kalerkantho

রবিবার । ১৭ শ্রাবণ ১৪২৮। ১ আগস্ট ২০২১। ২১ জিলহজ ১৪৪২

'আমার ছেলেকে আমার বুকে ফিরিয়ে দিন'

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি   

৩০ জুন, ২০২১ ১৯:১৬ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



'আমার ছেলেকে আমার বুকে ফিরিয়ে দিন'

জাহিদ হাসান রাজু।

নিখোঁজ হওয়ার ছয়দিন পেরিয়ে গেলেও সন্ধান মেলেনি জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের রসায়ন বিভাগের স্নাতকোত্তর পর্বের শিক্ষার্থী জাহিদ হাসান রাজুর। সব ধরনের চেষ্টা করেও তার সন্ধান না পাওয়ায় মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হস্তক্ষেপ কামনা করেছে রাজুর পরিবার। আজ বুধবার বিশ্ববিদ্যালয়ে পরিবার ও রসায়ন বিভাগের শিক্ষার্থীদের আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে প্রধানমন্ত্রীর কাছে এ আবেদন জানান ওই শিক্ষার্থীর পরিবার।

জাহিদ হাসানের পরিবার জানায়, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের ৪২তম ব্যাচের (২০১২-১৩ শিক্ষাবর্ষ) ও স্নাতকোত্তর শ্রেণীর শিক্ষার্থী জাহিদ হাসান গত বৃহস্পতিবার (২৪ জুন) সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে রাজধানী মিরপুরের মাগরিবের নামাজ পড়তে বের হন। তবে নামাজ শেষে তিনি আর বাসায় ফিরে আসেননি। তিনি মিরপুরে মেসে থেকে চাকরির প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন। এরপর তার সাথে মুঠোফোনে একাধিকবার যোগাযোগের চেষ্টা করেও তার নম্বর বন্ধ পাওয়া যায়। বিভিন্নভাবে তার খোঁজাখুঁজির পরেও তার সন্ধান না পাওয়ায় শনিবার (২৬ জুন) তার সন্ধান চেয়ে পল্লবী থানায় সাধারণ ডায়েরি করা হয়। তবে দীর্ঘ সময় পার হলেও কোনো সন্ধান মেলেনি তার।তাদের অসহায়ত্বের সুযোগ নিয়ে নানা চক্র তাদের থেকে অর্থ হাতিয়ে নিচ্ছে।

সংবাদ সম্মেলনে ওই শিক্ষার্থীর মা আকলিমা বেগম বলেন, 'আমার একমাত্র ছেলে জাহিদকে আমার কাছে ফিরিয়ে দিন। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আপনি আমার মা। আমার ছেলেকে আমার বুকে ফিরিয়ে দিন। ওকে হারিয়ে আমরা অসহায় হয়ে পড়েছি। গত ২৪ তারিখের পর থেকে আমরা তার কোনো খোঁজ জানি না। থানায় জিডি করেছি কিন্তু এখনো কোনো সন্ধান পাই নাই।'

তিনি আরো বলেন, 'আমাদের অসহায়ত্বের সুযোগ নিয়ে শনিবার জাহিদের নম্বর থেকে কল করে ৫০ হাজার টাকা দাবি করা হয়। টাকা দিলেই তাকে ছেড়ে দেওয়া হবে এটাও জানায় তারা। কে বা কারা সে টাকা দাবি করছে আমরা বুঝতে পারছি না।'

পল্লবী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) পারভেজ ইসলাম বলেন, 'নিখোঁজ জাহিদ হাসানকে উদ্ধার করতে আমরা সব ধরনের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি। তবে এখনো পর্যন্ত কোনো সন্ধান মেলেনি। তার পরিবার দাবি করছে ২৬ তারিখে তার ফোন থেকে কল এসেছে কিন্তু এর সত্যতা আমরা পাইনি। তার ফোন সর্বশেষ চালু ছিল ২৪ জুন।

এদিকে, প্রতারক চক্রের চাহিদা অনুযায়ী কয়েক দফায় ওই চক্রের কাছে টাকা পাঠিয়েছেন বলেও দাবি করে তার পরিবার। তবে টাকা পাঠানোর পরেই সেই নম্বরগুলো বন্ধ পাওয়া যায়।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের রসায়ন বিভাগের অধ্যাপক মাহবুব কবীর, অধ্যাপক সুবর্ণা কর্মকার, সহযোগী অধ্যাপক আওলাদ হোসেন। এছাড়া নিখোঁজ জাহিদ হাসানের মা, তার স্ত্রী, সন্তান তাবিয়া এবং তার সহপাঠীরা।



সাতদিনের সেরা