kalerkantho

বুধবার । ১১ কার্তিক ১৪২৮। ২৭ অক্টোবর ২০২১। ১৯ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

প্রধানমন্ত্রীকে হেয় করে বক্তব্য : সেই আ. লীগ নেতা সাময়িক বহিষ্কার

খুলনা অফিস   

২৬ জুলাই, ২০২১ ১৬:০৯ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



প্রধানমন্ত্রীকে হেয় করে বক্তব্য : সেই আ. লীগ নেতা সাময়িক বহিষ্কার

দলীয় সভানেত্রী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে হেয় করে বক্তব্য প্রদান করায় খুলনার তেরখাদা উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও স্থানীয় সদর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান এফ এম ওহিদুজ্জামান অহিদকে দল থেকে সাময়িক বহিষ্কার করা হয়েছে। একই সঙ্গে এই নেতার বক্তব্য নিয়ে খুলনা-৪ আসনের সংসদ সদস্য নীরব থাকায় তাঁর (এমপি) বিষয়ে পদক্ষেপ গ্রহণের জন্য কেন্দ্রে সুপারিশ করা হয়েছে।

আজ সোমবার (২৬ জুলাই) সকালে দলীয় কার্যালয়ে জেলা আওয়ামী লীগের কার্যকরী কমিটির জরুরি সভায় এসব সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

দলটির জেলা সভাপতি ও জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান শেখ হারুনুর রশিদ সভায় সভাপতিত্ব করেন। সভায় জেলা সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট সুজিৎ কুমার অধিকারীসহ জেলার শীর্ষ নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

দরিদ্র জনগোষ্ঠীর জন্য ঈদুল আজহা উপলক্ষে তেরখাদা ইউনিয়নে চাল বিতরণকালে গত ১৯ জুলাই ফেসবুক লাইভে ‘খুলনা-৪ আসনের এমপির কাছ থেকে প্রধানমন্ত্রী ডোনেশন নিয়ে বিদেশ যান’ বলে এই নেতা মন্তব্য করেন। এ সময় মোবাইল ফোনের অপর প্রান্তে প্রধান অতিথি ছিলেন স্থানীয় সংসদ সদস্য আব্দুস সালাম মুর্শেদী। অনুষ্ঠানটি ফেসবুকে সরাসরি দেখানো হচ্ছিল। অনুষ্ঠানটি ফেসবুকে সরাসরি দেখানো হচ্ছিল। এ ঘটনায় জেলা-উপজেলায় আওয়ামী লীগ, সহযোগী ও অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীদের মধ্যে তীব্র প্রতিক্রিয়া দেখা দেয়।

উল্লেখ্য, ইউপি চেয়ারম্যান অহিদ তার বক্তব্যে স্থানীয় এমপি সালাম মুর্শেদীর ভূয়সী প্রশংসা করেন। একপর্যায়ে অপ্রাসঙ্গিকভাবে বলেন, ‘আব্দুস সালাম মুর্শেদী শুধু তেরখাদার নয়, বাংলাদেশের সম্পদ। তিনি বাংলাদেশ নিয়ে কাজ করেন; আমাদের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার জন্যও বড় ধরনের অবদান রাখেন, দেখা যাচ্ছে তিনি বহির্বিশ্বে যাবেন তখন কিন্তু আব্দুস সালাম মুর্শেদী ডোনেশন করেন, টাকা দেন। আমাদের খুলনা জেলার অনেক এমপিকে কিন্তু সালাম মুর্শেদী টাকা দেন, তারা চলেন।’ যেটি মুহূর্তেই ভাইরাল হয় ও নিন্দার ঝড় তোলে। পরে অবশ্য ভিডিওটি মুছে ফেলা হয়।

খুলনা জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট সুজিৎ কুমার অধিকারী ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের বিষয়টি কালের কণ্ঠকে নিশ্চিত করেন। তিনি বলেন, দলের গঠনতন্ত্র অনুযায়ী অহিদুজ্জামানকে সাময়িক বহিষ্কার ও ১০ দিনের মধ্যে কারণ দর্শানোর নোটিশ দেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়েছে। একই সঙ্গে অহিদুজ্জামানের বক্তব্যে কোনো প্রতিবাদ না করায় সংসদ সদস্য সালাম মুশের্দীর বিষয়ে পদক্ষেপ গ্রহণের জন্য কেন্দ্রীয় কমিটির দৃষ্টি আকর্ষণ করা হয়েছে।



সাতদিনের সেরা