এবং তাকে অভিনন্দন জানাই।

জেলা প্রশাসক শাহিদা সুলতানা তার প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করে বলেন, প্রথমে ধন্যবাদ জ্ঞাপন করছি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে। তিনি আমাকে জাতীয় পর্যায়ে জনপ্রশাসন পদকে ভূষিত করেছেন।

তিনি আরো বলেন, সরকারি সাহায্য সহযোগিতা সঠিকভাবে বণ্টন করতে প্রথমে পরিবারের ধরন নির্বাচন করা জরুরি। তাই আমার নিজস্ব ধ্যান ধারনা থেকে পরিবার পরিচিতি কার্ড করার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করি। এই কার্ডের মাধ্যমে কোনো পরিবারের আয় কত তা জানা যাবে এবং সেই অনুযায়ী পরিবারের অবস্থান বা ক্যাটাগরি ভাগ করা হয়েছে। বেশী দরিদ্র যেসব পরিবার রয়েছে তাদের প্রথমে ত্রাণ বা প্রধানমন্ত্রীর দেওয়া সাহায্য সহযোগিতা সময় মতো পৌঁছে দেওয়া হয়েছে। এই কার্যক্রম চলমান রয়েছে। চলতি বছরের মধ্যেই অন্যসব পরিবারের পরিচিতি কার্ড শেষ করতে কাজ করা হচ্ছে।



সাতদিনের সেরা