kalerkantho

শুক্রবার । ৯ আশ্বিন ১৪২৮। ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১। ১৬ সফর ১৪৪৩

জরিমানার বদলে অটোরিকশা চালকদের খাদ্যসামগ্রী দিলেন ইউএনও

আঞ্চলিক প্রতিনিধি, মানিকগঞ্জ   

২৪ জুলাই, ২০২১ ২৩:৫৮ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



জরিমানার বদলে অটোরিকশা চালকদের খাদ্যসামগ্রী দিলেন ইউএনও

করোনাভাইরাস প্রতিরোধে ঈদুল আজহার পর শুক্রবার (২৩ জুলাই) থেকে সারা দেশে শুরু হয়েছে ১৪ দিনের কঠোর লকডাউন। ৫ আগস্ট পর্যন্ত দুই সপ্তাহব্যাপী কঠোর লকডাউন কার্যকর করতে তৎপর মানিকগঞ্জের সিঙ্গাইর উপজেলা ও পুলিশ প্রশাসন। 

লকডাউনের প্রথম দিন শুক্রবার (২৩ জুলাই) বিধি-নিষেধ উপেক্ষা করে যাত্রী পরিবহনের অপরাধে বেশ কিছু অটোরিকশা আটক করা হয়। জেলা প্রশাসক মুহাম্মদ আব্দুল লতিফের নির্দেশে দিন শেষে আটক অটোরিকশার চালকদের জরিমানার পরিবর্তে খাদ্যসামগ্রী দিয়ে ছেড়ে দেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) রুনা লায়লা।

উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, লকাউনের প্রথম দিন ভোর থেকেই ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে সিঙ্গাইর উপজেলা তথা মানিকগঞ্জে প্রবেশ ও বহির্গমন ঠেকাতে হেমায়েতপুর-সিঙ্গাইর-মানিকগঞ্জ সড়কসহ উপজেলার গুরুত্বপূর্ণ স্থানে অবস্থান নেন উপজেলা ও থানা প্রশাসনের কর্তাব্যক্তিরা।

লকডাউন বাস্তবায়নে উপজেলার এক প্রান্ত থেকে আরেক প্রান্ত চষে বেড়াচ্ছেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার রুনা লায়লা, সহকারী পুলিশ সুপার (সিঙ্গাইর সার্কেল) রেজাউল হক, সহকারী কমিশনার (ভূমি) মেহের নিগার সুলতানা, থানার পুলিশ পরিদর্শক (ওসি) সফিকুল ইসলাম মোল্লা এবং ওসি তদন্ত আবুল কালাম।

লকডাউনের সার্বিক পরিস্থিতি দেখতে শুক্রবার (২৩ জুলাই) সকাল ১১টার দিকে সিঙ্গাইরে আসেন জেলা প্রশাসক মুহাম্মদ আব্দুল লতিফ। পরিদর্শন করেন হেমায়েতপুর-সিঙ্গাইর-মানিকগঞ্জ সড়কসহ উপজেলার গুরুত্বপূর্ণ জায়গা। এসময় জেলা প্রশাসকের উপস্থিতে সংক্রামক রোগ প্রতিরোধ, নিয়ন্ত্রণ ও নির্মূল আইন লঙ্ঘনের অপরাধে কিছু অটোরিকশা আটক করা হয়।

পরে জেলা প্রশাসক আব্দুল লতিফের নির্দেশে এদিন সন্ধ্যার দিকে আটক অটোরিকশার চালকদের জরিমানা না করে খাদ্যসামগ্রী দিয়ে ছেড়ে দেওয়া হয়। খাদ্যসামগ্রীর মধ্যে রয়েছে ১০ কেজি চাল, ১ কেজি ডাল, ১ লিটার তেল ও ১ কেজি লবণ।

জেলা প্রশাসক আব্দুল লতিফ ও ইউএনও রুনা লায়লার এমন উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়েছেন উপজেলার সব শ্রেণী-পেশার মানুষ। এতে খুশি অটোরিকশা চালকরাও।

এদিকে গত দুই দিনে উপজেলার বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে সংক্রামক রোগ প্রতিরোধ, নিয়ন্ত্রণ ও নির্মূল আইন লঙনের অপরাধে ৫১টি মামলায় ৫২ জনকে ৫৬ হাজার ৪০০ টাকা জরিমানাও আদায় করেছেন ভ্রাম্যমাণ আদালতের ম্যাজিস্ট্রেট উপজেলা নির্বাহী অফিসার ইউএনও রুনা লায়লা ও সহকারী কমিশনার (ভূমি) মেহের নিগার সুলতানা।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) রুনা লায়লা বলেন, লকডাউনের বিধি-নিষেধ কার্যকর করতে কঠোর অবস্থানে উপজেলা প্রশাসন। স্বাস্থ্যবিধি অমান্য করে ব্যবসা প্রতিষ্ঠান খোলা রাখাসহ বিভিন্ন অপরাধে ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে। আদায় করা হচ্ছে জরিমানা।

লকডাউনের প্রথম দিন শুক্রবার জেলা প্রশাসক আব্দুল লতিফ স্যারের উপস্থিতে বিধি-নিষেধ লঙ্ঘনের অপরাধে কিছু অটোরিকশা আটক করা হয়। পরে স্যারের নির্দেশে সন্ধ্যার দিকে চালকদের খাদ্যসামগ্রী দিয়ে অটোরিকশাগুলো ছেড়ে দেওয়া হয়।

উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মুশফিকুর রহমান খান বলেন, লকডাউনের প্রথম দিন কিছু অটোরিকশা আটকের পর জেলা প্রশাসক মুহাম্মদ আব্দুল লতিফের পরামর্শক্রমে চালকদের জরিমানা না করে খাদ্যসামগ্রী দিয়ে ছেড়ে দেন ইউএনও রুনা লায়লা। তাদের এমন উদ্যোগ উপজেলাবাসীর কাছে প্রসংশিত হয়েছে।

তিনি আরো বলেন, ইউএনও মহোদয় বাসায় অসুস্থ স্বামী ও শিশু সন্তান রেখে করোনাভাইরাস প্রতিরোধসহ সিঙ্গাইরবাসীর কল্যাণে সার্বক্ষণিক কাজ করছেন। তার এই ত্যাগ ও শ্রম ঘাম স্মরণীয় হয়ে থাকবে।



সাতদিনের সেরা