kalerkantho

সোমবার  । ১২ আশ্বিন ১৪২৮। ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২১। ১৯ সফর ১৪৪৩

নিষেধাজ্ঞা ভেঙে মৎস্য আহরণ : দুটি ফিশিং ট্রলারে জরিমানা

শরণখোলা (বাগেরহাট) প্রতিনিধি   

২৩ জুলাই, ২০২১ ১৯:১০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



নিষেধাজ্ঞা ভেঙে মৎস্য আহরণ : দুটি ফিশিং ট্রলারে জরিমানা

নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে সাগর থেকে মাছ ধরে ফিরে আসার পর বাগেরহাটের শরণখোলায় দুটি ফিশিং ট্রলার জব্দ করা হয়েছে। পরে ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে ট্রলার মালিকদের জরিমানা ও মাছ নিলামে বিক্রি করা হয়।

আজ শুক্রবার (২৩ জুলাই) বিকেল সাড়ে পাঁচটার দিকে উপজেলার রাজৈর মৎস্য অবতরণ কেন্দ্রের ঘাটে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) খাতুনে জান্নাত।

জব্দকৃত ট্রলার দুটি হল উপজেলা সদরের পাঁচরাস্তা এলাকা এজেড এম ফিরোজ আহমদের এফবি মা-বাবার দোয়া এবং মোরেলগঞ্জ উপজেলার আমড়াগাছিয়া গ্রামের আনোয়ার গাজীর এফবি আল্লাহর দান।

শরণখোলা মৎস্য আড়তদার সমিতির সভাপতি মো. দেলোয়ার ফরাজী বলেন, আমাদের এলাকার সকল জেলে-মহাজন সরকারের আইন মেনে ৬৫ দিনের অবরোধ সফলভাবে পালন করেছে। দু-একটি ট্রলার গোপনের অবরোধ শেষ হওয়ার তিনদিন আগে সাগরে যায়। এটা আমরা জানলে যেতে দিতাম না।

উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা এম এম পারভেজ বলেন, জব্দৃকত ট্রলার মালিকদের ১০ হাজার টাকা জরিমানা এবং দুটি ট্রলারের থাকা সামুদ্রিক টুনা ও অন্যান্য মাছ ১১ হাজার টাকায় নিলামে বিক্রি করা হয়েছে।

মৎস্য কর্মকর্তা জানান, শরণখোলার সকল জেলে-মহাজনই অবরোধ সফলে সহযোগিতা করেছেন। এদের মধ্যে দু-একজন লোভে পড়ে সাগরে গিয়ে ধরা খেয়েছেন।

শরণখোলা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) খাতুনে জান্নাত বলেন, আইন অমান্য করে সাগরে যাওয়া এবং মৎস্য আহরণ শেষে ফিরে আসা দুটি ট্রলার জব্দ করে ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে মালিকদের জরিমানা ও মাছ নিলামে বিক্রি করা হয়েছে। এভাবে আরো কোনো ট্রলারের খোঁজ পাওয়া গেলে তাদের বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা নেওয়া হবে। এ সময় দেশের মৎস্য সম্পদ রক্ষায় জেলে-মহাজনসহ সকলকে আরো সচেতন হওয়ার আহ্বান জানান তিনি।



সাতদিনের সেরা