kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ৮ আশ্বিন ১৪২৮। ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১। ১৫ সফর ১৪৪৩

৩৩৩-এ ফোন করে খাদ্য সহায়তা পেলেন রিকশাচালক মমিনুল

উলিপুর (কুড়িগ্রাম) প্রতিনিধি   

১ জুলাই, ২০২১ ১৯:০৭ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



৩৩৩-এ ফোন করে খাদ্য সহায়তা পেলেন রিকশাচালক মমিনুল

৩৩৩-এ ফোন করে খাদ্য সহায়তা পেলেন কুড়িগ্রামের উলিপুর পৌর শহরের বলদি পাড়া গ্রামের হতদরিদ্র রিকশাচালক মমিনুল ইসলাম। লকডাউনের প্রথমদিনে পৌর মেয়র মামুন সরকার মিঠু তাকে ডেকে এনে খাদ্য সহায়তা প্রদান করেন।

মমিনুল ইসলাম ওই গ্রামের ছকিমুদ্দিনের পুত্র। করোনা সংক্রমণরোধে সারা দেশের ন্যায় এ উপজেলাতেও ৭ দিনের কঠোর লকডাউন চলছে। এতে চরম বিপাকে পড়ে নিম্ন আয়ের মানুষ। এ অবস্থায় স্ত্রী-সন্তান নিয়ে খাদ্য সংকটে পড়েন রিকশাচালক মমিনুল। উপায়ন্তর না পেয়ে ৩৩৩ নম্বরে ফোন করেন তিনি।

আজ বৃহস্পতিবার বিকেলে মমিনুলের বাড়িতে গিয়ে তার সাথে কথা বলে জানা গেছে, গত তিন দিন থেকে আয়ের একমাত্র মাধ্যম রিকশাটি নষ্ট হয়ে পড়ে আছে। টাকার অভাবে রিকশা ঠিক করতে পারেনি। এর মধ্যে সরকার ৭ দিনের লকডাউন ঘোষণা করেছে। ছোট ছোট দুটি সন্তান নিয়ে খাদ্য সংকটে দিন কাটছে তার। নিরুপায় হয়ে ৩৩৩ ফোন করেন তিনি। পরে উলিপুর পৌর মেয়র তাকে জাতীয় পরিচয়পত্র নিয়ে ডাকেন। এসময় ১০ কেজি চাল, আধা কেজি ডাল, লবণ, সয়াবিন তেল ও একটি মিষ্টি কুমড়া দেওয়া হয়।

এ বিষয়ে পৌর মেয়র আলহাজ মামুন সরকার মিঠু বলেন, শুধু মমিনুল নয়, লকডাউন চলাকালে কেউ যদি খাদ্য সংকটে পড়েন উলিপুর পৌরসভা তাদের সর্বাত্মক সহযোগিতা করবে। কেউ আমার ব্যক্তিগত মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করলেও তাদের সহযোগিতা করা হবে।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার নূর-এ-জান্নাত রুমি বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, লকডাউন সফল করার জন্য উলিপুর প্রশাসন মাঠে কাজ করে যাচ্ছে। লকডাউন চলাকালে কেউ যদি খাদ্য সংকটে পড়ে, আমরা তাদের খাদ্য সহায়তা পৌঁছে দেব।



সাতদিনের সেরা