kalerkantho

সোমবার  । ১২ আশ্বিন ১৪২৮। ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২১। ১৯ সফর ১৪৪৩

পূর্বধলায় ৫ বাল্যবিয়ে পণ্ড

পূর্বধলা (নেত্রকোনা) প্রতিনিধি   

২৩ জুলাই, ২০২১ ২১:৪৩ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



পূর্বধলায় ৫ বাল্যবিয়ে পণ্ড

নেত্রকোনার পূর্বধলা উপজেলায় ৫টি বাল্যবিয়ে ভেঙে দিয়েছেন উপজেলা প্রশাসন ও শিশু সংগঠনের প্রতিনিধিরা। এ সময় তাদের অভিভাবকদের কাছ থেকে মুচলেখা ও আর্থিক জরিমানা আদায় করা হয়।

উপজেলা প্রশাসন সূত্রে জানা গেছে, শুক্রবার উপজেলার আগিয়া ইউনিয়নের সাত্যাটি গ্রামের মো. আয়তুল্লাহর মেয়ে ও অস্টম শ্রেণির শিক্ষার্থী আফরোজা আক্তার মালা (১৬) ও একই গ্রামের শাহজাহান খানের মেয়ে একাদশ শ্রেণির শিক্ষার্থী মার্জিয়া আক্তারের (১৭) বিয়ের আয়োজন করা হয়। বাল্যবিয়ের খবর পেয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) উম্মে কুলসুম তাদের বাড়িয়ে গিয়ে বিয়ে ভেঙে দেন। এ সময় মেয়ের বয়স ১৮ বছর না হওয়া পর্যন্ত বিয়ে দিবে না মর্মে তাদের অভিভাবকদের কাছ থেকে মুচলেখা ও মো. আয়তুল্লাহকে ৩হা জার টাকা জরিমানা করেন।

একই দিনে আগিয়া ইউনিয়নের হাটকান্দা গ্রামের ফজর উদ্দিনের মেয়ে অষ্টম শ্রেণির শিক্ষার্থী ফারজানা বেগম (১৫) ও হোগলা ইউনিয়নের ভিকুনিয়া গ্রামের বিল্লাল হোসেন বেলির মেয়ে মাদরাসার শিক্ষার্থী নার্গিস আক্তারের (১৫) বিয়ের দিন ধার্য ছিল। বাল্যবিয়েগুলোর খবর জানতে পারে 'রাজধলা কেন্দ্রীয় শিশু ফোরাম' নামে একটি শিশু সংগঠন। তারা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও পূর্বধলা থানায় খবর দেয়। পরে চেয়ারম্যান ও পুলিশ গিয়ে বিয়ে দুইটি বন্ধ করে দেন।

অপরদিকে গত শনিবার উপজেলার আগিয়া ইউনিয়নের সাত্যাটি গ্রামের নবি হোসেনের মেয়ে স্কুল পড়ুয়া রুবি আক্তারের (১৫) বিয়ের আয়োজন করা হয়। শিশু সংগঠন রাজধলা কেন্দ্রীয় শিশু ফোরামের প্রতিনিধিরা জানতে পেরে স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানের সহায়তায় বাল্যবিয়েটি বন্ধ করে দেন। এ সময় মেয়ের বাবা-মা মেয়ের বয়স ১৮ বছর না হওয়া পর্যন্ত বিয়ে না দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দেন।

রাজধলা কেন্দ্রীয় শিশু ফোরামের সভাপতি মো. উজ্জল মিয়া বলেন, অনেক অভিভাবক না বুঝে অল্প বয়সে মেয়েদের বিয়ে দিচ্ছেন। তাই উপজেলার যেখানেই বাল্যবিয়ে খবর পাব সেখানেই আমরা প্রতিরোধ গড়ে তোলব।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) উম্মে কুলসুম বলেন, বাল্যবিয়ে ভেঙে তাদের অভিভাবকদের কাছ থেকে মুচলেখা নেওয়া হয়েছে। ১৮ বছরের আগে যদি কেউ মেয়ের বিয়ে দেন তবে তাদের বিরুদ্ধে কঠোর শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়া হবে।



সাতদিনের সেরা