kalerkantho

সোমবার । ১১ শ্রাবণ ১৪২৮। ২৬ জুলাই ২০২১। ১৫ জিলহজ ১৪৪২

অল্পের জন্য রক্ষা পেল কয়েকটি পরিবার

সীতাকুণ্ডে ফের ধসে পড়ল পাহাড়

সীতাকুণ্ড (চট্টগ্রাম) প্রতিনিধি   

২ জুলাই, ২০২১ ১৭:৩৫ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



সীতাকুণ্ডে ফের ধসে পড়ল পাহাড়

কয়েকদিনের টানা বর্ষণে চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডে আবারো ধসে পড়ল সুবিশাল পাহাড়। আজ শুক্রবার সকালে উপজেলার সলিমপুর ইউনিয়নের ৮নং ওয়ার্ডের অন্তর্গত সমাদ্দার পাড়া এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। তবে ঘটনাস্থলে ঠিক পাশেই বেশ কিছু ঝুঁকিপূর্ণ বসতি থাকলেও পাহাড়ের বিশাল মাটির স্তুপ একটু দূরে পড়ায় অল্পের জন্য রক্ষা পেল পরিবারগুলো। খবর পেয়ে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন ইউএনও, এসিল্যান্ডসহ অন্যান্যরা।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, সীতাকুণ্ড উপজেলার সলিমপুর ইউনিয়নের বিভিন্ন অংশে দেড় লক্ষাধিক মানুষ বসবাস করে। এর মধ্যে জঙ্গলসলিমপুর ও ছিন্নমূল এলাকায় পাহাড় কেটে ঝুঁকিপূর্ণ বসতি স্থাপন করে বসবাস করেছেন লক্ষাধিক মানুষ। প্রতিবছর বর্ষায় টানা বৃষ্টি শুরু হলেই এখানে বারবার পাহাড় ধসের ঘটনা ঘটতে থাকে। এতে বহু প্রাণহানির ঘটনাও ঘটেছে এখানে। পাহাড় ধস শুরু হয়েছে এবারোও। বর্ষার শুরুতেই জঙ্গল সলিমপুর এলাকায় একটি পাহাড় ধসের ঘটনা ঘটে। তবে তাতে প্রাণহানির কোনো ঘটনা ঘটেনি। শুক্রবার সকাল ৮টার দিকে একই ইউনিয়নের ৮নং ওয়ার্ডের সমাদ্দার পাড়ায় ফের পাহাড় ধসের ঘটনা ঘটে। এবার যেখানে পাহাড় ধসের ঘটনা ঘটেছে সেখানে উঁচু পাহাড়টির ঠিক নিচে বেশ কিছু বসতি রয়েছে। কিন্তু এবারো বেশ বড় আকারের পাহাড় ধসে পড়েছে ঘরগুলোর ঠিক পাশেই। এতে পাহাড়ের মাটি ঘরগুলোর পাশে পড়ে স্তুপ হয়ে গেলেও সৌভাগ্যক্রমে বড় ধরনের প্রাণহানির ঘটনা ঘটেনি।

সলিমপুর সমাদ্দার পাড়া এলাকার বাসিন্দা মো. জয়নাল বলেন, পাহাড়টির ঠিক পাশেই ছিল কয়েকটি ঝুঁকিপূর্ণ বসতি। কিন্তু আল্লাহ তাদেরকে রক্ষা করেছেন। তাই পাহাড়টি তাদের উপর পড়েনি।

সীতাকুণ্ড উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. শাহাদাত হোসেন বলেন, সকাল ৮টার দিকে সমাদ্দার পাড়ায় পাহাড় ধসের ঘটনার খবর পেয়ে আমরা সেখানে ছুটে যাই। পাহাড়টি যেভাবে পড়েছে তাতে বড় ধরণের ঘটনা এড়ানো গেছে। সৌভাগ্যক্রমে পরিবারগুলো রক্ষা পেয়েছে।

তিনি বলেন, ঝুঁকিপূর্ণ বসতিগুলোকে সরে যাবার জন্য আগেই নির্দেশনা দেওয়া হয়েছিল। তারা সরে গিয়েও আবারো এসব ঘরে চলে এসেছেন। এখন আমরা আবারো সবাইকে নিরাপদ দূরত্বে চলে যাবার জন্য নির্দেশনা দিয়েছি।



সাতদিনের সেরা