kalerkantho

সোমবার । ৫ আশ্বিন ১৪২৮। ২০ সেপ্টেম্বর ২০২১। ১২ সফর ১৪৪৩

বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধ নির্মাণের আগেই নদীগর্ভে!

নকলা (শেরপুর) প্রতিনিধি   

২৬ জুলাই, ২০২১ ০১:৩০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধ নির্মাণের আগেই নদীগর্ভে!

শেরপুরের নকলা উপজেলা উরফা ইউনিয়নের পিছলাকুরি তারাকান্দা বাজারের বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধ নির্মাণের আগেই নদীগর্ভে ভেঙে পড়েছে। যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে বেশ কয়েকটি গ্রামের জনগণ।

উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলের পানি স্রোতের কারণে তীব্র ভাঙন এলাকায়  গত ২রা জুলাই ক্ষতিগ্রস্ত এলাকায় শেরপুর জেলা প্রশাসক মো. মোমিনুর রশিদ পরিদর্শনে এসে উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও উপজেলা নির্বাহী প্রকৌশলীসহ অত্র ইউনিয়নের চেয়ারম্যান রেজাউল হক হীরাকে দ্রুত ভাঙন রোধে কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণ করতে নির্দেশ দেন।

উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান রেজাউল হক হীরা অস্থায়ী ভাবে বাঁশ ও বালুর বস্তা ফেলে পানির স্রোত নিয়ন্ত্রণ ও রাস্তার ভাঙন রোধে তাৎক্ষণিক ব্যবস্থা নেন। 

এরই মধ্যে বন্যার পানি কমতে শুরু করলে রবিবার (২৫ জুলাই) রাতে সেই বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধে ধস নামে।

নকলা উপজেলা নির্বাহী অফিসার জাহিদুর রহমান বলেন, উরফা ইউনিয়নের পিছলাকুরি তারাকান্দা বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত বাঁধের জন্য এলজিইডি ও পানি উন্নয়ন বোর্ড একটি স্থায়ী টেকসই বাঁধ নির্মাণের পরিকল্পনা গ্রহণ করেছে এবং বর্ষার পরেই কাজ শুরু হবে।

শেরপুর জেলা নির্বাহী প্রকৌশলী মুস্তাফিজুর রহমান বলেন, উরফা ইউনিয়নে বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত রাস্তা ও বাঁধের জন্য স্থানীয় সরকার বিভাগ ও পানি উন্নয়ন বোর্ড স্থায়ী ও টেকসই বাঁধের পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়েছে।

উরফা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান রেজাউল হক হীরা বলেন, বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধ না থাকায় এই অঞ্চলের মানুষেরা চরম আতংকে রয়েছে তাই স্থায়ী ও টেকসই বাঁধের পরিকল্পনা গ্রহণ করতে জেলা প্রশাসককে অনুরোধ করা হয়েছে।

এলাকাবাসীরা জানায়, সরকার যেন দ্রুত এই রাস্তা ও বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধ নির্মাণ করে। 



সাতদিনের সেরা