kalerkantho

শুক্রবার । ২ আশ্বিন ১৪২৮। ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১। ৯ সফর ১৪৪৩

৩০ কোটি টাকা মূল্যের জমি উদ্ধার করল বন বিভাগ

কালিয়াকৈর (গাজীপর) প্রতিনিধি   

২৯ জুন, ২০২১ ২০:৪৪ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



৩০ কোটি টাকা মূল্যের জমি উদ্ধার করল বন বিভাগ

গাজীপুরের কালিয়াকৈরে অবৈধভাবে দখলে থাকা বন বিভাগের প্রায় তিন একর জমি উদ্ধার করা হয়েছে। আজ মঙ্গলবার দিনব্যাপী উচ্ছেদ অভিযান চালিয়ে তার দখলে থাকা প্রায় তিন একর বনের জমি উদ্ধার করা হয়। যার আনুমানিক মূল্য প্রায় ৩০ কোটি টাকা।

বনবিভাগ, পুলিশ ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, খাদেম আলী প্রায় ২০ বছর আগে জীবিকার খোঁজে গাজীপুরের কালিয়াকৈরে এসে চন্দ্রা বন বিট অফিসের বন প্রহরী হিসেবে কাজ করেন। পরে নিজে উপজেলার পূর্বচান্দরা বোর্ডমিল এলাকায় বনের জমিতে বাড়ি-মার্কেট নির্মাণ করেও ক্ষান্ত হননি। বনের জমি দখল ও বিক্রি বাণিজ্যের মাধ্যমে ওই এলাকায় খাদেম আলী মার্কেট নামে বাজার করেন। প্রতি মাসে প্রায় দেড় শতাধিক দোকানপাট থেকে চাঁদা আদায় করে লাখ লাখ টাকা। এভাবেই তিনি প্রভাবশালী বনখেকো হয়ে উঠেন। কিন্তু গত এপ্রিলে দোকান প্রতি চাঁদা আদায়কে কেন্দ্র করে তার সঙ্গে দ্বন্দ্বের সৃষ্টি হয়। 

গত ১৮ এপ্রিল সন্ধ্যায় খাদেম আলীর সহযোগী পিচ্ছি বাবু, বাবলুসহ কয়েকজন মানিক নামে এক যুবককে গুলি করে। এ ঘটনায় গুলিবিদ্ধ মানিকের বোনের স্বামী বাদশা মিয়া বাদী হয়ে থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। পরে পুলিশ ওই ঘটনার মুলহোতা খাদেম আলীকে গ্রেপ্তার করে জেলে পাঠালেও জামিনে বেড়িয়ে আসেন। এ ঘটনায় গণমাধ্যমে সংবাদ প্রকাশের পর ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের দৃষ্টিগোচর হলে উচ্ছেদের সিদ্ধান্ত হয়।

আজ মঙ্গলবার সকালে কালিয়াকৈর উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) আদনান চৌধুরীর নেতৃত্বে উচ্ছেদ অভিযান পরিচালনা করা হয়েছে। এ সময় উপস্থিত ছিলেন- গাজীপুর সহকারী বন সংরক্ষক সাজেদুল আলম, কালিয়াকৈর রেঞ্জ কর্মকর্তা আশরাফুল আলম, কালিয়াকৈর চেকপোস্টের কর্মকর্তা মঞ্জুরুল ইসলাম, চন্দ্রা বিট কর্মকর্তা শরীফ খান চৌধুরীসহ সংশ্লিষ্ট বনবিভাগের লোকজন ও পুলিশ প্রশাসনের কর্মকর্তারা। অভিযান চালিয়ে প্রায় তিন একর বনের জমি উদ্ধার করা হয়। যার আনুমানিক মূল্য প্রায় ৩০ কোটি টাকা। 

স্থানীয়দের অভিযোগ, এর আগেও স্থানীয় বন অফিসের অসাধু কর্মকর্তা কর্মচারীদের যোগসাজসে বনখেকো মুচি জসিম ভয়ঙ্কর হয়ে উঠেছিল। এর পর বনখেকো খাদেম আলী তৈরি হয়েছে। এভাবে আর যেন কেউ এমন বনখেকো তৈরি হতে না পারে এমনটি দাবি করেছেন স্থানীয়রা।

গাজীপুর সহকারী বন সংরক্ষক সাজেদুল আলম জানান, উচ্ছেদ অভিযান চালিয়ে ওই এলাকায় প্রায় তিন একর বনের জমি উদ্ধার করা হয়েছে। এছাড়াও বিভিন্ন শিল্পকারখানা, বিনোদন কেন্দ্রে দখলে থাকা বনের জমি উদ্ধার করা হবে।

উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) আদনান চৌধুরী জানান, অভিযান পরিচালনা করে শতাধিক স্থাপনা উচ্ছেদ করা হয়েছে। এ উচ্ছেদ অভিযান অব্যাহত থাকবে।



সাতদিনের সেরা