kalerkantho

সোমবার । ১৮ শ্রাবণ ১৪২৮। ২ আগস্ট ২০২১। ২২ জিলহজ ১৪৪২

বাড়ি অবরুদ্ধ থাকায় ঈদ করতে পারছেন না যুবলীগ নেতা

মুরাদনগর (কুমিল্লা) প্রতিনিধি   

১৯ জুলাই, ২০২১ ১৬:৪৫ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



বাড়ি অবরুদ্ধ থাকায় ঈদ করতে পারছেন না যুবলীগ নেতা

গরু কেনার টাকা পকেটে নিয়ে ঘুরছেন তিনি। পরিবার পরিজনকে নিয়ে বাড়িতে ঢোকার পথ বাঁশের বেড়ায় অবরুদ্ধ। এক সময়ের প্রভাবশালী যুবলীগ নেতার এমন করুণ দৃশ্যে বর্তমান নেতা-কর্মীরাও এগিয়ে আসছেন না। নিরূপায় হয়ে তিনি আজ সোমবার বিকেলে মুরাদনগর প্রেস ক্লাবে এসে সাংবাদিকদের সহযোগিতা চান।

ভুক্তভোগী মোখলেছুর রহমান কুমিল্লার মুরাদনগর উপজেলা যুবলীগের সাবেক যুগ্ম আহ্বায়ক ও বাঙ্গরা বাজার থানাধীন আন্দিকুট ইউনিয়নের গণিপুর গ্রামের মৃত আব্দুল হামিদের ছেলে।

মোখলেছুর রহমান বলেন, পারিবারিক জায়গা জমির দ্বন্দ্বের জেরে ভাই ভাতিজারা আমার ঘরের সব মালামাল নিয়ে গিয়ে বাড়ির চারপাশে বাঁশের বেড়া দিয়েছে। পরিবার নিয়ে বাড়িতে ঢুকতে পারছি না। গরু কেনার টাকা পকেটে রেখেছি, কিন্তু বাজারে যাওয়ার সাহস পাচ্ছি না। বাড়িতে ঢুকলে হাত-পা ভেঙে দেওয়ার হুমকি-ধমকি দিচ্ছে তারা। সাংগঠনিক রাজনীতি করে ছাত্রলীগ থেকে যুবলীগ নেতা হয়েছি। আমারই যদি এমন করুণ দশা হয়, তাহলে অন্যদের কি হবে! প্রশাসন ও স্থানীয় নেতা-কর্মীদের সহযোগিতা পেলে পরিবার পরিজন নিয়ে বাড়িতে ঈদ করতে পারতাম।’

অভিযুক্ত আব্দুল মতিন বলেন, ‘আমাদের নিজের জায়গায় আমরা বেড়া দিয়েছি। সে যদি বাড়িতে ঢুকতে না পারে, সেটা আমার দেখার বিষয় নয়। মানবিক দিক থেকে বাড়িতে যাওয়ার রাস্তাটি খুলে দিতে পারতেন এমন প্রশ্নে? তিনি বিষয়টি আমলে নেয়নি।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে স্থানীয় একাধিক ব্যক্তিরা বলেন, এ বিষয়ে একাধিকবার মীমাংসা করা হয়েছে। কিন্তু মতিন ও তার ছেলেরা বৈঠকে মীমাংসা মেনে এসে এক সপ্তাহ পরে উল্টে যায়। তারা খুব উশৃংখল হওয়ায় স্থানীয়রা ভীতসন্ত্রস্ত থাকে।

বাঙ্গরা বাজার থানা যুবলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক আব্দুল্লাহ নজরুল বলেন, ‘বিষয়টি দু:খজনক। তিনি আমাদের বড় ভাই। পরিচ্ছন্ন রাজনীতিবিদ। তাঁকে আমরা সর্বাত্বক সহযোগিতা করব।

বাঙ্গরা বাজার থানার ওসি কামরুজ্জামান তালুকদার বলেন, ‘ওনাকে আমার কাছে পাঠিয়ে দেন। বিষয়টি আমি আন্তরিকতার সহিত দেখব।



সাতদিনের সেরা